চিটাগং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি চতুর্থ বোর্ড অব ট্রাস্ট্রিজের সভা

0
69
সিআইইউ’র সভায় অংশগ্রহণকারী বোর্ড সদসরা

‘দুর্যোগ-মহামারি থাকবেই। তাই বলে হাত পা গুটিয়ে জড়সড় হয়ে বাড়িতে তো আর বসে থাকা যাবে না। করোনার মত এমন সংকটে আগামি দিনে নিজেদের মেলে ধরতে হলে আমাদের শিক্ষার্থীদের এখন থেকেই মানসিক দৃঢ়তা, প্রযুক্তিগত জ্ঞান ও উন্নয়ন চিন্তা বাড়ানোর দিকে আরও বেশি মনোযোগী হতে হবে।’
চিটাগং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটির (সিআইইউর) চতুর্থ বোর্ড অব ট্রাস্ট্রিজের দ্বিতীয় সভায় এমন কথা বলেছেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বোর্ড সদস্যরা। যারা বিভিন্ন সেক্টরে অবদান রেখে দেশের জন্য নিরলস কাজ করে চলেছেন।
গত ৩০ জুন সকালে অনলাইনে (ভার্চুয়াল) করোনা পরিস্থিতিতে সিআইইউ’র আগামী দিনের পরিকল্পনাসহ নানান বিষয় নিয়ে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।
এতে সভাপতিত্ব করেন ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান তৌহিদ সামাদ। তিনি বলেন, যে কোনো মহামারি কিংবা সংকটের শেষ আছে। করোনা অন্যান্য সেক্টরের মত শিক্ষাতেও প্রভাব বিস্তার করছে।
শিক্ষা কার্যক্রমকে চালু রাখতে তাই অনলাইনের পাশাপাশি টেকসই ও বিকল্প পথ তৈরির এখনই সময় বলে উল্লেখ করেন চেয়ারম্যান তৌহিদ সামাদ। বৈঠকে সিআইইউ পরিবারের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অতীতে পরলোক গমনকারীদের রুহের আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হয়। পাশাপাশি সারাদেশে যারা বর্তমানে করোনাতে আক্রান্ত তাদের সুস্থতা কামনা করা হয়।
সভায় সিআইইউ’র ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের বাজেট, সংকট চলাকালীন গবেষণা ও শিক্ষা কার্যক্রম সচল রাখা, শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ানো, অনলাইন ক্লাস নিয়মিত চালু রাখাসহ নানান বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়।
এতে ট্রাস্টি সদস্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন সৈয়দ মাহমুদুল হক, এ কাইয়ুম খান, ইসমাইল দোভাষ, প্রকৌশলী আলী আহমেদ, দিলরুবা আহমেদ, আমির হুমায়ুন মাহমুদ চৌধুরী, নাদের খান, সাফিয়া গাজী রহমান, আমিনুর রেজা খান, লুৎফে এম আইয়ুব, মো. আমিনুজ্জমান ভূঁইয়া, সিআইইউর বর্তমান ভাইস চ্যান্সেলর ও বিওটির সাবেক অফিসিও মেম্বার ড. মাহফুজুল হক চৌধুরী, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার ও বোর্ড সেক্রেটারী আনজুমান বানু লিমা প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি