নগরবাসীকে পৌরকর প্রদানে স্বেচ্ছায় এগিয়ে আসতে হবে

0
181

রাজস্ব সার্কেল-৬ এর স্পট হোল্ডিং ট্যাক্স প্রদান অনুষ্ঠান

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক (যুগ্ম সচিব) বলেছেন, কর প্রদানের মাধ্যমে একজন নাগরিকের রাষ্ট্রীয় কাজে অংশীদারিত্ব নিশ্চিত হয়। যে সমস্ত নাগরিক সরাসরি কর প্রদান করেন তারা রাষ্ট্রের সুনাগরিক বলে গণ্য। সিটি করপোরেশন হল স্থানীয় সরকারের সহযোগী প্রতিষ্ঠান। সিটি করপোরেশনের কাজের আবার শ্রেণিবিভাগ রয়েছে। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন দেশের অন্য করপোরেশনের চেয়ে আরো কিছু অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন ও নাগরিকসেবা প্রদান করে থাকে। কিন্তু চসিকের রাজস্ব আয়ের চেয়ে উন্নয়ন ব্যয় বেশি। করপোরেশনের মূল আয় আসে পৌরকর ও ট্রেড লাইসেন্স খাত থেকে। উন্নয়ন ব্যয় অনেক সময় বেশি হলে করপোরেশনকে অর্থ সংস্থানের জন্য সরকারের দ্বারস্থ হতে হয়। কিন্তু কেন্দ্রিয় সরকারের পক্ষে সবসময় করপোরেশনকে বরাদ্দ দেয়া সম্ভব হয়না। সরকার স্থানীয় সরকারের সহযোগী প্রতিষ্ঠান করপোরেশনগুলোকে তাই আত্মনির্ভরশীল করার উদ্যোগ নিয়েছে। নাগরিকসেবা প্রাপ্তি নিশ্চিত করা স্বার্থে নগরবাসীকে পৌরকর প্রদানে স্বেচ্ছায় এগিয়ে আসতে হবে।
তিনি গতকাল সোমবার সকালে পাহাড়তলী থানাধীন সিডিএ মার্কেটের সম্মুখে রাজস্ব সার্কেল-৬ এর স্পট হোল্ডিং ট্যাক্স ও ট্রেড লাইসেন্স প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
রাজস্ব কর্মকর্তা শাহেদা ফাতেমা চৌধুরীর (সিনিয়র সহকারী সচিব) সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কর কর্মকর্তা (কর) শাহ আলম, কর কর্মকর্তা (লাইসেন্স) প্রবীর কুমার চৌধুরী, উপ-কর কর্মকর্তা এম মনজুর উদ্দিন চৌধুরী, মো. কামরুল হাসান, উপ-কর কর্মকর্তা (লাইসেন্স) মো.আইয়ুব আলী, হাসান ওসমান গণি, মোবারক উল্লাহ, কর আদায়কারী আবুল মাসুদ ও মোহাম্মদ সোলায়মান, রমিজুল হাসান, শহিদুল ইসলাম প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক আরো বলেন, সাধারণভাবে মানুষের মাঝে কোন ধরনের কর প্রদান না করার একটা সংস্কৃতি চালু আছে। কিন্তু বিদেশে রাষ্ট্রের আয়ের ৭০ শতাংশ আসে নানা ধরনের কর থেকে।
তিনি বলেন, পৌরকর পরিশোধ চট্টগ্রাম নগরীর ৬০ লক্ষ অধিবাসীর হক। কাজেই নগরীর উন্নয়নের স্বার্থে নগরবাসী ডিসেম্বর মাসজুড়ে সারচার্জ ছাড়া পৌরকর প্রদান ও ট্রেড লাইসেন্স ইস্যু ও নবায়নের সুযোগ গ্রহণ করবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। পরে প্রধান অতিথি কর প্রদানকারীদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। স্পটে কর প্রদানকারীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো এম এম ইস্পহানী, সফি মোটরস, মেসার্স বাগদাদ কার্পেট ফ্যাক্টরি। বিজ্ঞপ্তি