টিকার জন্য বাংলাদেশকে বিশ্বব্যাংকের ৪২৫০ কোটি টাকার ঋণ

0
75

সুপ্রভাত ডেস্ক :

বাংলাদেশের প্রায় সাড়ে পাঁচ কোটি মানুষকে কভিড ভ্যাকসিন দিতে ৫০০ মিলিয়ন ডলার (চার হাজার ২৫০ কোটি টাকা) ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। বুধবার রাতে বিশ্বব্যাংকের নির্বাহী পরিচালকদের বোর্ড সহজ শর্তে এই ঋণ অনুমোদন দিয়েছে।

বিশ্বব্যাংকের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, বাংলাদেশ সরকারের প্রথম ধাপে ৪০ শতাংশ মানুষকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনার পরিকল্পনার মধ্যে ৩১ শতাংশ মানুষকে টিকাদানের আওতায় আনতে সহায়তা করবে বিশ্বব্যাংকের ‘কোভিড-১৯ ইমারজেন্সি রেসপন্স অ্যান্ড প্যানডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস প্রজেক্ট’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় দেওয়া অতিরিক্ত এই অর্থায়ন।

এই অর্থায়ন নিরাপদ ও কার্যকরী ভ্যাকসিন কিনতে, দেশের ভ্যাকসিন সংরক্ষণ সুবিধা বাড়াতে ও বিতরণে সরকারকে সহায়তা করবে।

বিশ্ব ব্যাংক জানায়, এ প্রকল্পের অধীনে কভিড-১৯ সংক্রমণ চিহ্নিত করা, প্রতিরোধ ও চিকিৎসা এবং ভবিষ্যতে স্বাস্থ্য বিষয়ক জরুরি পরিস্থিতিতে জাতীয় স্বাস্থ্য ব্যবস্থার সক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা অব্যাহত রাখা হবে।

বাংলাদেশ ও ভুটানে নিযুক্ত বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেম্বন বলেন, ‘দেশব্যাপী টিকাদান কর্মসূচি শুরুর মাধ্যমে কভিড-১৯ প্রতিরোধে বাংলাদেশ দ্রুত উদ্যোগ নিয়েছে। টিকাদান কর্মসূচির লক্ষ্য অর্জনে মানুষের দ্রুত ও সাম্যতার সঙ্গে ভ্যাকসিন পাওয়া জরুরি। বিশ্বব্যাংকের এই অর্থায়ন জাতীয় স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে শক্তিশালী করার মাধ্যমে বাংলাদেশের এক-তৃতীয়াংশ জনগণের জন্য দ্রুত ভ্যাকসিন সরবরাহ নিশ্চিত করবে।’

এই ঋণ শোধ করতে ৩০ বছর সময় পাবে বাংলাদেশ।