বেশি বয়সে গোল্ডেন বুট জিতলেন ভার্ডি

0
57

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক :
চ্যাম্পিয়ন্স লিগের টিকিট নিশ্চিত করতে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিরুদ্ধে শেষ ম্যাচটা রবিবার জিততেই হত লেস্টার সিটিকে। কিন্তু হেরে গিয়ে আগামী মরশুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলার স্বপ্ন শেষ হয়েছে ২০১৫-১৬ ইপিএল জয়ীদের। শেষ ম্যাচে বল পায়ে দলকে কাঙ্খিত জয় এনে না দিতে পারলেও সদ্য শেষ হওয়া ইপিএলে সর্বোচ্চ গোলস্কোরার হয়ে প্রথমবারের জন্য গোল্ডেন বুট জিতলেন লেস্টার সিটির ইংরেজ স্ট্রাইকার জেমি ভার্ডি।
২০১৫-১৬ ইপিএলে ১৯ গোল করে ফক্স’দের খেতাব জয়ে অন্যতম ভূমিকা পালন করেছিলেন ভার্ডি। কিন্তু লিগ শেষে টটেনহ্যাম স্ট্রাইকার হ্যারি কেনের কাছে ৩ গোলে পিছিয়ে পড়ে গোল্ডেন বুট হাতছাড়া করেছিলেন। ২০১৯-২০ মরশুমে দল খেতাব জয় থেকে অনেকটা দূরে শেষ করলেও ২৩ গোল করে গোল্ডেন বুট ছিনিয়ে নিলেন ভার্ডি। পিছনে ফেললেন দুই নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আর্সেনালের পিয়ের এমেরিক আউবামেয়াং এবং সাউদাম্পটনের ড্যানি ইংসকে। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল সবচেয়ে বেশি বয়সে ইপিএলে গোল্ডেন বুট জিতে নজির গড়লেন ৩৩ বছরের ভার্ডি।
সবচেয়ে বেশি অ্যাসিস্টের নিরিখেও নজির গড়লেন ম্যানচেস্টার সিটির কেভিন দি ব্রুয়েনা। সদ্য সমাপ্ত ইংল্যান্ডের প্রিমিয়র ডিভিশন ফুটবল লিগে নিজে ১৩ টি গোল করার পাশপাশি সতীর্থদের দিয়ে ২০টি গোল করিয়ে রেকর্ড গড়লেন বেলজিয়ান মিডিও। ইপিএলে এক মরশুমে সর্বাধিক অ্যাসিস্টের নিরিখে এক্ষেত্রে ২০০২-০৩ আর্সেনাল কিংবদন্তি থিয়েরি অঁরির রেকর্ড ছুলেন ম্যান সিটির এই প্লে-মেকার। গোল্ডেন গ্লাভস জিতলেন ম্যান সিটিরই গোলরক্ষক এডেরসন।
রবিবার লিগের শেষ ম্যাচে ম্যান সিটি নরউইচকে ৫-০ গোলে হারানোর সঙ্গে সঙ্গে ২০১৯-২০ মরশুমে সর্বাধিক ১৬ ম্যাচে ক্লিন শিট রাখেন এডেরসন। এডেরসনের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এগোচ্ছিলেন বার্নলে গোলরক্ষক নিক পোপ। শেষ ম্যাচে ব্রিটনের কাছে ১-২ গোলে হেরে যুগ্মভাবে গোল্ডেন গ্লাভস জয়ের সুযোগ হাতছাড়া করেন তিনি।
খবর : কলকাতাটোয়েন্টিফোর’র।