চট্টগ্রামে দুই হাজার অতিক্রম করলো করোনা রোগী

0
349
পুলিশ, সাংবাদিক, কাস্টমস কর্মকর্তাসহ ১৫ জন পজিটিভ

নিজস্ব প্রতিবেদক :

চট্টগ্রামে করোনা আক্রানত্ম রোগীর সংখ্যা দুই হাজার ছাড়ালো। বুধবার চট্টগ্রামের তিন ল্যাব (ফৌজদারহাটের বিআইটিআইডি, ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয় ও চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ) এবং কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ২১৫ জন করোনা পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয়েছেন। আক্রানত্মদের মধ্যে সাংবাদিক, পুলিশ ও কাস্টমস কর্মকর্তা ছাড়াও বিভিন্ন পেশার মানুষ রয়েছেন। আক্রানত্ম ২১৫ জনের মধ্যে ১৮২ জন মহানগরীর এবং ৩৩ জন বিভিন্ন উপজেলার। চট্টগ্রামে এখন মোট রোগীর সংখ্যা দুই হাজার দুইশ তে গিয়ে পৌঁছালো। এদের মধ্যে সুস’ হয়েছেন ১৯১ জন ও মারা গিয়েছেন ৬১ জন।

সিভিল সার্জন থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে জানা যায়, চট্টগ্রামে ফৌজদারহাটে বিআইটিআইডি ল্যাবে ২০৯ টি নমুনায় ৩৮ জন করোনা পজিটিভ হয়েছেন। এই ৩৮ জনের মধ্যে একজন শুধুমাত্র হাটহাজারির শিকারপুরের ৫৭ বছর বয়সী এক নারী এবং বাকি ৩৭ জন মহানগরীর। এরা হলেন- পূর্ব ফিরোজশাহ কলোনীর ৫৫ বছর বয়সী পুরম্নষ, উত্তর কাট্টলীর ২৭ বছর বয়সী যুবক ও ৬০ বছর বয়সী বৃদ্ধা, আগ্রাবাদের ৩৯ বছর বয়সী পুরম্নষ, বিআইটিআইডির পাঁচজন, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের ঠিকানায় ৪২ বছর বয়সী পুরম্নষ একজন, হাটহাজারির শিকারপুরের ৫৭ বছর বয়সী এক নারী, ডবলমুড়িং এ ৬৫ বছর বয়সী নারী একজন, রেয়াজউদ্দিন বাজারে ৪৮ বছর বয়সী নারী, হালিশহর পুলিশ লাইনে ৩৭, ৩০, ২৫, ২১ বছর বয়সী পুরম্নষ, চট্টগ্রাম কাস্টমসে পাঁচ জন ( এদের মধ্যে একজন নারী রয়েছেন), আগ্রাবাদে ৫৯ বছর বয়সী একজন পুরম্নষ, নাসিরাবাদ এলাকার ৬৩ বছর বয়সী নারী, আলকরনে ১০, ১৪ ও ৬ বছর বয়সী তিন শিশু এবং ৪৮ ও ৩৮ বছর বয়সী দুই পুরম্নষ, ওআরনিজাম রোডের ৭৩ বছর বয়সী নারী ও ৪০ বছর বয়সী যুবক, আকবারশাহ এলাকার ৪২, ৩০ ও ৩৫ বছর বয়সী তিনজন, খুলশিতে ৫৫, ৩৫ ও ১৭ বছর বয়সী তিনজন এবং নাসিরাবাদে ৬৭ বছর বয়সী একজন।

অপরদিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ২৫৯টি নমুনার মধ্যে পজিটিভ হয়েছে ১৩৮ জনের। এই ১৩৮ জনের মধ্যে ১২৯ জন মহানগরীর এবং ৯ জন বিভিন্ন উপজেলার। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১০০টি নমুনার মধ্যে পজিটিভ হয়েছে ৩৬টি । এই ৩৬টির মধ্যে ১৬টি মহানগরীর এবং উপজেলার ২০টি রয়েছে। কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ৩৪টি নমুনার মধ্যে তিনটি পজিটিভ পাওয়া গেছে। এই তিনটি নগরীর বাইরে উপজেলার।

এদিকে উপজেলার ৩৩ জন রোগীর মধ্যে- লোহাগাড়ায় তিনজন, সাতকানিয়ায় একজন, চন্দনাইশে ১২ জন, পটিয়ায় চারজন, বোয়ালখালীতে দুই জন, রাঙ্গুনিয়ায় দুই জন, রাউজানে একজন, হাটহাজারিতে আট জন রয়েছেন।

এদিকে নতুন করে ২১৫ জন করোনা শনাক্ত হওয়ায় মোট রোগীর সংখ্যা হলো ২,২০০ জন। এর আগে ২৬ মে ৯৮ জন, ২৫ মে ১০৩ জন, ২৪ মে ৬৫ জন, ২৩ মে ১৬৬ জন, ২২ মে ১৬১ জন,  ২১ মে  ৯২ জন, ২০ মে ২৬০ জন, ১৯মে ১২৮ জন, ১৮মে ৫৪ জন, ১৭ মে ৭৩ জন, ১৬ মে ৭৫ জন, ১৫ মে ৬৮ জন, ১৪ মে শনাক্ত হয়েছিল ৬১ জন, ১৩ মে শনাক্ত হয়েছিল ৯৫ জন, ১২ মে ৭৫ জন, ১১ মে ৬৫ জন, ১০ মে ৪৮ জন, ৯ মে শনিবার ১৩ জন, মে শুক্রবার ১১ জন, ৭ মে বৃহস্পতিবার ভেটেরিনারিতে ৩৮ জন ও বিআইটিডিতে ১৯ জন ( কক্সবাজারে একজনসহ) করোনা শনাক্ত হওয়ায় একদিনে ৫৭ করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছিল চট্টগ্রামে। ৬ মে ১১ জন করোনা পজিটিভ হওয়ার আগে ৫ মে সোমবারের  ভেটেরিনারি রিপোর্টের ১৩ জন, ৫ মে বিআইটিআইডি এর রিপোর্টে ৯ জন (ঢাকা, কুমিলস্না ও কক্সবাজার থেকে আসা তিনজন রোগী সহ), ৪মে ১৬ জন, ৩ মে ১৩ জন, ২ মে তিনজন, ১ মে তিনজন, ৩০ এপ্রিল একজন, ২৯ এপ্রিল ৪ জন, ২৮ এপ্রিল তিনজন, ২৭ এপ্রিল নয়জন, ২৬ এপ্রিল সাতজন ( রাজবাড়ী থেকে আসে একজন), ২৫ এপ্রিল দুই জন ( ঢাকা থেকে আসে একজন), ২৪ এপ্রিল একজন, ২২ এপ্রিল তিনজন, ২১ এপ্রিল একজন, ১৩ এপ্রিল চারজন, ১৮ এপ্রিল একজন, ১৭ এপ্রিল একজন, ১৬ এপ্রিল একজন, ১৫ এপ্রিল পাঁচজন, ১৪ এপ্রিল ১১ জন, ১৩ এপ্রিল দুইজন, ১২ এপ্রিল পাঁচজন, ১১ এপ্রিল দুইজন, ১০ এপ্রিল দুই জন, ৭ এপ্রিল তিনজন, ৫ এপ্রিল একজন ও ৩ এপ্রিল একজন আক্রানত্ম হয়েছিল।