মুক্তিযোদ্ধা এম.এ. ছাত্তার স্মরণসভা : রাজনীতিতে ত্যাগী নেতার বড়ই অভাব

0
57

চট্টগ্রামের সাবেক সিটি মেয়র ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, রাজনীতিতে ত্যাগী ও অভিজ্ঞ নেতার বড়ই অভাব। মুক্তিযোদ্ধা মরহুম এম.এ. ছাত্তার ছাত্র জীবন থেকে নিজেকে একজন পরিপূর্ণ প্রগতিশীল শ্রমিকবান্ধব মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন। গণতন্ত্র, সামাজিক প্রগতি, মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ, শিক্ষার প্রসারে নিজ এলাকায় বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা, সমাজসেবায় সর্বক্ষেত্রে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হয়েছেন। এম.এ. ছাত্তার একজন প্রগতিশীল শ্রমিকবান্ধব মানুষ ছিলেন।
সাবেক মেয়র আরো বলেন, মুক্তিযোদ্ধা এম.এ ছাত্তার এর জীবনাদর্শ থেকে নতুন প্রজন্মের অনেক কিছুই শিখার আছে। তিনি চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এলাকার একটি সড়ক মুক্তিযোদ্ধা এম.এ. ছাত্তার এর নামে নামকরণের জন্য বর্তমান সিটি করপোরেশনের প্রশাসকের কাছে দাবি জানান।
গতকাল বিকাল ৩টায় জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সমাজকল্যাণ সম্পাদক, লেখক, প্রাবন্ধিক ও চট্টগ্রাম শ্রম আদালতের প্যানেল সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা এম.এ. ছাত্তার এর স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন।
চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব বঙ্গবন্ধু হল মিলনাতয়নে স্মরণসভা পরিষদের আহ্বায়ক, চবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোহাম্মদ সাখাওয়াত হুসাইনের সভাপতিত্বে ও পরিষদের সদস্য সচিব নাছির উদ্দিন ছিদ্দিকী’র পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোহাম্মদ শামীম উদ্দিন খান।
বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজনীতিবিদ জাহাঙ্গীর আলম, সাবেক চাকসু ভিপি ও সংসদ সদস্য মাজহারুল হক শাহ্ চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, মুক্তিযোদ্ধা তপন চক্রবর্ত্তী, প্রফেসর শাহ আলম, চট্টগ্রামস্থ নোয়াখালী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন ফিরোজ, ক্যাপ্টেন (অব.) শহিদ উদ্দিন মাহবুব, মহানগর জাতীয় পার্টির সহ-সভাপতি আনিসুল ইসলাম চৌধুরী, কামরুজ্জামান পল্টু, ডক বন্দর আঞ্চলিক শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন, ভাসানী স্মৃতি সংসদ চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন, চট্টগ্রামস্থ সেনবাগ পেশাজীবী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ আলম চৌধুরী, প্রচার উপ কমিটির আহ্বায়ক রেজাউল করিম রেজা, শিক্ষক অনুপম দাশগুপ্ত, বন্দর ইসলামী শ্রমিক সংঘের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজী জাহাঙ্গীর আলম, চট্টগ্রাম বিভাগীয় শ্রমিক পার্টির সাধারণ সম্পাদক মো. ফারুক প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি