ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট সিরিজে বিশেষ চমক

0
62

 

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক :

চলতি বছর মার্চে শেষবার ক্রিকেটের বাইশ গজে বল গড়িয়েছিল। তারপর থেকে করোনার দাপটে বদলে গিয়েছে ছবিটা। লকডাউন থেকে ধীরে ধীরে আনলক হচ্ছে ভারত-সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ। তবে বিরাট কোহলিরা কবে মাঠে নামবেন, তা এখনও অজানা। কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং ইংল্যান্ড ও ওয়েলস বোর্ড স্বাভাবিক ছন্দে ফিরতে পদক্ষেপ করেছে। আর এই দুই দেশের হাত ধরেই ক্রিকেটের করোনা পরবর্তী যুগের সূচনা হবে। বুধবারই প্রথম টেস্টে মুখোমুখি দুই দল। ফাঁকা স্টেডিয়ামেও অবশ্য দর্শকাসনে থাকছে বিশেষ চমক।

তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে বেশ কিছুদিন আগেই ইংল্যান্ড পৌঁছেছেন জ্যাসন হোল্ডাররা। সেখানে কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরই প্র্যাকটিস শুরু করেন তারা। করোনার জেরে দীর্ঘ বিরতির পর মাঠে নামার আগে ফিটনেসই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ দুই দলের ক্রিকেটারদের। তবে ব্যাট-প্যাড নিয়ে ক্রিকেটাররা মাঠে নেমে পড়লেও বিশ্ব থেকে এখনও বিদায় নেয়নি মারণ করোনা ভাইরাস। তাই দর্শকশূন্য মাঠেই ম্যাচের আয়োজন হচ্ছে। তবে এই ‘ঐতিহাসিক’ ম্যাচে সাউদাম্পটনের স্টেডিয়ামের দর্শকাসন যাতে একেবারে ম্যাড়ম্যাড়ে না দেখলে লাগে, তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করেছে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড।

কী রকম? ব্যাটসম্যান চার কিংবা ছক্কা হাঁকালে অথবা বোলার উইকেট নিলে গ্যালারি থেকে ভেসে আসবে উল্লাসের শব্দ। বেজে উঠবে মিউজিক। মাঠের পরিবেশ যাতে আগেই মতোই স্বাভাবিক মনে হয়, সে জন্যই এই উদ্যোগ। শোনা যাচ্ছে, আয়োজকদের এমন প্রস্তাবে আপত্তিও জানাননি ক্রিকেটাররা। তবে শুধু মাঠেই নয়, কৃত্রিমভাবে তৈরি দর্শকদের এই উচ্ছ্বাসের আওয়াজ টিভিতে চোখ রেখেও শুনতে পাবেন ক্রিকেটপ্রেমীরা।

উল্লেখ্য, প্রযুক্তির ব্যবহার করে গ্যালারিতে এভাবেই কৃত্রিম উল্লাসের আওয়াজ ব্যবহার করা হচ্ছে ফুটবল মাঠে। লা লিগা এবং প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচ ছোটপর্দায় দেখলেও কানে আসছে সেই শব্দ। এবার ক্রিকেটেও কৃত্রিমভাবে পূরণ করা হবে দর্শকদের অভাব। ফাঁকা গ্যালারি, থুতু ছাড়া বোলিং, কোভিড পরিবর্ত ইত্যাদি একাধিক নয়া নিয়ম নিয়ে করোনা পরবর্তী যুগে ক্রিকেটের চেহারাটা দেখতে মরিয়া বিশ্ব।

খবর : সংবাদপ্রতিদিন’র।