প্রশাসনের কর্মকর্তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে

0
237

মাটিরাঙায় মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিনিধি, মাটিরাঙা »

দিনাজপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের ওপর বর্বরোচিত হামলার ঘটনাকে নিন্দনীয় অপরাধ মন্তব্য করে এ সন্ত্রাসী হামলার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করার আহবান জানান মুক্তিযোদ্ধা নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনে নিয়োজিত একজন মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তার ওপর হামলার ঘটনার ন্যায় বিচার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে। তারা বলেন, দিনাজপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম নয় সন্ত্রাসীরা তাঁর বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ওমর আলীর উপরও বর্বরোচিত হামলা চালিয়েছে। একজন মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁর সন্তানের উপর হামলার ন্যায় বিচার এখন সময়ের দাবি। দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম ও তাঁর বাবা মুক্তিযোদ্ধা মো. ওমর আলীর ওপর হামলাকারীদের শাস্তির দাবিতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে মুক্তিযোদ্ধা নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন। মাটিরাঙা পৌর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এবং মাটিরাঙা উপজেলা ও পৌর মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড এ মানববন্ধনের আয়োজন করে।গত মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধা চত্বরে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মাটিরাঙার সহকারী কমিশনার (ভুমি) মিজ ফারজানা আক্তার ববি। মাটিরাঙা পৌর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সভাপতি মো. আবুল হাশেমের সভাপতিত্বে ঘন্টাব্যাপী  মানববন্ধনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মাটিরাঙা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো. তাজুল ইসলাম। খাগড়াছড়ি জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক সহকারি কমান্ডার মো. হানিফ হাওলাদার ও খাগড়াছড়ি জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সাবেক সভাপতি হারুন মিয়া প্রমুখ মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন। ঘন্টাব্যাপী  মানবন্ধনে মাটিরাঙার বিভিন্ন স্তরের মুক্তিযোদ্ধা ছাড়াও সর্বস্তরের মানুষ অংশ গ্রহণ করেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাটিরাঙার সহকারী কমিশনার (ভুমি) মিজ ফারজানা আক্তার ববি বলেন, একজন সরকারি চাকরিজীবী দেশ ও দেশের মানুষের সেবা করার শপথ নিয়ে চাকুরিতে যোগদান করেন। এর মধ্যে মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তারা পরিবার পরিজনকে দুরে রেখেই স্বচ্ছতার সাথে বিভিন্ন উপজেলার উন্নয়ন কাজ করার জন্য নিজের সর্বোচ্চ চেষ্টা করেন। কিন্তু প্রায়শই তাদের এই সব কাজ করতে গিয়ে হেনস্তার শিকার হতে হচ্ছে।