লকডাউনকালীন নির্দেশনা কঠোরভাবে মানার আহ্বান

0
39

নাগরিক উদ্যোগের জরুরি সভা

নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক প্রশাসক এবং মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, বাংলাদেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যু হার বেড়েছে।
সরকার কঠোর নির্দেশনা দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছে। এরই মধ্যে ১৪ এপ্রিল থেকে দেশব্যাপী লকডাউন ও রমজানকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন মার্কেট এবং বিপনী কেন্দ্রসমূহে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে।
বেশিরভাগ ক্রেতা বিক্রেতা স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই কেনাকাটা চালিয়ে যাচ্ছে। তাই যারা মাস্ক ছাড়া বের হচ্ছেন তাদের কাছ থেকে কমপক্ষে দুই হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে এক সপ্তাহ করোনা হাসপাতালে স্বেচ্ছাশ্রমের শাস্তি প্রদানের জন্য প্রশাসনের নিকট তিনি আহ্বান জানান।
গতকাল বিকাল ৫টায় উত্তর কাট্টলীর তাঁর নিজ বাসভবনে নাগরিক উদ্যোগের জরুরি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান।
এ সময় তিনি বলেন আসন্ন লকডাউন ও রমজানকে মাথায় রেখে দ্রব্যমূল্য সিন্ডিকেটকারীরা দৈনন্দিন জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে জনগণকে এক প্রকার জিম্মি করে ফেলেছে। তাই জনসাধারণকে চারদিনের বেশি নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী ক্রয় না করারও আহ্বান জানান তিনি।
তিনি আরো বলেন আমরা গতবছরও দেখতে পেয়েছি করোনা সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রীসমূহ বাজার থেকে উধাও হয়ে যায়। অন্যদিকে ভেজাল নিম্নমানের সুরক্ষা সামগ্রীতে বাজার সয়লাব হয়ে যায়। এ থেকে পরিত্রাণের জন্য নিয়মিত ওষুধের মার্কেটসমূহে অভিযান পরিচালনা করার আহ্বান জানান তিনি।
তিনি বলেন, সরকার মানুষের জান মালকে রক্ষার জন্য ১৪ এপ্রিল থেকে দেশব্যাপী কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে। কঠোর লকডাউন ছাড়া এ পরিস্থিতি রোধ করা কোনভাবেই সম্ভব নয়। তাই লকডাউনকৃত সময়ে সকলকে সরকার প্রদত্ত নির্দেশনা কঠোরভাবে মেনে চলারও অনুরোধ জানান তিনি। লকডাউনের সময় কর্মজীবী এবং সাধারণ মানুষের যাতে কোন ধরণের সমস্যা সৃষ্টি না হয় সেজন্য এখন থেকেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার আহ্বান জানান তিনি।
এছাড়া লকডাউনকৃত সময়ে পাড়ায় মহল্লায় অযথা আড্ডা দিয়ে জটলা সৃষ্টি না করা, জনগনকে অনলাইনে পণ্যসামগ্রী ক্রয় করার উপরও গুরুত্ব আরোপ করে সহজেই যাতে জনগণ ভোগ্য সামগ্রী ক্রয় করতে পারে সেদিকে দৃষ্টি রাখার জন্য জনপ্রতিনিধিদের অনুরোধ জানান তিনি।
তিনি বিক্রেতা ও ক্রেতাদের সচেতন করতে আগামী দুইদিন চট্টগ্রামের বিভিন্ন বাজারে গণসচেতনতামূলক প্রচারণা কর্মসূচি চালানোর ঘোষণা দেন।
নাগরিক উদ্যোগের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হাজী মো. ইলিয়াছের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব হাজী মো. হোসেন এর সঞ্চালনায় সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আব্দুর রহমান মিয়া, মোরশেদ আলম, মো. শাহজাহান, শিশির কান্তি বল, অনির্বান দাশ বাবু, সমীর মহাজন লিটন, মো. জাহাঙ্গীর, মো. আলাউদ্দিন, মো. ওয়াসিম, মাহফুজ চৌধুরী, আশ্রাফ উদ্দিন হাসনাত, মো. জোবায়ের প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি