সাত মিনিটের ইন্টারভিউতেই কোচ হয়েছিলেন কার্স্টেন

0
237

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক :
কোচিং ডিগ্রি ছিল না। কোচিং করতে আগ্রহীও ছিলেন না। কিন্তু মিনিট সাতেকের ইন্টারভিউতেই গুরু গ্রেগের ছেড়ে যাওয়া চেয়ারে বসেছিলেন গ্যারি কার্স্টেন। বোর্ড তার হাতে যে চুক্তিপত্র দিয়েছিল, তাতে ছিল গুরু গ্রেগের নাম। পরে চুক্তিপত্রে চ্যাপেলের নাম কেটে কার্স্টেনের নাম করা হয়। খবরের ভিতরের এ সব খবরই কার্স্টেন ফাঁস করেছেন এক সাক্ষাৎকারে।
সুনীল গাওস্করের মেল পেয়ে ইন্টারভিউ দেওয়ার জন্য ভারতে এসেছিলেন প্রাক্তন প্রোটিয়া ওপেনার। এক সাক্ষাৎকারে কার্স্টেন বলেন, ‘ভারতীয় দলকে কোচিং করানোর ব্যাপারে আমি আগ্রহী কি না, তা জানতে মেল করেছিলেন সুনীল গাওস্কর। আমার মনে হয়েছিল মেলটা ভুয়ো। আমি তাই মেলের জবাব দিইনি। পরে আমাকে আরও একটা মেল পাঠান গাওস্কর। জানতে চান ইন্টারভিউ দেওয়ার জন্য আসছি কি না।’
ভারতীয় দলকে কোচিং করানোর প্রস্তাব পেয়ে প্রথমটায় বিস্মিতই হয়ে গিয়েছিলেন কার্স্টেন। তাকে পাঠানো সেই মেল কার্স্টেন দেখিয়েছিলেন তার স্ত্রীকে। কার্স্টেনের স্ত্রী বলেছিলেন, ‘ওরা হয়তো ভুল লোককে পাঠিয়েছে।’
কোনও রকম প্রস্তুতি ছাড়াই ইন্টারভিউ বোর্ডের সামনে হাজির হন কার্স্টেন। নির্বাচন প্যানেলে সেই সময়ে ছিলেন রবি শাস্ত্রীও। ইন্টারভিউয়ের শুরুতেই বিসিসিআই সচিব কার্স্টেনকে ভারতীয় ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রেজেন্টেশন দিতে বলেন। সেই প্রসঙ্গে কার্স্টেন বলেন, ‘বোর্ড সচিবের প্রশ্নের উত্তরে আমি বলেছিলাম, আমাকে তো কেউ কিছু তৈরি করতে বলেননি।’
পরিস্থিতি হালকা করার জন্য শাস্ত্রী তখন প্রাক্তন ওপেনারকে জিজ্ঞাসা করেন, ‘ভারতকে হারানোর জন্য তোমরা কী করতে?’ শাস্ত্রীর প্রশ্নের জবাব দু’তিন মিনিট ধরে দেন কার্স্টেন। কিন্তু স্ট্র্যাটেজি তিনি জানাননি। কার্স্টেনের জবাবে খুশি হন ইন্টারভিউ বোর্ডের সবাই।
কার্স্টেনকে চুক্তিপত্র দেওয়া হয়। ভারতের কোচের চেয়ারে বসতে ঠিক সাত মিনিট সময় লেগেছিল তার। চুক্তিপত্র নিয়েও আর এক গল্প। কার্স্টেনের হাতে তুলে দেওয়া চুক্তিপত্রের প্রথম পাতায় লেখা ছিল আগের কোচ গ্রেগ চ্যাপেলের নাম। কার্স্টেন সেই চুক্তিপত্র ফিরিয়ে দিয়ে বলেন, ‘এটা মনে হয় আপনাদের পুরনো কোচের কন্ট্র্যাক্ট পেপার।’
সেই চুক্তিপত্র দেখার পরে অস্বস্তিতে পড়ে যান সেই সময়ের বোর্ড সচিব। তিনি তখন পেন দিয়ে চ্যাপেলের নাম কেটে কার্স্টেনের নাম লিখে দেন। তার পরের ঘটনা তো ইতিহাস। কার্স্টেনের কোচিংয়েই দেশের মাটিতে বিশ্বকাপ জেতে ভারত।
খবর : আনন্দবাজার’র।