১৫০ কোটি টাকার আইপিও ছাড়ার অনুমতি লুব-রেফকে

0
139

সুপ্রভাত ডেস্ক :
লুব্রিকেন্ট কোম্পানি লুব-রেফকে প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) ছেড়ে বাংলাদেশের পুঁজিবাজার থেকে ১৫০ কোটি টাকার তহবিল সংগ্রহের প্রাথমিক অনুমোদন দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।
লুব-রেফ (বাংলাদেশ) লিমিটেড বিএসইসিকে জানিয়েছে, এই ১৫০ কোটি টাকা দিয়ে তারা নতুন যন্ত্রপাতি কিনে ব্যবসা সম্প্রসারণ করবে, ব্যাংক ঋত পরিশোধ করবে এবং প্রথমিক গণ প্রস্তাবের খরচ খাতে ব্যয় করবে।
এজন্য বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে ইলেকট্রনিক বিডিং সম্পাদনের মাধ্যমে প্রান্ত-সীমা মূল্য নির্ধারণের জন্য কোম্পানিটিকে নিলাম ডাকার অনুমোদন দিয়েছে বিএসইসি।
অর্থাৎ লুব-রেফ কত টাকায় তাদের শেয়ার বিক্রি করবে, সেটা এখন নিলামের মাধ্যমে ঠিক করা হবে। যোগ্য বিনিয়োগকারীরা অনলাইন নিলামে অংশ নিয়ে দাম বলবে এবং কি পরিমাণ শেয়ার কিনতে চায় সেটা জানাবে- এভাবে প্রান্তসীমা মূল্য নির্ধারণ হবে।
প্রান্তসীমা মূল্য থেকে ১০ শতাংশ কম টাকায় সাধারণ বিনিয়োগকারীরা লটারির মাধ্যমে লুব-রেফের শেয়ার পাবেন। এরপর কোম্পানি চুড়ান্ত অনুমোদন নিয়ে শেয়ার বিক্রি করে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হবে।
লুব-রেফ (বাংলাদেশ) ২০০১ সালের ১৮ নভেম্বর ব্যবসায়িক নিবন্ধন পেয়ে ২০০৬ সালের ১৮ ডিসেম্বর কার্যক্রম শুরু করে। কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ ইউসুফ, আর চেয়ারম্যান রুবিয়া নাহার।
কোম্পানিটি লুব্রিক্যান্ট অয়েল (যন্ত্রাংশ পরিচর্যার তেল) মিশ্রণ ও পরিশোধন করে ‘বিএনও লুব্রিকেন্টস’ ব্র্যান্ড নামে বিক্রি করে। ইঞ্জিন অয়েল, গিয়ার লুব্রিকেন্ট, হাইড্রলিক অয়েল, ট্রান্সফর্মার অয়েল ও গ্রিজ এই কোম্পানির প্রধান পণ্য।
লুব-রেফ (বাংলাদেশ) লিমিটেডের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন রয়েছে ১০০ কোটি। ২০১৬ সাল থেকে চার বছর টানা মুনাফায় রয়েছে; সর্বনিম্ন ৫ কোটি টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২০ কোটি ৭৬ লাখ টাকা পর্যন্ত মুনাফা করেছে কোম্পানিটি। লুব-রেফ (বাংলাদেশ) লিমিটেডের ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আছে এনআরবি ইকুইটি ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড। খবর : ডেইলিবাংলাদেশ’র।