আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

0
92

তদন্তে দুটি কমিটি গঠন

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার <
উখিয়ার বালুখালিতে আগুনে পুড়ে যাওয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। গতকাল বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে তিনি আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত ক্যাম্প পরিদর্শন করেন।
এ সময় তিনি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে র‌্যাবের তত্ত্বাবধানে ক্ষতিগ্রস্ত রোহিঙ্গাদের মাঝে বস্ত্র বিতরণও করেন।
রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন ও বস্ত্র বিতরণ শেষে তিনি আগুনে পুড়ে যাওয়া এপিবিএন পুলিশ ফাঁড়ি পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি বেশ কয়েকজন নারী পুলিশ সদস্যের সাথে ঘটনার ব্যাপারে কথা বলেন।
এ সময় তিনি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ইতোমধ্যে ঘটনার তদন্তে দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে বলা যাবে ঘটনাটি কিভাবে ঘটেছে।
তিনি আরো বলেন, বর্তমানে বিভিন্ন দাতা সংস্থা কর্তৃক ক্ষতিগ্রস্ত রোহিঙ্গাদের মাঝে সেবা প্রদান করা হচ্ছে।
এর আগে দুপুর একটার দিকে এপিবিএন পুলিশ ফাঁড়িতে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (অতিরিক্ত সচিব) শাহ্ রেজওয়ান হায়াত সাংবাদিকদের বলেন, ২৪ ঘণ্টায় রোহিঙ্গাদের জন্য তাঁবুর ব্যবস্থা করা হয়েছে। ইতোমধ্যে রোহিঙ্গারা নিজ নিজ বসতিতে ফিরে যেতে শুরু করেছে। বৃহস্পতিবার বিকালের মধ্যে বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা সমস্ত রোহিঙ্গাদের ক্যাম্পে ফেরত আনা হবে।
তিনি আরো বলেন, ঘটনার তদন্ত কমিটি ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে। এখনো পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা ১১ জন বলবৎ রয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত স্থানীয়দের ক্ষতিপূরণের বিষয়টিও সরকার বিবেচনা করছে বলে জানান তিনি।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজার-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, জেলা পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান, এপিবিএন পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম, উখিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, উখিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিজাম উদ্দিন আহমেদ ও উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহাম্মদ সনজুর মোরশেদ।
প্রসঙ্গত, সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে বালুখালি রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে প্রায় ৭ ঘণ্টার আগুনে ১১ জনের মৃত্যুসহ ৯ হাজার ৩শ’ ঘরবাড়ি, ১৩৬টি লার্নিং সেন্টার, দুটি বড় হাসপাতাল ও মূল্যবান জিনিসপত্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এছাড়াও মসজিদ, দোকানপাট ও বিভিন্ন এনজিওর সংস্থার ভবন পুড়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটে।