সাংবাদিকদের সুরক্ষা দেওয়া রাষ্ট্রের দায়িত্ব : হোসেন জিল্লুর

0
214

সুপ্রভাত ডেস্ক »

সাংবাদিক গোলাম সরওয়ারকে অপহরণের পর তাকে উদ্ধারে চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের আন্দোলনে অনুপ্রাণিত হয়েছেন জানিয়ে ব্রাকের চেয়ারম্যান ও খ্যাতিমান অর্থনীতিবিদ ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেছেন, সাংবাদিকদের চলার পথে সুরক্ষা ও সক্ষমতার নিশ্চয়তা দেওয়া যেমন সংবাদ মাধ্যমের দায়িত্ব, তেমনি রাষ্ট্রেরও দায়িত্ব। খবর বাংলানিউজের।
গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে ‘নৈতিক, অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা, সুরক্ষা ও সক্ষমতা’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
চট্টগ্রাম রিসার্চ ইনিশিয়েটিভ (সিআরআই) ও চন্দনাইশ মিডিয়া ক্লাবের উদ্যোগে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, নৈতিক, বস্তুনিষ্ঠ ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে অন্যতম অংশ। এ দায়িত্বপালন সহজ নয়। সাংবাদিকদের চলার পথে সুরক্ষা ও সক্ষমতার নিশ্চয়তা দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এই প্রয়োজন মেটানোর দায়িত্ব যেমন সংবাদ মাধ্যমের, তেমনি রাষ্ট্রেরও বটে।
তিনি বলেন, চট্টগ্রামের তরুণ সাংবাদিক গোলাম সরওয়ার তার পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে যে মহাবিপদের সম্মুখীন হয়েছেন, তা সব স্তরের নাগরিকদের উদ্বিগ্ন করেছে। সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে এ ধরনের বিপদের সম্মুখীন হওয়া উন্নত বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে অন্তরায়। এ ধরনের ঘটনা কিছুতেই গ্রহণযোগ্য নয়।
গবেষণা প্রতিষ্ঠান পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টারের (পিপিআরসি) নির্বাহী চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান বলেন, গোলাম সরওয়ারের মতো ঘটনা ঘটার পর অনেক পরিবার নানামুখী অর্থনীতির অনিশ্চয়তায় পড়ে যায়। সেটি বুঝতে পেরে আমি সরওয়ারের পাশে এসে দাঁড়িয়েছি। তার অর্থনৈতিক কষ্ট লাঘবে সাধ্যমত সহযোগিতার হাত বাড়াতে সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
‘এই আয়োজনের অন্যতম উদ্দেশ্যে সরওয়ারকে সহযোগিতা করা। সরওয়ার গুম হওয়ার পর আমি খোঁজ-খবর রেখেছি। এ ঘটনায় চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের দায়িত্বশীল ভূমিকা দেখে অনেক খুশি হয়েছি এবং অনুপ্রাণিত হয়েছি। আমার মতো আরও অনেক পেশাজীবী ব্যক্তিরা অনুপ্রাণিত হয়েছেন’ বলেন তিনি।
তিনি বলেন, শুধু ব্যক্তি সরওয়ারকে সহযোগিতা নয়, সাধ্যমতো চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের পেশাগত সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য একটি ক্ষেত্র চিহিৃত করেছি। চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব, সাংবাদিক ইউনিয়ন, চন্দনাইশ মিডিয়া ক্লাবসহ আরও সাংবাদিকদের সংগঠনকে সহযোগিতা করা হবে। এ জন্য একটি বার্ষিক কর্মশালা আয়োজন করা যেতে পারে।
সংবাদ সম্মেলনে হোসেন জিল্লুর রহমান জানান, পিপিআরসি, চট্টগ্রাম রিসার্চ ইনিশিয়েটিভের (সিআরআই) উদ্যোগে এবং চট্টগ্রাম সাংবাদিক সংগঠনের সহযোগিতায় সাংবাদিকদের সক্ষমতা, সুরক্ষা বৃদ্ধিতে সহযোগিতা করা হবে। ঢাকা ও চট্টগ্রামের অনেক প্রশিক্ষক আছেন, তাদের দিয়ে এ কর্মসূচি আয়োজন করা যায়।
সংবাদ সম্মেলন শেষে জিল্লুর রহমান গোলাম সরওয়ারকে এক লাখ টাকা অনুদান প্রদান করেন।
এদিকে অপহরণ থেকে মুক্তি পাওয়ার পর কোতোয়ালী থানায় মামলা করেন সাংবাদিক গোলাম সরওয়ার। এরপর থেকে তদন্ত সংস্থা তাকে হয়রানি করছে বলে অভিযোগ করেছেন গোলাম সরওয়ার।
সংবাদ সম্মেলনে কান্নাজড়িত কণ্ঠে সরওয়ার বলেন, অপহরণের পর একটি ঘরে যেভাবে নির্যাতন করা হয়েছে তা আমার চোখে এখনও ভাসে। আমি চাই না, আমার মতো আর কোনো সাংবাদিক এ ধরনের ঘটনার সম্মুখীন হোক। শুধু চাই, সুষ্ঠু বিচার হোক। আমাকে যেনো আর হয়রানি করা না হয়।
তিনি বলেন, আমি এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত চাই। অপরাধীরা ধরা পড়ুক। তাদের বিচারের আওতায় আনা হোক।
চন্দনাইশ মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি ও যমুনা টেলিভিশনের ব্যুরো প্রধান জামশেদ রেহমানের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) যুগ্ম মহাসচিব কাজী মহসিন।