বিজ্ঞান : এটলাস, এলাকা, এসিড বৃষ্টি

0
237

সাধন সরকার :

 

এটলাস

এটলাস হলো মানচিত্রের বই বা মানচিত্রের সংগ্রহ। একক বা বিভিন্ন বিষয়ের ওপর তৈরি অনেকগুলো মানচিত্র সম্পর্কিত গ্রন্থ হলো এটলাস। এটলাস বা মানচিত্রের বই মূলত কোনো এলাকার, অঞ্চলের, কোনো দেশের, কোনো মহাদেশের বা পৃথিবীর হতে পারে। এমনকি কোনো মৌজা বা ইউনিয়নেরও এটলাস বা মানচিত্র হতে পারে। মানচিত্রের বই থেকে খুব সহজেই কোনো এলাকা, দেশ বা মহাদেশ সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। বন্ধুরা, বাংলাদেশ ও পৃথিবীর বিভিন্ন স্থান সম্পর্কে জানতে ও ধারণা লাভ করতে মানচিত্রের বই বা এটলাস খুব সহায়ক হতে পারে। বাংলা ও ইংরেজিতে দু’ভাষাতেই মানচিত্রের বই পাওয়া যায়। মানচিত্রের বই স্কুল-কলেজ-বিশ^বিদ্যালয়ের(ভূগোল) শিক্ষার্থীদের নিত্যসঙ্গী।

 

 

এলাকা

বন্ধুরা, এলাকা হলো পরিসর বা বিশাল কোনো আয়তনের খ-ে খ-ে ভাগ করা কোনো জায়গা। এলাকার কথা বলতে গেলে অঞ্চলের কথা চলে আসে। তবে এলাকা আর অঞ্চলের মধ্যে সুনির্দিষ্ট পার্থক্য রয়েছে। এলাকা ভাগ করার জন্য সুনির্দিষ্ট কোনো বৈশিষ্ট্য বা ভিত্তির প্রয়োজন হতেও পারে আবার নাও পারে। যেমন; গ্রাম এলাকা, মহানগর এলাকা, পৌর এলাকা ইত্যাদি। কিন্তু নির্দিষ্ট মাপকাঠি বা ভিত্তি অনুযায়ী (হতে পারে প্রাকৃতিক বা সামাজিক কোনো বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী পরিসরের শ্রেণিবিভাগ) অঞ্চল নির্ধারণ করা হয়। যেমন; শিল্পাঞ্চল, নগরাঞ্চল ইত্যাদি। তবে বন্ধুরা জেনে রাখা ভালো যে, এলাকার থেকে অঞ্চল বড় হয়। অনেকগুলো এলাকা নিয়ে একটি অঞ্চল হতে পারে।

 

 

 

এসিড বৃষ্টি

বন্ধুরা, এসিড বৃষ্টিও কিন্তু এক ধরনের দূষণ। বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও শিল্পকলকারখানা থেকে জীবাশ্ম জ¦ালানি, কয়লা ও তেল পোড়ানোর (দহন) ফলে বাতাসে কার্বন ডাই-অক্সাইড, সালফার ডাইঅক্সাইড ও নাইট্রোজেন অক্সাইড নির্গত(বের) হয়। এই সকল গ্যাস বেড়ে যাওয়ার ফলে পৃথিবীর উষ্ণতা (তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়া) বৃদ্ধি পাচ্ছে ও এসিড বৃষ্টি হচ্ছে। কলকারখানার বিষাক্ত ধোঁয়া থেকে বিভিন্ন গ্যাস (সালফিউরিক এসিড ও নাইট্রিক এসিডসহ ইত্যাদি) মেঘের সাথে মিশে যাওয়ার ফলে এসিড বৃষ্টি তৈরি হয়। মূলত এইসব গ্যাস তরল হয়ে আবহাওয়াম-লের ওপরের স্তর থেকে নিচে ভূমিতে চলে আসে। বন্ধুরা, এসিড বৃষ্টির সাথে এসিড ছাড়াও তুষার, বিভিন্ন গ্যাসীয় পদার্থ, কুয়াশা, শিশির ও অন্যান্য শুকনো বস্তুকণা মিশ্রিত থাকে। ঠিক যেসব অঞ্চলের শিল্পাঞ্চল থেকে সালফার ডাইঅক্সাইড ও নাইট্রোজেন অক্সাইডসহ অন্যান্য ক্ষতিকর গ্যাস নির্গত হয়, ঠিক সেসব অঞ্চলে বা আশপাশের অঞ্চলে এসিড বৃষ্টি সংগঠিত হয়। এসিড বৃষ্টি প্রকৃতির ভারসাম্যকে নষ্ট করে। এসিড বৃষ্টির ফলে বনাঞ্চল, গাছপালা, ফসল, নির্মাণ সামগ্রী এমনকি কাপড়চোপড়েরও ক্ষতি হয়। এসিড বৃষ্টি অতিরিক্ত হওয়ার ফলে জীবের ক্ষতি হতে পারে বা জীব মারাও যেতে পারে।