প্রশিক্ষণ জনশক্তি অর্জনের গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম

0
54

চিটাগাং চেম্বারে সনদ প্রদান

বাংলাদেশ সেন্টার অব এক্সিলেন্স, দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের ন্যাশনাল রেসিলিয়েন্স প্রোগ্রাম (এনআরপি) এবং ইউএনডিপি’র যৌথ উদ্যোগে ৪ দিনব্যাপী ‘সাপ্লাই চেইন রেসিলিয়েন্স’ শীর্ষক ট্রেনিং প্রোগ্রামের সমাপনী ও সনদ প্রদান অনুষ্ঠান ২১ মার্চ বিকেলে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়। চিটাগাং চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি পরিকল্পনা কমিশন’র কার্যক্রম বিভাগের প্রধান (অতিরিক্ত সচিব) খন্দকার আহসান হোসেন ও এনআরপি’র প্রকল্প পরিচালক (যুগ্ম সচিব) ড. নুরুন নাহার উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথি পরিকল্পনা কমিশন’র কার্যক্রম বিভাগের প্রধান খন্দকার আহসান হোসেন বলেন, বেসরকারি বিনিয়োগকে দুর্যোগ সহনীয় করার জন্য গবেষণা ও কারিগরি সহযোগিতা বৃদ্ধি করতে হবে। ২০২৪ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করার জন্য দরকার দক্ষ জনশক্তি। প্রশিক্ষণই হচ্ছে এই জনশক্তি অর্জনের একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম।
তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ সেন্টার অব এক্সিলেন্স’র মাধ্যমে এ জাতীয় ট্রেনিং আরো বেশি আয়োজন করা দরকার যাতে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মীদের দক্ষতা বৃদ্ধি করা সম্ভব হয়। তিনি অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় সাপ্লাই চেইনকে অন্তর্ভূক্ত করার কথা উল্লেখ করেন। চিটাগাং চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, যেকোন ধরণের প্রাকৃতিক দুর্যোগ হলে সাপ্লাই চেইন এ ব্যাঘাত আসতে পারে। ফলশ্রুতিতে উৎপাদন কার্যক্রম ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে অর্থনীতির উন্নয়ন গতিধারা মন্থর হতে পারে। গত বছর করোনা মহামারিতে সাপ্লাই রেসিলিয়েন্স সম্পর্কে সঠিক ধারণা না থাকার কারণে চট্টগ্রামের অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই এই বিষয়কে মাথায় রেখে আমরা এই ট্রেনিং প্রোগ্রামের আয়োজন করেছি; যাতে অংশগ্রহণকারীরা তথ্য ও প্রণালীগুলো শিখে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে প্রয়োগের মাধ্যমে ভবিষ্যতে যেকোন প্রাকৃতিক ও স্বাস্থ্যগত দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রস্তুত থাকতে পারে। তিনি আরো বলেন, দুর্যোগকালীন সময়ে বেসরকারি খাতে সাপ্লাই চেইনে কোনো বিপর্যয় দেখা দিলে তা প্রতিষ্ঠানকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। কিন্তু সরকারের কোনো একটি প্রতিষ্ঠান যেমন-পোর্ট, কাস্টমস’র সাপ্লাই চেইন কার্যক্রম যদি দুর্যোগকালীন সময়ে ব্যাঘাত ঘটে তাহলে তা পুরো বাংলাদেশের অর্থনীতির গতিপথকে রুদ্ধ করে দিতে পারে। এ বিষয়ের আলোকে তিনি বেসরকারি খাতের পাশাপাশি সরকারের গুরুত্বপূর্ণ সংস্থাগুলোর সাপ্লাই চেইন রেসিলিয়েন্স আরো শক্তিশালী করার উপর গুরুত্বারোপ করেন। এনআরপি’র প্রকল্প পরিচালক ড. নুরুন নাহার বলেন, ব্যবসায়িক খাতে সাপ্লাই চেইনের গুরুত্ব অপরিসীম। এই মহামারির মধ্যেও ন্যাশনাল রেসিলিয়েন্স প্রোগ্রাম’র পক্ষ থেকে আমাদের প্রয়াস ছিল ট্রেনিং প্রোগ্রাম আয়োজনের মাধ্যমে সাপ্লাই চেইন ব্যবস্থাপনাকে শক্তিশালী করা।
সমাপনী অনুষ্ঠান শেষে অংশগ্রহণকারী ২৬ বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের সনদপত্র প্রদান করা হয়। বিজ্ঞপ্তি