পেলের গোলের রেকর্ড ভাঙলেন রোনালদো

0
98

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক :
বছরের শেষটা দুঃস্বপ্নের হলেও নতুন বছরের শুরুটা দারুণ করলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। তার পায়ের জাদুতেই নতুন বছরের শুরুটা দারুণ করল জুভেন্টাস। সেই সঙ্গে ফুটবল স¤্রাট পেলের ৭৫৭টি গোলের রেকর্ড ভাঙলেন পর্তুগিজ তারকা।
রোনালদোর জোড়া গোলে নিজেদের মাঠে রবিবার রাতে ৪-১ গোলে উদিনেজেকে উড়িয়ে দেয় ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। একটি করে গোল করেন ফেডেরিকো চিয়েসা ও পাওলো দিবালা। দারুণ ফুটবল খেলে আন্দ্রে পিরলোর দল। এই জয়ের ফলে ১৪ ম্যাচে সাতটি জিতে ও ছ’টি ড্র করে ২৭ পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম স্থানে উঠে এল জুভেন্টাস।
এদিন প্রথম গোল করে পেলে’কে ছুঁয়ে ফেলেন রোনান্ডো। তারপর দ্বিতীয় গোল করে ফুটবল সম্রাটকে টপকে যান পর্তুগিজ তারকা। উদিনেজের বিরুদ্ধে জোড়া গোল করে দেশ ও ক্লাব মিলিয়ে ৭৫৮টি গোলের মালিক হলেন রোনান্ডো। সর্বাধিক গোলের নিরিখে রোনালদোর আগে রয়েছেন কেবলমাত্র চেক প্রজাতন্ত্রের আইকন জেসেফ বিসকেন। আর একটি মাত্র গোল করলেই তাকে ছুঁয়ে ফেলবেন রোনালদো।
৭৫৮টি গোলের মধ্যে রোনালদোর বেশি গোল করেছেন রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে। টানা দু’ দশক স্প্যানিশ ক্লাবে খেলে প্রচুর ট্রফি জিতেছেন। গত ১৫ মরশুমে দেশ ও ক্লাবের হয়ে অন্তত ২০টি করে গোল করেছেন এই পর্তুগিজ তারকা। রিয়াল ছেড়ে গত দু’ মরশুম জুভেন্টাসের হয়ে খেলেছেন রোনালদো। এদিন তার জোড়া গোলে বছরের শুরুতে দারুণ জয় পায় জুভেন্টাস।
বড়দিনের ছুটির আগে গত রাউন্ডে ফিওরেন্তিনার বিপক্ষে ৩-০ গোলে হেরেছিল জুভেন্টাস। চলতি মরশুমে যা ছিল ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নদের প্রথম হার। কিন্তু নতুন বছরের প্রথম ম্যাচে জয়ে ফিরল জুভেন্টাস। বল দখলে এগিয়ে থাকা পিরলোর দল প্রথম আক্রমণে যায় ম্যাচের তৃতীয় মিনিটে। ডি-বক্সের বাইরে থেকে রোনালদোর জোরালো শট অবশ্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।
ম্যাচের ১১ মিনিটে রদ্রিগো দে পল বল জালে পাঠালে এগিয়ে যাওয়ার উৎসবে মেতেছিল উদিনেজে। কিন্তু বলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার সময় দে পলের হ্যান্ডবলের জন্য ভিএআরের সাহায্য নিয়ে গোল দেননি রেফারি। ম্যাচের ৩১ মিনিটে জুভেন্টাসকে এগিয়ে নেন রোনালদো। বাঁ-দিক থেকে অ্যারন র‌্যামজির বাড়ানো বল ধরে ডি-বক্সে ঢুকে ডান পায়ের জোরালো শটে দূরের পোস্ট গোল করেন পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলার।
দ্বিতীয়ার্ধের চতুর্থ মিনিটে ব্যবধান বাড়ান চিয়েসা। রোনালদোর থ্রু-বল ধরে ডি-বক্সে ঢুকে বাঁ-পায়ের শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন এই ইতালিয়ান মিড-ফিল্ডার। ৭০ মিনিটে স্কোরলাইন ৩-০ করেন রোনালদো। রদ্রিগো বেন্তানকুরের বাড়ানো বল ধরে ডি-বক্সে ঢুকে বাঁ পায়ের শটে বল জালে জড়ান পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড।