রোনালদোর আরেকটি অর্জন

0
132

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক :
ছেলের ফুটবল ম্যাচে মহিলা রেফারি আগেও দেখা গিয়েছে। কিন্তু চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে প্রথমবার। বুধবার রাতে তুরিনে জুভেন্টাস ও দিনামো কিয়েভ ম্যাচ পরিচালনা করেন স্তেফানি ফ্রাপার। ঐতিহাসিক এই ম্যাচে কেরিয়ারে ৭৫০তম গোল করে ইতিহাস গড়লেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো।
৩৬ বছর বয়সি ম্যাচটি বেশ সফলভাবেই পরিচালনা করেন। ঐতিহাসির এই ম্যাচটি রঙিন করে রাখলেন রোনালদো। ক্যারিয়ারের ৭৫০তম গোল করে অনন্য মাইলস্টোন ছুঁয়েছেন এই পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড।
গত বছর প্রথম মহিলা রেফারি হিসেবে ছেলেদের ইউরোপিয়ান ফুটবলের ম্যাচ পরিচালনা করেছিলেন ফ্রাপার। ২০১৯ উয়েফা সুপার কাপের ফাইনালে লিভারপুল-চেলসি খেলেছিল তার পরিচালনায়। প্রথম মহিলা রেফারি হিসেবে ফরাসি লিগের ম্যাচও পরিচালনা করেছেন তিনি। গত বছরের এপ্রিলে আমিয়ঁ বনাম স্ত্রাসবুর্গ ম্যাচটি পরিচালনা করেছিলেন ফ্রাপার।
তবে এদিন চ্যাম্পিয়ন্স লিগে জুভেন্টাস-দিমানো কিয়েভ ম্যাচ দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করেন ফ্রাপার। ঘরের মাঠে ‘জি’ গ্রুপের ম্যাচে দিনামো কিয়েভকে ৩-০ হারায় জুভেন্টাস। প্রথম পর্বে ইউক্রেনের দলটিকে অ্যাওয়ে ম্যাচে ২-০ গোলে হারিয়েছিল সেরি-এ চ্যাম্পিয়নরা।
আগের ম্যাচেই শেষ ষোলো নিশ্চিত করা জুভেন্টাস এদিন এগিয়ে যেতে পারত ম্যাচের অষ্টম মিনিটে। কিন্তু ডি-বক্সের একটু উপর থেকে চিয়েসার শট এক ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে দিক পাল্টে অল্পের জন্য পোস্টের বাইরে দিয়ে যায়। দিনামোর রক্ষণে চাপ ধরে রাখা ম্যাচের ২১ মিনিচে চিয়েসার গোলে এগিয়ে যায়। লং বলে অফ-সাইডের ফাঁদ ভেঙে নিয়ন্ত্রণে নিলেও শট নিতে পারেননি ইতালিয়ান মিড-ফিল্ডার। বল বাড়ান আলেক্স সান্দ্রোকে। বাঁ-দিক থেকে এই ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডারের ক্রসে চিয়েসার হেড প্রতিপক্ষের জালে জড়িয়ে যায়।
৩১ মিনিটে রোনান্ডোর পথ আগলে দাঁড়ায় ক্রসবার। রদ্রিগো বেন্তাকুরের থ্রু-বল ধরে সান্দ্রো দুই ডিফেন্ডারকে কাটানোর পর বল বাড়ান রোনালদোকে পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডের শট ক্রসবারে লেগে ফিরে। এর পর ৫৪ মিনিটে মিনিটে তিসাইগানকভের বাঁকানো ক্রস নিয়ন্ত্রণে নিতে পারেননি দেনিস পোপোভ। কিন্তু বল বাঁক খেয়ে জালে ঢোকার আগে তা রুখে দিয়ে জুভেন্টাসকে ম্যাচে রাখেন গোলরক্ষক ভয়চেখ স্ট্যাসনি।
তিন মিনিট পর রোনালদোর শট ফিস্ট করে ফেরান দিনামো গোলরক্ষক। এর একটু পরই ব্যবধান দ্বিগুণ করেন প্রথমবারের মতো ‘গোল্ডেন ফুট অ্যাওয়ার্ড’ জেতা এই পর্তুগিজ তারকা। ডান দিক থেকে চিয়েসার ক্রস মোরাতা পায়ে ছোঁয়াতে পারেননি। তার সামনে থাকা গোলরক্ষকও ধরতে পারেননি। ফলে অনায়াসে জাল খুঁজে নেন দূরের পোস্টে ফাঁকায় থাকা রোনালদো।
৬৬ মিনিটে এক ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে বল পাওয়ার পর চিয়েসা বাড়ান মোরাতাকে। ডি-বক্সে কিছুটা জায়গা করে নিয়ে ঠা-া মাথায় স্কোরলাইন ৩-০ করেন এই স্প্যানিশ এই ফরোয়ার্ড। এর পরই জয় নিশ্চিত হয়ে যায়।
এরপর ৫৭ মিনিটে রোনালদো করেন নিজের কেরিয়ারের ৭৫০ তম গোল। এর ১০ শতাংশই এসেছে জুভেন্টাসের জার্সিতে। ইতালিয়ান ক্লাবটিতে রোনালদো এসেছেন মাত্র আড়াই বছরের মতো হল। আর চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এটা রোনালদো ১৩২ তম গোল। আলভারো মোরাতা ৬৬ মিনিটে কিয়েভের কফিনে ঠুকেছেন শেষ পেরেক।
এই জয়ে ৫ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপে দ্বিতীয় স্থানে আছে জুভেন্টাস। ৫ ম্যাচের সবকটিতে জিতে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে বার্সেলোনা। খবর : কলকাতাটোয়েন্টিফোর’র।