অভিষেকের ক্যারিয়ার যেভাবে বাঁচিয়েছিলেন অমিতাভ

0
101

সুপ্রভাত ডেস্ক :
স্টারকিডদের লঞ্চ করার ধারা বলিউডে বহু প্রাচীন। সে কপূর পরিবারই হোক, দেওল পরিবারই হোক অথবা বচ্চন পরিবার। শুধুমাত্র ছেলের নড়বড়ে ক্যারিয়ার শক্ত করবেন বলে অমিতাভ বচ্চনও যে আশ্রয় নিয়েছিলেন ‘শর্ত’-র, তা অনেকেরই অজানা। সাল ২০০২। অভিষেক বচ্চন তখন সবে ফিল্মি ক্যারিয়ার শুরু করেছেন। বাবা অমিতাভ। তাই সবকিছুই ছিল হাতের কাছে। দু’তিনটে ছবিতে অভিনয় করলেও তখনও তিনি অমিতাভ-পুত্র হয়েই রয়ে গিয়েছেন। আলাদা করে কিছুতেই নিজের নাম প্রতিষ্ঠা করতে পারছেন না ইন্ডাস্ট্রিতে। এ দিকে বাবা অমিতাভও নাছোড়বান্দা। যে করেই হোক ছেলেকে ইন্ডাস্ট্রিতে জায়গা পাকা করে দিতেই হবে।
ঠিক সেই সময়েই প্রযোজক বনি কপূর অমিতাভ বচ্চনকে তার একটি ছবিতে কাজ করার জন্য অনুরোধ করেন। ছবিতে বাকি অভিনেতারা ছিলেন ঐশ্বর্যা রাই (তখনও তিনি বচ্চন হননি), বিবেক ওবেরয় এবং দিয়া মির্জা। ছবির নাম ‘কিউ হো গয়া না’। সে সময় আবার ঐশ্বর্যা এবং বিবেকের প্রেমের গুঞ্জন ভেসে বেড়াচ্ছে ইন্ডাস্ট্রিতে। অমিতাভ বচ্চন কিন্তু সেই ছবিতে অভিনয় নিয়ে মুখের উপর বনিকে ‘না’ বলে দেন। এ দিকে বনিও ছাড়ার পাত্র নন। তিনি বারংবার অনুরোধ করতে থাকেন অমিতাভকে। অনেক অনুনয়-বিনয়ের পর অবশেষে রাজি হন অমিতাভ। কিন্তু পরিবর্তে বনিকে একটি শর্ত দেন তিনি।
কী সেই শর্ত? অমিতাভ বনি কাপূরকে বলেন, বনি যদি তার পরবর্তী ছবিতে অভিষেককে কাস্ট করেন তবেই তার ছবিতে অভিনয় করবেন তিনি। নচেত নয়। বনির কাছেও কোনও উপায় ছিল না। অমিতাভকে নিয়ে তার কাজ করার ইচ্ছা ছিল বহু দিনের। শেষমেশ কিছুটা বাধ্য হয়েই অমিতাভের শর্তে রাজি হয়ে যান বনি কাপূর। অমিতাভকে কথা দেন তার পরবর্তী ছবি ‘রান’-এ তিনি কাস্ট করবেন অভিষেককে। ছেলের ক্যারিয়ার বেঁচে যাবে ভেবে খুশি মনে ‘কিউ হো গয়া না’-তে অভিনয় করতে রাজি হয়ে যান অমিতাভ।
কিন্তু হায়! ‘কিউ হো গয়া না’ বক্স অফিসে চুড়ান্ত অসফল হয়। এমনকি ‘রান’-এও অভিষেকের থেকে লাইমলাইট ছিনিয়ে নেন ‘কাউয়া বিরিয়ানি’ অর্থাৎ বিজয় রাজপুরি। পঙ্কজ ত্রিপাঠির অভিনয়ও পছন্দ করেন দর্শকেরা। ‘রান’ হিট করেনি ঠিকই, তবে এই ছবির হাত ধরেই অভিষেকের কাছে এসেছিল ‘যুবা’ ছবির অফার। সেই ছবিতে রানি মুখোপাধ্যায় এবং অভিষেক বচ্চনের ‘কভি নিম নিম’ এখনও সিনেমাপ্রেমীদের মনে ভাস্বর। বলিউডে স্বজন পোষণ যে স্বাভাবিক ঘটনা, ছেলের ক্যারিয়ার বাচাতে তা আরও এক বার প্রমাণ করে দিয়েছিলেন স্বয়ং বিগ-বি।
খবর : আনন্দবাজার’র।