ধর্ষণে বাধা দেয়ায় খুন

0
266

সিআরবি এলাকার বাংলোতে মালেকা বেগম হত্যাকা-#
নিজস্ব প্রতিবেদক :
ধর্ষণের বাধা দেয়ায় নারী মালেকা বেগমকে (৪৫) শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছিল। বুধবার রাতে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার দুই আসামি জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে এ তথ্য দিয়েছে। গত ২৩ জুন নগরের সিআরবি এলাকা থেকে মালেকা বেগমের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
গ্রেফতার আসামিরা হলেন- রুবেল প্রকাশ ভোলাইয়া সুমন এবং মালেকার ছিনতাইকৃত মোবাইলের ক্রেতা মাইকেল বড়ুয়া।
পুলিশ জানায়, গ্রেফতার হওয়া ভোলাইয়া পেশাদার অপরাধী। বিভিন্ন অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে এর আগে বেশ কয়েকবার সুমনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
কোতোয়ালী থানার ওসি মো. মহসিন বলেন, খুনের শিকার নারী মালেকাকে কৌশলে খুনের দিন সিআরবি রেলওয়ের পরিত্যক্ত বাংলোতে নিয়ে যায় ভবঘুরে ভোলাইয়া ও সুমন। সেখানে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয় মালেকাকে। ধর্ষণে বাধা দিলে গলায় ফাঁস লাগিয়ে হত্যা করা হয় মালেকাকে। খুন করে চলে যাওয়ার সময় মালেকার সাথে থাকা মোবাইল ফোন সেট নিয়ে যায়। ওই মোবাইল বিক্রির টাকা দিয়ে দুই জনে ইয়াবা কিনে সেবন করে।
ওসি বলেন, ভোলাইয়া ও সুমন দুজনই মালেকা খুনের সাথে সরাসরি জড়িত। তারা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে খুনের কথা স্বীকার করেছে। গ্রেফতার হওয়া অপর আসামি মাইকেল বড়ুয়া মালেকার ছিনতাই হওয়া মোবাইল ক্রয় করেছে। এ অপরাধে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
জানা গেছে, নিহত মালেকা বেগমের গ্রামের বাড়ি লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর থানার খন্দকারপুর গ্রামে। শ্বশুরবাড়ি সিলেট জেলায়। প্রথম স্বামী আব্দুল জলিল মারা যাওয়ার পর দিতীয় স্বামী আবুল হোসেন সুমনকে বিয়ে করেন মালেকা। সুমন বিআরটিসি ফলম-িতে লেবারের কাজ করেন। থাকতেন নগরের টাইগারপাস মাজার কলোনিতে। মালেকা বেগম তার এক বছরের পুত্রসন্তানসহ শ্বশুরবাড়ি সিলেট জেলার শায়েস্তাগঞ্জে বসবাস করতেন। স্বামী আবুল হোসেন মাঝে মধ্যে সিলেটে যেতেন। গত ১৮ জুন মালেকা স্বামীকে নিয়ে সিলেট থেকে চট্টগ্রাম শহরে চলে আসেন মালেকা।
পুলিশ জানায়, মালেকার স্বামী আবুল হোসেন প্রকাশ সুমনের সঙ্গে ঝগড়া হয়েছিল মালেকা বেগমের। ঝগড়া করে টাইগারপাসে বোনের বাসা থেকে দুজনই বের হয়ে গিয়েছিলেন। পরে মালেকা বেগম বাসায় এসে ছেলের জন্য স্বামীর আনা দুধ ফেরত দিতে কোতোয়ালী থানাধীন বিআরটিসি মোড়ের ফলম-িতে স্বামীকে খুঁজতে এসেছিলেন মালেকা বেগম। সুমনকে সেখানে না পেয়ে এক দোকানদারকে ছেলের দুধ জমা দেন তিনি। পরে সুমনের এক বন্ধুর কাছ থেকে রিকশা ভাড়ার টাকা নিয়ে বিআরটিসি মোড়ে ফ্লাইওভারের নিচে এসে দাঁড়ান রিকশার জন্য।
মালেকা বেগমকে একা দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে মো. রুবেল প্রকাশ ভোলাইয়া তাকে স্বামীর সন্ধান দেয়ার কথা বলে সিআরবি এলাকার পরিত্যক্ত বাংলোতে নিয়ে যায়। সেখানে মালেকা বেগমকে ধর্ষণের চেষ্টা করে মো. রুবেল প্রকাশ ভোলাইয়া।
মালেকা বেগম চিৎকার করলে আসামি সুমনও রুবেলের সঙ্গে যোগ দেয়। দুজনে মিলে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। মালেকা বেগম এ ঘটনা পুলিশকে জানিয়ে দেবে বলে চিৎকার করতে থাকলে রুবেল ও সুমন মিলে বোরকা পেঁচিয়ে তাকে হত্যা করে।
পরে মালেকা বেগমের কাছ থেকে একটি হুয়াই ব্র্যান্ডের মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে তার মরদেহ সেখানে ফেলে চলে যায় রুবেল ও সুমন। ছিনিয়ে নেওয়া মোবাইল সেট মাইকেল বড়ুয়া নামে একজনের কাছে ২ হাজার ৮০০ টাকায় বিক্রি করে দেয় তারা।
প্রসঙ্গত, ২৩ জুন সিআরবি এলাকা থেকে অজ্ঞাতনামা এক নারীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ক্লু লেস মামলা হিসেবে এ ঘটনার তদন্ত শুরু করে দুই দিনের মধ্যেই রহস্য উন্মোচন করে পুলিশ।