এক সড়কে হাজার মানুষের দুর্ভোগ লাঘব

0
104

রাউজান পৌরসভা


শফিউল আলম, রাউজান  :

রাউজান পৌরসভার ৭নম্বর ওয়ার্ডের সুলতানপুর আদালত ভবনের উত্তর পাশে শহীদ জাফর সড়ক থেকে রাউজান এমদাদুল ইসলাম মাদ্রাসার পাশ দিয়ে রায় কিশোরী সড়ক হয়ে ছত্রপাড়া সড়কের সাথে মিলিত হয়।  এলাকায় যাতায়াতের সড়কটি ফসলি জমির সাথে বিলীন হয়ে যায়। সড়কটি ফসলি জমির মধ্যে বড় আইলে পরিণত হয় । আইলের উপর দিয়ে সুলতানপুর, ছত্রপাড়া এলাকার হাজারো পরিবারের বাসিন্দারা চলাচল করতো চরম দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে। সুলতান পুর থেকে ছত্রপাড়া সড়কের সাথে বিলীন হওয়া সড়ক দিয়ে বর্ষার মৌসুমে পানি ও কাদা দিয়ে এলাকার লোকজন যাতায়াত করতো চরম দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে। রাউজান এমদাদুল ইসলাম মাদ্রাসাও রাউজান মডেল ইনস্টিটিউটে শিক্ষার্থীরা এসড়ক দিয়ে চরম দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসা যাওয়া করতো। বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের কারণে শিক্ষার্থীরা অনেক দুরের পথ পাড়ি দিয়ে  যাতায়াত করতো। রাউজান আদালত ভবনের উত্তর পাশে শহীদ জাফর সড়কের পাশে রয়েছে সুলতানপুর,ছত্রপাড়া এলাকার বাসিন্দাদের কবরস্থান। এলাকার হাজারো পরিবারের চরম দুর্ভোগ লাঘবে সুলতানপুর এলাকার বাসিন্দা মাওলানা এনাম রাউজান পৌরসভার ২য় প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজের সহায়তা চাই। জমির উদ্দিন পারভেজ নিজের অর্থ দিয়ে পৌনে এক কিলোমিটার দীর্ঘ বিলীন হয়ে যাওয়া সড়কটির মাটি ভরাট করে এলাকার মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে এগিয়ে আসেন। রাউজান এমদাদুল ইসলাম মাদ্রাসার মোহতেম হাফেজ মাওলানা সোলায়মান বলেন, বিলীন হয়ে যাওয়া সড়কটি দিয়ে মাদ্রাসার ও নুরানী কেজিতে অধ্যয়নরত ৮০ জন শিক্ষার্থী প্রতিদিন চরম দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে মাদ্রাসায় আসা যাওয়া করে। সড়কটি নির্মান হলে শিক্ষার্থীদের চলচালের চরম দুর্ভোগ আর থাকবেনা। সড়কটি নির্মাণ করে দেয়ায় রাউজান পৌরসভার ২য় প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন রাউজান এমদাদুল ইসলাম মাদ্রাসার মোহতেম হাফেজ মাওলানা সোলায়মানসহ এলাকাবাসী । রাউজান পৌরসভার ২য় প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ বলেন, এলাকার মানুষের চলাচলের দুর্ভোগ লাঘবে রাউজানের সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর নির্দেশে সড়কটি মাটি ভরাট করে নির্মাণ করে দিয়েছি ।