আমার অসমাপ্ত কাজ শেষ করবে নতুন পর্ষদ

168

আশাবাদ প্রশাসক সুজনের

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন নাগরিক সেবার ক্ষেত্রে যেসব কাজ শেষ করে যেতে পারেননি তা নতুন নির্বাচিত পর্ষদ সম্পন্ন করবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।
তিনি গতকাল রোববার সকালে নগরীর টাইগারপাস চসিকের অস্থায়ী অফিসে তাঁর দপ্তরে বিভাগীয় প্রধানদের সভায় এই আকাক্সক্ষা প্রকাশ করেন।
সভায় চসিকের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবু শাহেদ চৌধুরী, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মুফিদুল আলম, চসিক আঞ্চলিক অফিস জোন-৬ এর প্রধান নির্বাহী আফিয়া আকতার, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মারুফা বেগম নেলী, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম মানিক, অতিরিক্ত প্রধান হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা মোহাম্মদ হুমায়ন কবির চৌধুরী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আলী, অতিরিক্ত প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা মোর্শেদুল আলম চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।
প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন তাঁর দায়িত্বকালে সহযোগিতা করায় বিভাগীয় প্রধানদের ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, আমি আমার দায়িত্বকালে নগরীর প্রধানতম সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে তা সমাধানে সাধ্যমত চেষ্টা করেছি। ১৭টি খাল পরিষ্কার করে পানিপ্রবাহ স্বাভাবিক করার পাশাপাশি মশার প্রজনন ধ্বংসে ওষুধ ছিটানোর ব্যবস্থা নিয়েছি। ৬ মাসের দায়িত্বকালে আমার নাগরিকসেবার কার্যক্রমে করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সহযোগিতা করেছেন। তাদের সহযোগিতায় আমি নগরবাসীর আকাক্সক্ষা অনুযায়ী সেবা দেয়ার চেষ্টা করেছি। আমি বিশ্বাস করি সবার আন্তরিক প্রয়াস ও আমার ঐকান্তিক চেষ্টায় নগরবাসী জনপ্রতিনিধিদের ব্যাপারে আশাবাদী হবেন।
সভায় প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার করোনা মহামারির টিকা চট্টগ্রাম এসে পৌঁছেছে বলে প্রশাসককে অবহিত করেন। যা এখন চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন অফিসের কেন্দ্রীয় স্টোরে সংরক্ষিত আছে। ১ ফেব্রুয়ারি চসিকের ৩১ জন স্থাস্থ্যকর্মী ও ইপিআই কর্মী কোভিডের টিকা প্রদানে তাদের প্রশিক্ষণ শুরু করবেন। প্রশিক্ষণ শেষে তারা টিকা প্রদান কার্যক্রমে অংশ নেবেন।
উল্লেখ্য, সরকারি পর্যায়ে প্রথমে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে করোনার টিকা দেয়ার কর্মসূচি শুরু হবে।