চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল আয়োজনের দৌড়ে জার্মানি-পর্তুগাল

0
50

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক :
সবকিছু ঠিকঠাক চললে গত শনিবারই ইস্তানবুলের আতাতুর্ক অলিম্পিক স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়ে যেত ২০১৯-২০ উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল। কিন্তু অতিমারী করোনার জেরে পুনরায় শুরুই করা যায়নি ইউরোপ সেরার টুর্নামেন্ট। পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে আগামী অগাস্টে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের ভাবনাচিন্তা চলছে। তবে চূড়ান্ত নয় কিছুই। পাশাপাশি বিলম্বিত হওয়ার কারণে এবার তুরস্ক ছেড়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের জন্য অন্য ভেন্যুর খোঁজে ইউরোপিয়ান ফুটবলের গভর্নিং বডি।
শোনা যাচ্ছে পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের দৌড়ে দারুণভাবে রয়েছে জার্মানি এবং পর্তুগাল। সামগ্রিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে এই দুটি দেশের মধ্যে একটিকেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের নতুন ভেন্যু হিসেবে ঘোষণা করবে উয়েফা। বিশ্বস্ত সূত্রে খবর এমনটাই। পাশাপাশি জানা গিয়েছে কেবল ফাইনাল নয়, শেষ আট থেকে প্রতিযোগীতার সমস্ত ম্যাচ একটি দেশেই আয়োজন করার চিন্তা করছে উয়েফা।
আগামী ১৭ জুন উয়েফা এক্সিকিউটিভ কমিটির সভায় অগাস্টে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল আয়োজন করতে চলা দেশ এবং ভেন্যুর নাম ঘোষণা করবে উয়েফা। একইসঙ্গে কোয়ার্টার ফাইনাল এবং সেমিফাইনালের বিষয়টিও নিশ্চিত হবে বলে জানানো হয়েছে সূত্রে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের বাকি ম্যাচগুলির ভেন্যু চূড়ান্ত করার ক্ষেত্রে উয়েফা সবার আগে প্রাধান্য দিচ্ছে ফুটবলার এবং ম্যাচ অফিসিয়ালদের। তাদের ক্ষেত্রে যাতে ভেন্যুতে পৌঁছনোর বিষয়টি সুগম এবং নিরাপদ হয়। যেহেতু করোনা পরবর্তী ফুটবলার-অফিসিয়াল কিংবা সাপোর্ট স্টাফেদের একাধিক প্রোটোকলের মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে তাই সবদিকটাই ভেবে দেখছে উয়েফা।
এদিকে দেশের মাটিতে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল আয়োজনের ব্যাপারে বেশ ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া মিলেছে পর্তুগালের প্রেসিডেন্ট মার্সেলো রেবেলো দে সৌসার তরফে। এমন সম্ভাবনাকে ‘দারুণ খবর’ আখ্যা দিয়ে লিসবনে বেনফিকার হোম গ্রাউন্ডকে প্রাথমিকভাবে ফাইনালের ভেন্যু হিসেবে চিহ্নিত করেছেন তিনি। অন্যদিকে জার্মান সরকারও এমন সম্ভাবনার কথা শুনে ফ্র্যাঙ্কফুর্টকে প্রাথমিকভাবে চিহ্নিত করেছে ফাইনালের ভেন্যু হিসেবে।
সাধারণত কেবলমাত্র চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল ম্যাচই নিরপেক্ষ ভেন্যুতে খেলা হয়ে থাকে। কিন্তু করোনার জেরে যা পরিস্থিতি তাতে গাইডলাইন মেনে ফুটবলার কিংবা অফিসিয়ালদের স্বল্পদিনের ব্যবধানে ভিন্ন দেশে ভ্রমণে চরম ঝুঁকি রয়েই যাচ্ছে। তাই গোটা বিষয়টি মাথায় রেখে শেষ আট থেকে লিগের সমস্ত ম্যাচ একটি দেশে আয়োজন করার দিকেই ঝুঁকেছে ইউরোপিয়ান ফুটবলের গভর্নিং বডি।
খবর : কলকাতাটোয়েন্টিফোর’র।