সবজি কিনতেই নাকানিচুবানি

0
146

মাছ-মাংস দেখেই তৃপ্তি মিটাচ্ছে ক্রেতারা

রাঙ্গুনিয়ার হাটবাজার

শান্তি রঞ্জন চাকমা, রাঙ্গুনিয়া  :

রাঙ্গুনিয়ায় সবধরনের সবজির দাম বেড়েছে। প্রতিটি সবজির দাম বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা। শীতের আগাম সবজির সরবরাহ বাড়লেও দাম চড়া। এ কারনে সবজি কিনতে গিয়ে স্বস্তি পাচ্ছেন না ক্রেতারা। সবজির সঙ্গে পেঁয়াজ ও আলুর জন্যেও দিতে হচ্ছে চড়া দাম। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে, বাজারে গিয়ে পণ্যের দামে এক প্রকার নাকানিচুবানি খাচ্ছেন সবশ্রেণি পেশার মানুষ। উপজেলার চন্দ্রঘোনা দোভাষীবাজার, লিচুবাগান, জিয়া মার্কেট, মরিয়মনগর, চৌমুহনী, রোয়াজারহাট, ইছাখালি, গোডাউন, গোচরা, শান্তিরহাট, মাল্যেরহাট, বেতাগী, সরফভাটা ক্ষেত্রবাজার, শিলক রাস্তারমাথা, ফুলতলি, কোদালা বাজার, রাইখালি সন্দীপপাড়া, পদুয়া রাজারহাট, দশমাইল মুক্তিযোদ্ধা বাজার, সোমবাজ্জ্যেহাট, নারিশ্চাবাজার, শান্তিনিকেতন, মোগলেরহাট, ধামাইরহাট, রাজারহাট, পারুয়া হাজানীহাট, রানীরহাট, ইসলামপুরের গাবতলসহ বিভিন্ন এলাকায় সবজি বাজার বসে। অধিকাংশ সবজি বাজারে পণ্যের আকাশ ছোঁয়া দাম নেয়া হচ্ছে বলে একাধিক ক্রেতা জানিয়েছেন। চন্দ্রঘোনা লিচুবাগান বাজারে আসা সবজি ক্রেতা আব্দুর রহিম বলেন, শীতের অন্যতম প্রধান সবজি ফুলকপি ও বাঁধাকপির দামেও স্বস্তি পাওয়া যাচ্ছে না। ছোট একটি ফুলকপি কিনলে ৩০-৪০ টাকা গুনতে হচ্ছে। একই দাম দিতে হচ্ছে বাঁধাকপির জন্য। স্থানীয় পাহাড়ি মরিচ কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ১শ৮০-২শ টাকায়। সবজি ব্যবসায়ীরা জানান, শাকের দাম পূর্বের চেয়ে বেড়েছে ৫-১০ টাকা। লাল শাক বিক্রি হচ্ছে ২০-৩০ টাকা। মূলা ও কলমি শাক ১৫-২৫ টাকা, পুইশাক ২৫-৩০ টাকা, লাউ ও কুমড়ার শাক ২০-৩০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। ফুলকপি কেজি ১শ-১শ২০ টাকা, শিম কেজি ১শ-১শ৩০ টাকা, বরবটি কেজি ৬০-৮০ টাকা, আলু কেজি ৪৫-৪৮ টাকা, বেগুন কেজি ৬০-৭৫ টাকা, চিচিঙ্গা ৬৫-৭০ টাকা,  পেঁপে   কেজি ২৫-৩৫ টাকা, বাঁধাকপি কেজি ৬৫-৭০ টাকা, গাজর কেজি ৭৫-৮০ টাকা। মাছের বাজারও চড়া। প্রতি কেজি মাছে ১০ থেকে ২০ টাকা বেড়েছে। প্রতিকেজি রুই আকার ভেদে বিক্রি হচ্ছে ১শ৮০-৩শ টাকা, পাঙ্গাস ১শ-২শ৫০ টাকা, কাতাল ২শ-৩শ টাকা, তেলাপিয়া ১শ২০-২শ টাকা বিক্রি হচ্ছে। ধামাইর হাট বাজারের আসা গৃহবধূ সখিনা খাতুন বলেন, চাল, সোয়াবিন তেল, রসুন, পেঁয়াজসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম পূর্বের  চেয়ে বেড়েছে। জীবন রক্ষাকারী ওষুধের দামও বেড়ে গেছে। বাজারে অধিকাংশ পণ্যের দাম বাড়ায় সংসারের চাহিদা পূরণ করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে সাধারন মানুষ। রোয়াজারহাটে আসা ক্রেতা ননী গোপাল জানান, সবজির চড়া দামের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি দিচ্ছে ব্রয়লার মুরগি ও ডিম। ব্রয়লার মুরগি কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ১শ১৫-১শ২৫ টাকা। আর ফার্মের মুরগির ডিম ডজন বিক্রি হচ্ছে ১শ-১শ১০ টাকায়। বিক্রেতারা জানায়, প্রতিবছর এই সময়ে শাক-সবজির দাম বাড়তি থাকে। সবজির দাম কমতে আরও সময় লাগবে। শীতের সবজি বাজারে ভরপুর আসার আগে দাম কমার সম্ভাবনা কম। এখন বাজারে যে হারে আগাম সবজি আসছে চাহিদা তার চেয়ে বেশি। এ কারনে সবজির দাম চড়া। আর ক্রেতাদের অভিযোগ, দাম বাড়ার পেছনে ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট কাজ করছে। বাজার মনিটরিং ও পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখতে ব্যবসায়ী সমিতি ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে ক্রেতারা।