তারকাদের নাম প্রত্যাহারেও শিরোপা জয় সহজ হবে না : সেরেনা

260

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক :
ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন বিয়াঙ্কা আন্দ্রেস্কু, পয়লা নম্বর অ্যাশলে বার্টি সহ প্রথম দশের ছয় তারকা কোভিড আবহে নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। তবে নানা বাধা-বিঘ্ন সত্ত্বেও ঘরের মাঠে গ্র্যান্ড স্ল্যাম খেলার সুযোগ হাতছাড়া করছেন না মার্কিন টেনিস তারকা সেরেন উইলিয়ামস। একধাপ দূরে দাঁড়িয়ে কিংবদন্তি মার্গারেট কোর্টের ২৪টি গ্র্যান্ড স্ল্যামের রেকর্ড ছোঁয়ার এর চেয়ে ভালো সুযোগ বোধহয় আর পাবেন না ২৩টি মেজর জয়ী সেরেনা।
২০১৭ অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের পর গ্র্যান্ড স্ল্যাম না জিততে পারা সেরেনাকে নিয়ে বিশেষজ্ঞদের এমন ধারণাকে কোর্টের বাইরে পাঠালেন মার্কিনী। ২০১৪ পর সপ্তমবারের জন্য ঘরের মাঠে গ্র্যান্ড স্ল্যামের লক্ষ্যে নামতে চলা সেরেনা বলছেন, গ্যালারিতে দর্শক থাকবে না। এমন অভূতপূর্ব একটা পরিস্থিতিতে খেতাব জিতলে বরং সেটা আমার কাছে আশ্চর্যের হবে। একইসঙ্গে ২০২০ ইউএস ওপেন অ্যাথলিটদের বাড়তি মানসিক পরীক্ষা নেবে বলেও জানিয়েছেন সেরেনা।
মার্কিন টেনিস কিংবদন্তি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ‘যদি আমি এখানে জিতি তাহলে আমি এই ভেবে আশ্চর্য হব যে, এমন অস্বাভাবিক একটা পরিস্থিতি যেখানে কোনও সমর্থক নেই সেখানেও আমি জিততে পারি। তবে আমি এজন্য মানসিক প্রস্তুতি নিয়েই এসেছি। আমার মনে হয় এই টুর্নামেন্ট আগের চেয়ে অনেক বেশি মানসিক পরীক্ষা নেবে অ্যাথলিটদের।’
ফুসফুসের সংক্রমণ সহ অতীতে সেরেনার শরীরে রক্তের নানা সমস্যার ইতিহাস আছে। তাই এই অতিমারী পরিস্থিতিতে নিউইয়র্কে টুর্নামেন্ট খেলতে এসে ব্যতিক্রমী ব্যবস্থার বন্দোবস্ত করেছেন মার্কিন টেনিস তারকা। সেরেনার কথায়, ‘আমি হোটেলে থাকতে চাইনি কারণে আমার ফুসফুসের কিছু সমস্যা আছে। আমার মনে হয়েছিল এই সময় হোটেলে থাকা আমার কাছে ঝুঁকির হতে পারে। তাই আমি এখানে একটি বাড়ি ভাড়া করে রয়েছি। যাতে অন্যদিকে মনোসংযোগ না করে আমি শুধু পারফরম্যান্সে নজর দিতে পারি।’
উল্লেখ্য, মহিলাদের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন বিয়াঙ্কা আন্দ্রেস্কুর পাশাপাশি পুরুষদের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন রাফায়েল নাদালও অংশগ্রহণ করছেন না টুর্নামেন্টে। অর্থাৎ দুই ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নকে ছাড়াই আগামী ৩১ অগস্ট শুরু হচ্ছে ইউএস ওপেন। কঠিন পরিস্থিতিতে টুর্নামেন্ট নিরাপদে আয়োজনের জন্য ব্যবস্থাপনায় কোনওরকম ফাঁক রাখতে চাইছেন না উদ্যোক্তারা। তবুও দিনকয়েক আগে ইউএস ওপেনের টেনিস বলয়ের মধ্যেই এক ব্যক্তির করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর উদ্বেগ ছড়িয়েছিল। খবর : কলকাতাটোয়েন্টিফোর’র।