করোনা চিকিৎসায় চট্টগ্রামে ২টি ফিল্ড হাসপাতাল চালুর আহ্বান

0
47

নাগরিক ফোরামের ভার্চুয়াল সভা

চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের চেয়ারম্যান ব্যরিস্টার মনোয়ার হোসেন বলেছেন, দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ আশংকাজনকভাবে বাড়ছে। একিই সাথে বাড়ছে চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে হাসপাতালে রোগীর ভিড়।
অনেক স্থানে হাসপাতালে বেড না পাওয়ায় হাহাকার চলছে। এ পরিস্থিতি থেকে বাঁচতে জাতীয় অর্থিনীতির প্রাণকেন্দ্র চট্টগ্রামের জন্য আর কাল বিলম্ব না করে সরকারি উদ্যোগে আইসিইউসহ ৫ শত বেডের অন্তত দুইটি করোনা চিকিৎসার পরিপূর্ণ ফিল্ড হাসপাতাল চালুর জন্য আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।
তিনি আরো বলেন, ঢাকায় এর মধ্যে সরকারের এবং বেসরকারি উদ্যোগে বেশ কয়েকটি করোনা ভাইরাসের চিকিৎসার জন্য সেন্টার চালু হয়েছে। তিনি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাওয়ার আগেই জরুরি ভিত্তিতে এ ব্যাপারে সরকারকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।
চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের উদ্যোগে চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসের বর্তমান সংক্রামণ এর উদ্বেগজনক পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে করণীয় এবং পরবর্তী কর্মসূচি নির্ধারণ কল্পে আয়োজিত এক ভার্চুয়াল সভায় সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের চেয়ারম্যান ব্যরিস্টার মনোয়ার হোসেন উপরোক্ত আহ্বান জানান।
ব্যরিস্টার মনোয়ার হোসেন বলেন, আধুনিক চিকিৎসাক্ষেত্রে চট্টগ্রাম বেশ পিছিয়ে আছে। যার ফলশ্রুতিতে এখন করোনাভাইরাসের চিকিৎসার ক্ষেত্রে ভুক্তভোগীদের চরম সংকটের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এটি জাতীয় অর্থনীতির প্রাণ কেন্দ্র কিংবা দ্বিতীয় রাজধানী বলে খ্যাত চট্টগ্রামের মানুষের জন্য খুবই লজ্জাজনক।
চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের মহাসচিব মোহাম্মদ কামাল উদ্দিনের সঞ্চালনায় এই ভার্চুয়াল সভায় আলোচনায় অংশ নেন যথাক্রমে কাজী গোলাপ রহমান, ডাক্তার নাহিদা খানম, ডাক্তার সাঈদ আহমেদ, ডাক্তার শেখ জাহেদ, একরাম হোসেন, ডাক্তার শোয়েব, এজিএম জাহাঙ্গীর আলম, কামরুল ইসলাম, অধাপক ড. শ্যামল কান্তি দত্ত, কানিজ ফাতিমা লিমা, তসলিম খাঁ, ইমতিয়াজ আহমেদ, কাওসার হোসেন বাপ্পি, সোহেল মাহমুদ প্রমূখ।
সভায় সর্বসম্মতিক্রমে চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের উদ্যোগে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের সাহায্যার্থে ‘টেলিফোন হেল্প মেডিক্যাল টিম’ গঠন করা হয় এবং এতে যুক্ত হওয়ার জন্য চট্টগ্রামের উৎসাহী চিকিৎসকদের আহ্বান জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তি