আইপিএলে ক্যাচের সেঞ্চুরি মহেন্দ্র সিং ধোনির

190

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক :
মহেন্দ্র সিং ধোনির মুকুটে নয়া পালক। ভারতের ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগ আইপিএলের দ্বিতীয় উইকেটরক্ষক হিসেবে শততম ক্যাচ ধরলেন চেন্নাই সুপার কিংস অধিনায়ক। রোববাসরীয় দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের বিরুদ্ধে এই অনন্য কীর্তি গড়লেন ‘চিন্না থালা’ মহেন্দ্র সিং ধোনি।
শততম ক্যাচের মাইলস্টোন ছোঁয়ার পথে কিংস ইলেভেন পঞ্জাব অধিনায়ক কেএল রাহুলকে এদিন উইকেটের পিছনে তালুবন্দি করেন ধোনি। পঞ্জাব ইনিংসের ১৮তম ওভারে শার্দুল ঠাকুরের অফস্ট্যাম্পের বাইরের একটি বল রাহুলের ব্যাট ছুঁয়ে থার্ডম্যান দিয়ে বাউন্ডারি অতিক্রম করার আগেই ছোঁ মেরে তালুবন্দি করেন মাহি। কলকাতা নাইট রাইডার্স অধিনায়ক দীনেশ কার্তিকের পর টুর্নামেন্টের ইতিহাসে দ্বিতীয় উইকেটরক্ষক হিসেবে এই কীর্তি গড়লেন চেন্নাই অধিনায়ক।
১৯৫তম আইপিএল ম্যাচে শততম ক্যাচের এলিট লিস্টে নাম লেখালেন ধোনি। উইকেটরক্ষক হিসেবে ১৮৬ ম্যাচে কার্তিকের ঝুলিতে রয়েছেন ১০৩ ক্যাচ। এছাড়া বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে ফিল্ডার হিসেবে আইপিএলে আরও ৮টি ক্যাচ নিয়েছেন কার্তিক। অর্থাৎ, সবমিলিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগে কার্তিকের ঝুলিতে সর্বমোট ১১১টি ক্যাচ। যা বিশ্বের যে কোনও টি২০ লিগে রেকর্ড। তবে ক্যাচ এবং স্টাম্পিং মিলিয়ে উইকেটের পিছনে সবচেয়ে বেশি শিকারের নিরিখে শীর্ষে ধোনিই। ১০০ ক্যাচের পাশাপাশি ধোনির নামের পাশে আইপিএলে রয়েছে ৩৯টি স্ট্যাম্পিং।
সেখানে উইকেটরক্ষক হিসেবে ৩০টি স্টাম্প করেছেন কার্তিক। বিশ্বের যে কোনও টি২০ লিগে উইকেটের পিছনে ক্যাচ তালুবন্দি করার নিরিখে তৃতীয়স্থানে রয়েছে ফিল মাস্টার্ড। ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসে অনুষ্ঠিত পেশাদার টি২০ ব্লাস্ট টুর্নামেন্টে ১৫৪ ম্যাচে মাস্টার্ডের ঝুলিতে রয়েছে ৮০টি ক্যাচ।
উল্লেখ্য, দুবাইয়ে এদিন টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন কিংস ইলেভেন পঞ্জাব অধিনায়ক কেএল রাহুল। উল্লেখ্য, অধিনায়কের সর্বোচ্চ ৬৩ রানে ভর করেই নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৭৮ রান তোলে। রাহুলের ৫২ বলে ৬৩ রানের ইনিংস এদিন সাজানো ছিল ৭টি চার এবং ১টি ছয়ে। এছাড়া পঞ্জাবের হয়ে ১৭ বলে ৩৩ রান আসে নিকোলাস পুরানের ব্যাট থেকে। ১৬ বলে ২৭ রান করেন মনদীপ সিং। খবর : কলকাতাটোয়েন্টিফোর’র।