কক্সবাজারে এবার একসঙ্গে ১১৪১ কনস্টেবলকে বদলি

260

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার :
কক্সবাজার জেলা পুলিশের পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সহকারী পুলিশ সুপার, পুলিশ পরিদর্শক, উপ পরিদর্শক ও সহকারী উপপরিদর্শক পর্যায়ে গণবদলির পর এবার জেলার আট থানার ১০৪১ কনস্টেবলকে একযোগে বদলি করা হয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার ওসিসহ ৩৪ ইন্সপেক্টর ও এসআই, এএসআইসহ ২৬৪ জন পুলিশ কর্মকর্তাকে একযোগে বদলি করা হয়। পুলিশ সদর দপ্তর থেকে স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে তাদের নতুন কর্মস্থলে বদলি করা হয়েছে। বদলিকৃতদের আগামী ২৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পুরোনো কর্মস্থল ছেড়ে দিতে হবে এবং ৩০ সেপ্টেম্বর তাদের একটি ব্রিফিংয়ে উপস্থিত হতে বলা হয়েছে। সেদিন রাজারবাগের পুলিশ অডিটোরিয়ামে তাদের পোশাক পরে উপস্থিত হতে বলা হয়েছে। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত জনস্বার্থে উল্লেখিত স্থানে বদলি করা হয়েছে। এর আগে উখিয়া থানার ওসি মর্জিনা আক্তর, রামু থানার ওসি আবুল খায়ের, চকরিয়া থানার ওসি হাবিবুর রহমান, পেকুয়া থানার ওসি কামরুল আজম, মহেশখালী থানার ওসি দিদারুল ফেরদৌস, কুতুবদিয়া থানার ওসি শফিকুল আলম, টেকনাফ থানার ওসি এবিএমএস দোহা ও কক্সবাজার সদর থানার ওসি মাসুম খানসহ ৮ থানার ওসিকে বদলি করা হয়েছে। একই সঙ্গে কক্সবাজারের ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত ওসি মানস বড়ুয়াসহ জেলার ৮ থানার ইন্সপেক্টর পদমর্যাদায় যে ৩৪ জন কর্মরত আছেন সবাইকে একযোগে বদলি করা হয়।
এছাড়া কক্সবাজারের ৮ থানায় কর্মরত সকল উপ পরিদর্শক ও সহকারী উপ-পরিদর্শকসহ ২৬৪ জন পুলিশ কর্মকর্তার সবাইকে একযোগে বদলি করা হয়।
এর আগে গত ১৭ সেপ্টেম্বর কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেনকে রাজশাহী জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে বদলি করা হয়। এর ৫ দিন পর জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও সহকারী পুলিশ সুপারসহ ৭ শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তা বদলি করা হয়। গত ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফের মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর তল্লাশিচৌকিতে পুলিশের গুলিতে নিহত হন অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা সিনহা মো. রাশেদ খান। এ ঘটনার পর পুলিশের কর্মকা- নিয়ে দেশব্যাপী বিরূপ প্রতিক্রিয়া শুরু হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে জেলা পুলিশকে ঢেলে সাজাতে একযোগে সব সদস্যকে বদলির সিদ্ধান্ত নেয় পুলিশের সদরদপ্তর।