আন্দোলন সংগ্রামে ডা. মিলন আমাদের প্রেরণার উৎস

0
150

নগর বিএনপির আলোচনা সভা

মহানগর বিএনপির সভাপতি ও চসিক মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, ‘শহীদ ডা. শামসুল আলম খান মিলন স্বৈরাচারী শাসন বিরোধী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ইতিহাসে একটি অবিস্মরণীয় নাম। স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলন চলাকালে ১৯৯০ সালের ২৭ নভেম্বর শহীদ হন তিনি। স্বৈরাচারী শাসনের শৃঙ্খল থেকে গণতন্ত্রকে উদ্ধার করতে গিয়েই শহীদ হয়েছেন ডা. মিলন। কিন্তু বর্তমানে দেশের গণতন্ত্র আবারও গভীর খাদের কিনারে গিয়ে পড়েছে। গণতন্ত্রের শত্রুরা গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে ফেলেছে’। গতকাল শুক্রবার বিকালে ডা. মিলনের ৩০ তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয়ে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, গণতন্ত্র ধ্বংসকারী অপশক্তিগুলোর চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে দিতে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। গণতন্ত্রকে মজবুত ভিতের ওপর দাঁড় করাতে হবে। আর তাহলেই ডা. মিলনের আত্মত্যাগ সার্থক হবে।
মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর বলেন, ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনে ডা. মিলন পালন করেছিলেন অকুতোভয় সৈনিকের ভূমিকা। তাঁর আত্মদানের মধ্য দিয়ে নয় বছরের স্বৈরাচার বিরোধী গণতান্ত্রিক সংগ্রাম চূড়ান্ত বিজয়ের দিকে ধাবিত হয়। গণতন্ত্রের জন্য ডাক্তার মিলনের এই সর্বোচ্চ আত্মদান এ দেশের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। স্বৈরচারী শক্তির বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগ্রামে ডা. মিলন আমাদের প্রেরণার উৎস’।
মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান বলেন, ‘স্বৈরাচারী সরকারকে হটিয়ে জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠাই ছিলো ডা. মিলনের দৃঢ় প্রতিজ্ঞা। বুকের রক্ত ঢেলে তিনি এদেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের পথ প্রশস্ত করে গেছেন। এখন গণতন্ত্র পুনঃউদ্ধারে ডা. মিলনের আত্মত্যাগ আমাদের প্রেরণা জোগাবে।
মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কামরুল ইসলামের পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি এম এ আজিজ, হারুন জামান, ইকবাল চৌধুরী, এস এম সাইফুল আলম, কাজী বেলাল উদ্দীন, জাহাঙ্গীর আলম দুলাল, আনোয়ার হোসেন লিপু, গাজী সিরাজ উল্লাহ, মনজুর আলম চৌধুরী মঞ্জু, খোরশেদ আলম, হকার্স সম্পাদক আব্দুল বাতেন, একেএম পেয়ারু, আব্দুল হালিম স্বপন, রফিকুল ইসলাম, মো. ইদ্রিস আলী, খোরশেদ আলম কুতুবী, আবু মুছা, ইউছুপ সিকদার, নুরুল হক, মনিরুজ্জামান টিটু, মনিরুজ্জামান মুরাদ, আকতার খান, এসএম মফিজ উল্লাহ, আলাউদ্দিন আলী নূর, ইলিয়াছ চৌধুরী, মোহাম্মদ মহসিন, আজম উদ্দিন, হাসান উচমান চৌধুরী, হাজী মোহাম্মদ জাহেদ, মোহাম্মদ মুছা, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, জিয়াউর রহমান জিয়া, গোলজার হোসেন, আবু মহসিন চৌধুরী প্রমুখ।