ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য নতুন প্রণোদনা প্যাকেজ

207

করোনাকালীন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ দিতে নতুন প্রণোদনা প্যাকেজের কর্মপরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। একটি জাতীয় দৈনিকের প্রতিবেদনে জানা গেছে, এই প্যাকেজের আকার হবে ১০ হাজার কোটি টাকার। কুটির, অতি ক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প খাতের (সি. এম. এস. এমই) উদ্যোক্তাদের ৪ শতাংশ সুদে চলতি মূলধন দিতে নেয়া হয়েছে এই প্রণোদনা প্যাকেজ। বিদেশ থেকে দেশে ফেরা এবং শহর থেকে গ্রামে চলে যাওয়া নতুন উদ্যোক্তাদেরও দেয়া হবে এই ঋণ। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে ঋণ দিতে ব্যাংকগুলির নানা ধরণের জটিলতা, জামানত ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গ্রাহকের প্রদানে সীমাবদ্ধতা এসব কারণে ব্যাংক নির্ভরতা থেকে সরে এসে ক্ষুদ্র ঋণদাতা প্রতিষ্ঠান (এস. এম. আই) বা বেসরকারি সং¯’াগুলির (এনজিও) মাধ্যমে ছোট ব্যবসায়ীদের ঋণ দেওয়ার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে বলে পত্রিকাটির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদের নির্দেশনা এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের এ সংক্রান্ত নীতিমালার পরিপ্রেক্ষিতে নতুন এই প্যাকেজের অনুমোদন দিয়েছে প্রধান মন্ত্রীর কার্যালয়। এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করবে বাংলাদেশ ব্যাংক। জানা গেছে, নতুন প্যাকেজের আওতায় ঋণের সুদহার হবে ৯ দশমিক ৫ শতাংশ, তবে এনজিওগুলো গ্রাহকদের ঋণ দেবে বার্ষিক ৪ শতাংশ সুদে, বাকি ৫ দশমিক ৫ শতাংশ সরকার ভর্তুকি দেবে। ঋণগ্রহীতা ৬ মাসের প্রেস পিরিয়ডসহ ১৮ টি কিস্তিতে অর্থ পরিশোধের সুযোগ পাবেন। প্রত্যয়ন পত্র ছাড়াও দুজনের নিশ্চয়তাপত্রের (গ্যারান্টি) প্রয়োজন হবে।

ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য এ ধরণের বিশেষ প্রণোদনা প্যাকেজ তাদের করোনাকালীন বিরূপ পরি¯ি’তিতে সহায়তা দেবে। ক্ষুদ্র, কুটির ও মাঝারি শিল্প একটি দেশের স্বনির্ভর অর্থনীতি গড়ে তুলতে সাহায্য করছে, কর্মসং¯’ান সৃষ্টিতে  আমাদের এসএমই খাত বিশ্বে ৫ম এবং শিল্পসংখ্যার বিচারে বিশ্বের ৭ম। তদুপরি কুটির, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে এখন নারী উদ্যোক্তাও কম নয়, বিশেষ করে গ্রামীণ ও উপজেলা অর্থনীতিতে এই খাতটির বিশেষ ভূমিকাও রয়েছে যেখানে কর্মসং¯’ানে নারীদের ব্যাপক সুযোগ সৃষ্টি করা হয়েছে। আমরা মনে করি, এই খাতটি সমৃদ্ধ করতে বিসিক শিল্পনগরীগুলির সংস্কার ও অবকাঠামো উন্নয়ন জরুরি।

বড় শিল্পোদ্যোক্তারা তাদের প্রণোদনা প্যাকেজের অর্থ অধিকাংশ পেয়েছেন। অপরদিকে ক্ষুদ্র মাঝারি শিল্পের ২০ হাজার কোটি টাকার মধ্যে অর্ধেক মাত্র ছাড় করা হয়েছে। কৃষকদের ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনার পুরো বরাদ্দ বিতরণ করতে পারেনি ব্যাংকগুলি, অথচ ঋণ পরিশোধে কৃষকরাই এগিয়ে।

প্রথম পর্যায়ে করোনার ক্ষতি মোকাবেলায় ১ লাখ ২১ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে সরকার, এটি জিডিপির ৩ দশমিক ৭ শতাংশ, করোনার সময় অর্থনীতি সচল ও মানুষের জীবিকার সং¯’ানে এই প্রণোদনা বিরাট ভূমিকা রেখেছে।

জিডিপিতে এসএমই খাতের অবদান প্রায় ২৫ শতাংশ; অর্থনীতিবিদরা আশংকা করেছেন, এই শিল্পকে সুরক্ষা দেওয়া না হলে ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ উদ্যোক্তা ঝরে পড়বেন। এই পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের এই প্রণোদনা প্যাকেজ একেবারে ক্ষুদ্র, প্রান্তিক ও মাঝারি পর্যায়ের উদ্যোক্তাদের উঠে দাঁড়াতে সাহায্য করবে। দেশীয় বাজারের চাহিদা ও যোগান নির্ভর করে ক্ষুদ্র, কুটির ও মাঝারি শিল্পের ওপর। দেশের ‘অভ্যন্তরীণ সাপ্লাই চেইন’ এর মূল চালিকা শক্তি এই খাত। এসডিজির লক্ষ্য অর্জন ও ২০৪১ সালের রূপকল্প অর্জনে এই খাতের ভূমিকা অপরিসীম।