ফের ভোল পাল্টালেন নোবেল : এমন ভুল আর হবে না!

71

সুপ্রভাত ডেস্ক :

ফের ভোল পাল্টালেন বিতর্কিত সংগীতশিল্পী নোবেল। গেলো ক’দিন ধরে ফেসবুকে জ্যেষ্ঠ শিল্পী-সুরকারদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য, ফেসবুক হ্যাক হওয়ার নাটক, আত্মহত্যার ইঙ্গিত এবং মুঠোফোনে সাংবাদিকদের ‘তুলে নেওয়া’র হুমকি দিয়ে এবার তিনি নত হলেন। খবর বাংলাট্রিবিউনের

মঙ্গলবার (১৮ মে) বিকালে তিনি একটি ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমে প্রকাশ করলেন নিজের ভুল কর্মকা-ের কথা। সঙ্গে জানিয়েছেন অভিমানও। তার ভাষায়, ‘রোড অ্যাক্সিডেন্টের পর আমাকে কেউ একবার কল করে খবর নিলো না। নিজের আবেগ আসলে ধরে রাখতে পারি নাই।’ যদিও, এই সড়ক দুর্ঘটনা নিয়েও তৈরি হয়েছে বিতর্ক। প্রত্যক্ষদর্শীরা অভিযোগ করেছেন, ঘটনাটি নোবেলই ঘটিয়েছেন সড়কের উল্টোদিক থেকে সজোরে বাইক চালিয়ে।  গুরুতর আহত করেছেন এই সাইকেল আরোহীকে।

এদিকে সর্বশেষ পোস্টে নোবেল নতি স্বীকার করলেও নিজের কৃতিত্ব জাহির করলেন আবারও। বললেন, ‘আমি মাত্র ২৪ বছর বয়সী একজন তরুণ শিল্পী। আমিও তো দেশের জন্য সুনাম কুড়িয়ে এনেছি।’ ভুল স্বীকার করে বলেন, ‘আমি না হয় ভুল করবো। সেগুলি ভুল ধরে দেওয়ার দায়িত্ব তো আপনাদের। সেখানে অনেকেই আমাকে প্রতিনিয়ত হেয় করছেন। তাই আসলে রাগ সামলাতে পারিনি।’ শেষে বলেন, ‘আমি সকল সাংবাদিক ভাইদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে কথা দিচ্ছি, পরবর্তীতে এরকম ভুল আর হবে না। সবাইকে ভালোবাসা… ঈদ মোবারক।’

গেলো এক সপ্তাহে নোবেলের মূল আক্রোশ ছিল রকস্টার জেমস ও সংগীত পরিচালক আহম্মেদ হুমায়ুনের প্রতি। তাদের নামে অকথ্য ভাষায় লিখেছেন টানা। সর্বশেষ ১৬ মে পেশাগত দায়িত্ব পালনের জন্য সময় টিভি অনলাইনের সাংবাদিক আল কাছিরকে মুঠোফোনে তুলে নেওয়ার ও দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। নোবেলের এমন আগ্রাসী আচরণে পরিপ্রেক্ষিতে নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি করেছেন সময় টিভি কর্তৃপক্ষ। এর নম্বর ৭০৩।

প্রতিষ্ঠানটির জ্যেষ্ঠ নির্বাহী (প্রশাসন ও পরিচালন) সৈয়দ আসাদুজ্জামান জিডিতে উল্লেখ করেন, ‘‘১৬ মে দিবাগত রাতে নোবেল সময় টিভি অনলাইনের প্রতিবেদক আল কাছিরকে ফোন দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। তাকে দেখে নেওয়া, জেলে প্রেরণ ও অপহরণের হুমকি দেন। পাশাপাশি নিজেকে আইনশৃঙ্খলার বাহিনীর একজন উচ্চপদস্থের ‘শালা’ পরিচয় দিয়ে এগুলো করার কথা বলেন।’’

ধারণা করা হচ্ছে, এই জিডি’র সূত্র ধরেই একদিনের মাথায় নোবেল নতজানু হয়ে পোস্টটি দিলেন। যেখানে সাংবাদিকদের প্রতি শ্রদ্ধা (!) নিবেদন ও ভুল স্বীকার করলেও তার বিরুদ্ধে ওঠা শিল্পীদের প্রকাশ্য হেনস্তার বিষয়ে কোনও মন্তব্য করেননি নোবেল।

মজার তথ্য, নোবেলের এই পোস্টে একজনের মন্তব্য এমন- পৃথিবীতে ৩টি কাজ একেবারেই অসম্ভব!! ১. হাতিকে কোলে বসানো! ২. পিঁপড়ার ঠোঁটে লিপস্টিক লাগানো! ৩. নোবেলকে মানুষ বানানো! অন্য মন্তব্যগুলোও কাছাকাছি কিংবা অপ্রকাশযোগ্য ভাষায় ভরা।

এর আগে মাঈনুল আহসান নোবেল ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে কটাক্ষ করে পোস্ট দিয়েছিলেন। দেশের জাতীয় সংগীত নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য, লিজেন্ড শিল্পীদের নিয়ে নিয়মিত কুরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাসও দিয়েছেন নোবেল। তার এই হেনস্তার স্বীকার হয়েছেন নগরবাউল জেমস, তাপস, ইথুন বাবু, আহম্মেদ হুমায়ুনসহ বেশ কয়েকজন।