দুর্ঘটনা নিয়ে নোবেলের মিথ্যাচার!

0
128

সুপ্রভাত ডেস্ক :
প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন দুর্ঘটনা নিয়ে মিথ্যাচার করছেন নোবেল!প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন দুর্ঘটনা নিয়ে মিথ্যাচার করছেন নোবেল! সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন ভারতের ‘সারেগামাপা’ থেকে উঠে আসা বাংলাদেশের আলোচিত কণ্ঠশিল্পী নোবেল। অল্পের জন্য বেঁচেছে চোখ, ফেটেছে মাথা। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এক ‘বৃদ্ধ পথচারী’কে বাঁচাতে গিয়েই তার এই পরিণতি- জানালেন নোবেল।
ভাষ্যটি হুবহু এমন, ‘এক বয়স্ক লোক অসতর্কভাবে রাস্তা পার হচ্ছিলো। তাকে বাঁচাতে গিয়ে আমার এই অবস্থা। তবুও মনে তৃপ্তি অনুভব করছি, কারণ লোকটা নিরাপদ আছে।’ গুরুতর আহত হয়ে রক্তাক্ত মুখের ছবি দিয়ে নোবেলের এমন বয়ানে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী।
দুর্ঘটনা নিয়ে নোবেলের এমন বয়ানের বিপরীতে প্রত্যক্ষদর্শী শোয়াইব বিন আহসান ও আমিনুল ইসলাম আমিন নামের দুই সাধারণ মানুষ নিজেদের চোখে দেখা ঘটনাটি তুলে ধরেন। এরমধ্যে প্রথমজন বিস্ময় প্রকাশ করে ফেসবুকে লেখেন, ‘কি সুন্দর মিথ্যাচার করে আবার আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করছে নোবেল!’ এদিকে দ্বিতীয়জন সরাসরি ঘটনার ভিডিও প্রকাশ করেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। যেখানে দেখা যায় নোবেল গুরুতর আহত করেছেন কোনও বৃদ্ধকে নয়, এক তরুণ সাইকেল চালককে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাস্তার উল্টাপাশ থেকে হঠাৎ তুমুল গতিতে আসা নোবেলের লাল বাইকের চাপায় রক্তাক্ত হয়েছে ঐ তরুণ। ভেঙেছে সাইকেল, নষ্ট হয়েছে সঙ্গে থাকা ইফতারের জন্য কলা-মুড়ি-খেজুর-ছোলা। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) গুলশান আজাদ মসজিদের পাশের গলিতে, ইফতারের কয়েক মিনিট আগে।
প্রত্যক্ষদর্শী টঙ্গির তামিরুল মিল্লাত কামিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থী শোয়াইব বলেন, ‘রং সাইডে বাইক চালিয়ে এসে সাইকেল আরোহীর ওপর দিয়ে সোজা চালিয়ে দিলো নোবেল! যেখানে লোকটা সারাদিন পানাহারের পর ইফতার করে তার ক্ষুধা নিবারণের কথা, সেখানে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়লো সেদিন সন্ধ্যায়। আর নোবেল সবাইকে জানালো বৃদ্ধকে জীবনদানের গল্প!’
ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘বৃহস্পতিবার ইফতারের আগমুহূর্তে একটা লোক সাইকেলে করে কলা, খেজুর, ছোলা মানে ইফতারসামগ্রী নিয়ে বাসায় যাচ্ছিলো। নোবেল ম্যান নামের ঐ শিল্পী রং সাইড থেকে বাইক দিয়ে মেরে দিয়েছে। ঘটনাটি একেবারে আমার সামনে ঘটেছে। দু’জনই ইনজুরড হয়েছে কিন্তু সাইকেলের লোকটার অবস্থা খুব সিরিয়াস ছিলো। আর সাইকেলের যা অবস্থা হয়েছে, সেটা কোনও ভাঙারি দোকানেও বিক্রি করা যাবে না। পরে ২/৩ জন লোক দিয়ে আহত লোকটাকে ল্যাবএইড পাঠালাম রিক্সায় করে। নোবেল ম্যানকেও বললাম, আপনিও বাইকটা আমাদের এখানে রেখে ল্যাবএইড যান। উনি আমাদের কথা না শুনে বাইক নিয়ে চলে গেলেন। যাওয়ার সময় উনার সঙ্গে আমাদের এখান থেকে একজনকে সঙ্গে দিলাম। কারণ উনার মাথা থেকেও রক্ত ঝরছিলো। পরে শুনি বনানী গিয়ে আমাদের ঐ লোকটাকে আটকিয়ে রেখেছে! এই হলো কাহিনি!’
এদিকে এই বর্ণনার সত্যতা স্বীকার করে আরেক প্রত্যক্ষদর্শী ঘটনার একটি ভিডিও প্রকাশ করেন। যেখানে দেখা গেছে পিঠে গিটার ঝোলানো রক্তাক্ত নোবেল ও সাইকেলওয়ালাকে।
এদিকে এমন মিথ্যাচারের অভিযোগের বিপরীতে নোবেলের কোনও প্রতিক্রিয়া ফোনে বা সোশ্যাল মিডিয়ায় পাওয়া যায়নি। ফেসবুক পেইজে এখনও ঝুলছে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতের সেই মানবিক গল্প- ‘এক বয়স্ক লোক অসতর্কভাবে রাস্তা পার হচ্ছিলো… তাকে বাঁচাতে গিয়ে…।’
এটা সত্যি, সেদিন রাতে নোবেলের চোখে ও মাথায় মোট ৩০টি সেলাই পড়েছে। যদিও ঐ সাইকেলওয়ালার আপডেট পাওয়া যায়নি।
দুর্ঘটনার প্রথম ছবিটি নোবেল প্রকাশ করেন নিজেই, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টায় (২৩ এপ্রিল)। চোখে ব্যান্ডেজ করা ছবিটির ক্যাপশনে লেখেন, ‘আসসালামু আলাইকুম। শুভ রাত্রি। সড়ক দুর্ঘটনায় রাস্তাটি গুরুতরভাবে আহত হয়েছে। রাস্তাটির জন্য দোয়া করবেন।’ খবর : বাংলাট্রিবিউন’র।