প্রথম দেখে শচীনকে ১০ বছরের ভাবেন শেন

0
182

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক :
প্রথম বার অস্ট্রেলিয়ার মাঠে শচীন তেন্ডুলকরকে শতরান করতে দেখে শেন ওয়ার্নের মনে হয়েছিল, ভারতীয় তারকার বয়স মাত্র ১০ বছর! সেটা ১৯৯১-’৯২ মরসুমে। মজা করে এমনটাই বললেন কিংবদন্তি অস্ট্রেলীয় লেগস্পিনার। ১৯৯১-৯২ মরসুমে ভারতের বিরুদ্ধে ওই সিরিজেই অভিষেক হয়েছিল ওয়ার্নের। সিডনিতে তৃতীয় টেস্টে প্রথম বার তিনি বল করেন শচীনকে। সেই টেস্টে অসাধারণ ১৪৮ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচ বাঁচিয়েছিলেন মাস্টার ব্লাস্টার। তার ঠিক পরেই পারথের বাউন্সি উইকেটে আবার শতরান পান শচীন। তখন তার বয়স ২১ বছর।
ইংল্যান্ড বনাম পাকিস্তান টেস্ট সিরিজে ধারাভাষ্য দেওয়ার ফাঁকে ওয়ার্ন বলেছেন, ‘যখন প্রথম শচীনকে দেখি, তখন ওর বয়স ২১। কিন্তু দেখতে ১০ বছরের ছেলের মতো লাগছিল। আমাদের সব বোলারকেই যথেচ্ছ পিটিয়েছিল। এটাই হচ্ছে শচীনের বিশেষত্ব। যেখানে দেখতে লাগে অতি সাধারণ। কিন্তু খেলে অবিশ্বাস্য ভঙ্গিতে!’ ব্যাটসম্যান হিসেবে শচীন কেন অসাধারণ, বোঝাতে গিয়ে ওয়ার্ন আরও বলেছেন, ‘এই ধরনের ক্রিকেটাররা একটা ভাল বল পেলে তা ফিল্ডারের হাতে মেরে নষ্ট করে না। বরং দুই ফিল্ডারের ফাঁক দিয়ে তা সীমানার বাইরে পাঠানোর চেষ্টা করে। তাতে বোলাররা চাপে পড়ে যায়। শচীন সেটাই করত।’ যোগ করেছেন, ‘এ ভাবে খেললে ব্যাটসম্যানেরা অনেক নির্বিষ বল পেয়ে থাকে। কিন্তু ব্যাটসম্যান যদি আক্রমণাত্মক না হয়ে উইকেট বাঁচায়, তা হলে বোলার মানসিক ভাবে শক্তিশালী হয়ে যায়। তখন উইকেটের যেখানে খুশি বল ফেলা যায়। বোলার ভাবে, এই ব্যাটসম্যান আর যাই করুক, তাকে মারবে না।’
মানবিক শচীন : একটা সময় শচীনের ক্ষতিগ্রস্ত ব্যাট সারিয়ে দিতেন আশরাফ চৌধুরি। এ বার সেই অসুস্থ মানুষটির পাশে এসে দাড়ালেন কিংবদন্তি ক্রিকেটার। ক্রিকেট মহলে পরিচিত আশরাফ চাচা নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে গত ১২ দিন হাসপাতালে ভর্তি আছেন। সঙ্গে তার ডায়াবেটিসের সমস্যাও আছে। এই ব্যাট-নিমার্তার এক বন্ধু প্রশান্ত জেঠমালানি সংবাদ সংস্থাকে বলেছেন, ‘শচীনই দুঃসময়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। চিকিৎসার খরচের একটা বড় অংশই উনি দিয়েছেন।’ খবর : আনন্দবাজার’র।