‘ব্রিদ : ইনটু দ্য শ্যাডোস’-তে দুর্দান্ত অভিষেক

0
80

 

সুপ্রভাত ডেস্ক :

সিনেমার পর এবার ওয়েব সিরিজে হাত পাকাচ্ছেন অভিষেক বচ্চন। আমাজন প্রাইমে ১০ জুলাই মুক্তি পেতে চলেছে জুনিয়র বচ্চনের প্রথম ওয়েব সিরিজ ‘ব্রিদ: ইনটু দ্য শ্যাডোস’।

বুধবার (১ জুলাই) মুক্তি পেল ‘ব্রিদ ২ : ইনটু দ্য শ্যাডোস’র ট্রেলার। ট্রেলারের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত টানটান উত্তেজনা রেখেছেন পরিচালক। অভিষেকও দুর্দান্ত। তবে ট্রেলার দেখেই বোঝা যাচ্ছে সিরিজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন অভিনেতা অমিত সাধ। সঙ্গে আছেন অভিনেত্রী নিত্যা মেনন।

ট্রেলার শুরু হয়েছে এক অপহরণের গল্প দিয়ে। এক সাইক্রিয়াটিস্ট অবিনাশের মেয়ে অপহৃত হয়। তার নাম সিয়া। অপহরণের পর ৪৮ ঘণ্টা কেটে গেলেও কোনও ফোন বা মুক্তিপণের দাবি আসে না। পরিবর্তে আসে সিয়ার একটি ভিডিও। মুখ মুখোশে ঢাকা অপহরকারী বলে তার ইচ্ছেমতো কাজ না করলে সিয়া জীবিত অবস্থায় ফিরবে না। মেয়ের মুখের দিকে তাকিয়ে স্তম্ভিত অবিনাশ। অপহরণকারী তাকে খুন করতে বলে। টার্গেটও দিয়ে দেয় সে। শহরে একের পর এক খুন হতে থাকে। এদিকে খুনের তদন্ত শুরু করে পুলিশ। সেই তদন্তের সঙ্গে জড়িত হয় অবিনাশ। অপহরণকারীর মগজ পড়ার চেষ্টা করতে থাকে সে। কিন্তু ট্রেলার দেখে মনে হয় পুলিশ অফিসারের সঙ্গে অপহরণকারীর কোনও গোপন সমীকরণ আছে। কী সেই সমীকরণ? দু’জনের মধ্যে কোনও যোগসাজশ নেই তো? আর অবিনাশ! সে কি সত্যিই খুন করবে? সিয়া কি ফিরবে? এ সবেরই উত্তর পাওয় যাবে ১০ জুলাই।

অবুনদন্তিয়া এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজিত ‘ব্রিদ : ইনটু দ্য শ্যাডোস’ পরিচালনা করেছেন মায়াঙ্ক শর্মা। তিনি এর আগের সিজনেও কাজ করেছিলেন। ভবানী আইয়ার, বিক্রম তুলি ও আরশাদ সৈয়দের সঙ্গে তিনি এর চিত্রনাট্যও লিখেছেন।

এই ওয়েব সিরিজটি নিয়ে অভিষেক বচ্চন আগে এক সংবাদসংস্থাকে জানিয়েছিলেন, ছবির গল্প শোনার সময়ই তিনি বুঝেছিলেন তার চরিত্রটি গুরুত্বপূর্ণ। এর গল্পে রীতিমতো মজেছিলেন তিনি। কোনও বিতর্কিত ফিচার ফিল্মের চেয়ে এটি কোনও অংশে কম নয়। বরং দর্শকের এটি চারগুণ বেশি ভাল লাগবে।