চেন্নাই-কলকাতা ম্যাচে ২৬ ছক্কা

0
55

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক :
চতুর্দশ আইপিএলে দ্বিতীয় হাইস্কোরিং ম্যাচের সাক্ষী ছিল ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে। চেন্নাই সুপার কিংস ও কলকাতা নাইট রাইডার্সের ম্যাচে ওয়াংখেড়ের বাইশ গজে ৪০ ওভারে উঠছে ৪২২ রান। চলতি আইপিএলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। ১২ এপ্রিল ওয়াংখেড়েয় পঞ্জাব কিংস ও রাজস্থান রয়্যালস ম্যাচে উঠেছিল ৪৩৮ রান। তবে পঞ্জাব-রাজস্থান ম্যাচকে টেক্কা দিয়ে ছক্কার রেকর্ড গড়লো চেন্নাই-কলকাতার লড়াই।
গত বুধবার ওয়াংখেড়ের বাইশ গজে লড়াইয়ে নেমেছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স ও চেন্নাই সুপার কিংস। হাইস্কোরিং ম্যাচে নাইটদের ১৮ রানে হারিয়ে চলতি আইপিএলে জয়ের হ্যাটট্রিক করে চেন্নাই। অন্যদিকে এই ম্যাচ হেরে ২০২১ আইপিএলে হারের হ্যাটট্রিক করেছে কলকাতা। প্রথমে ব্যাটিং করে নাইটদের পিটিয়ে স্কোর বোর্ডে ২২০ রান তুলেছিলেন সিএসকে ব্যাটসম্যানরা। দুই সিএসকে ওপেনার রুতুরাজ গায়কোয়াড ও ফ্যাফ ডু’প্লেসিস। ওপেনিং জুটিতে ১১৫ রান যোগ করেন। গায়কোয়াড় ৬৪ এবং ডু’প্লেসিস ৯৫ রানে অপরাজিত থাকেন। এছাড়াও মোয়েন আলি ১২ বলে ২৫ এবং ক্যাপ্টেন মহেন্দ্র সিং ধোনি ৮ বলে ১৭ রান করেন। আর এক বল খেলে ছয় রান করেন রীবন্দ্র জাদেজা।
সিএসকে বোলারদের বিরুদ্ধে ২২০ রান করে করতে নেমে ৩১ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স। সে সময় মনে হয়েছিল দেড়শোর বেশি রানে হারবে কেকেআর। কিন্তু রাসেল,কার্তিক ও কামিন্সের দুরন্ত লড়াইয়ে ঘুরে দাঁড়ায় নাইটরা। ষষ্ঠ উইকেটে কার্তিক ও রাসেল জুটি ৩৯ বলে ৮১ রান যোগ করে নাইটদের ম্যাচ ফেরায়। সাত নম্বরে ব্যাট করতে নেমে ২২ বলে ৫৪ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন রাসেল। কার্তিক করেন ২৪ বলে ৪৪ রান করেন। তবে আট নম্বরে ব্যাট করতে নেমে কামিন্সের অপরাজিত ৩৪ বলে ৬৬ নাইটদের জয়ের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছিল। কিন্তু পাঁচ বল বাকি থাকতেই ২০২ রানে অল-আউট হয়ে যায় নাইটরা।
হাইস্কোরিং এই ম্যাচে চলতি আইপিএলে সর্বাধিক ছক্কা হয়। প্রথমে ব্যাটিং করে ১২টি ছয় মেরেছিল চেন্নাই সুপার কিংস ব্যাটসম্যানরা। এর মধ্যে সিএসকে-র দুই ওপেনার ডু’প্লেসিস ও গায়কোয়াড চারটি করে, আলি দু’টি এবং ধোনির ও জাদেজা একটি করে ছাক্কা হাঁকান। রান তাড়া করতে গিয়ে ১৪টি ছক্কা হাঁকান নাইট ব্যাটসম্যানরা। প্লাওয়ার প্লে-তে ৩১ রানে পাঁচ উইকেট হারানোর পরও রাসেলের ছক্কায় ম্যাচে ফিরেছিল কলকাতা। ২২ বলের ঝোড়ো ইনিংসে ছ’টি ছয় মারেন রাসেল। ৬টি ছক্কা হাঁকান কামিন্সও। তিনি ক্রিজে এসেই ছক্কার হ্যাটট্রিক করেন। এছাড়া নাইটদের প্রাক্তন অধিনায়ক কার্তিক দু’টি ছক্কা মারেন।