৫০০ পার হলো আক্রান্তের সংখ্যা

0
186

একদিনে রেকর্ড ৯৫ জন পজিটিভ, সদরঘাট থানার ওসিসহ ১৩ জন পুলিশ শনাক্ত, করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া সেই আওয়ামী লীগ নেতার করোনা পজিটিভ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
পরীক্ষা বাড়ার সাথে সাথে বেড়েই চলেছে করোনা রোগীর সংখ্যা। গত মঙ্গলবার চট্টগ্রামে ৮৫ জন শনাক্তের পর বুধবার ৯৫ জন শনাক্ত হলো। আর নতুন করে এই শনাক্তে চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা ৫১৪ জনে গিয়ে ঠেকলো। নতুন আক্রান্ত ৯৫ জনের মধ্যে নগরীতে ৭৯ জন ও নগরীর বাইরের উপজেলাগুলোতে রয়েছে ১৬ জন। চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটের বিআইটিআইডি, ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ ও কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজে অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় চট্টগ্রামের এসব রোগী করোনা পজিটিভ হয়েছেন।
চট্টগ্রামে মোট করোনা আক্রান্তদের মধ্যে এপর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি গেছেন ৮৮ জন এবং মারা গেছেন ২৬ জন।
এদিকে বুধবার চট্টগ্রামের ফৌজদারহাট বিআইটিআইডিতে ২৩১টি নমুনার মধ্যে ৪৯টি পজিটিভ পাওয়া গেছে। এই ৪৯টি পজিটিভের মধ্যে চট্টগ্রামের ৩৮টি ও অন্যজেলার ১১টি। ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয়ে গত ১২ মে মঙ্গলবারের ৪৬টি নমুনার মধ্যে ২০টি করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে। এই ২০টির মধ্যে চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালীর ১২ জন, রাঙামাটির ৫ জন, খাগড়াছড়ির ৩ জন রয়েছে। অপরদিকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজে ৯০টি নমুনার মধ্যে ৪৫ জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে। এই ৪৫ জনের মধ্যে নগরীর ৪১ জন ও উপজেলার চারজন রয়েছে। এছাড়া কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজে চট্টগ্রামের ২টি নমুনা গিয়েছিল সেগুলো নেগেটিভ এসেছে বলে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বী নিশ্চিত করেন।
এদিকে বিআইটিআইডিতে চট্টগ্রামের ৩৮ জনের মধ্যে মহানগরীর ৩৩ জন হলেন- পাহাড়তলীর ৩৭ বছরের যুবক, ইপিজেডের ৩৫ বছর বয়সী যুবক, চকবাজারের ৭০ বছর বয়সী বৃদ্ধ, দামপাড়া পুলিশ লাইনের ২৩, ২৪ ও ২৩ বছর বয়সী তিন পুলিশ সদস্য, ফয়’স লেক এলাকার ৪৬ বছর বয়সী পুরুষ, বিআইটিআইডির ৩০ ও ৫০ বছর বয়সী দুই পুরুষ, সিটি গেইট এলাকার ৪১ বছর বয়সী পুরুষ, হালিশহর নয়াবাজারের ৪৮ বছর বয়সী পুরুষ, উত্তর কাট্টলীর ২৬ বছর বয়সী নারী, পাহাড়তলীর ৪০ বছর বয়সী একজন ডাক্তার, নিউ মনসুরাবাদের ১৯ বছর বয়সী যুবক, হালিশহরের ২৪ বছর বয়সী যুবক, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ৪১ বছর বয়সী এক নারী ডাক্তার, সদরঘাট এলাকার ২৯ বছর বয়সী এক যুবক, চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৪৬ বছরের এক পুরুষ, দামপাড়া পুলিশ লাইনের ৪৫ বছর ও ৩২ বছর বয়সী দুই পুলিশ সদস্য, সদরঘাট এলাকার ৪২ বছর বয়সী পুরুষ, সদরঘাট থানার ওসি ফজলুর রহমান (৪০), সদরঘাটের ৪৩ বছর বয়সী আরেক পুরুষ, একই এলাকার ৪০, ৩০, ৩০, ৪০ বছর বয়সী আরো চার পুরুষ, হালিশহর মুন্সীপাড়ার কাউন্সিলর প্রার্থী হোসেইন মুরাদ (৫৫)- যিনি বুধবার সকালে মারা গেছেন। একই এলাকার ৩৮ বছর বয়সী আরো এক যুবক, কৈবল্যধাম ফিরোজশাহ কলোনির ৭২ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ ও চকবাজারের ৫০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ রয়েছেন। অপরদিকে উপজেলার মধ্যে রাউজানের ৩৫ বছরের যুবক, সাতকানিয়ার ২৬ বছরের যুবক, চন্দনাইশের ২৫ বছরের যুবক, পটিয়ার ৩৫ বছরের যুবক, সাতকানিয়ার ৪২ বছর বয়সী পুরুষ, সীতাকু-ের ফৌজদারহাটের ৪৭ বছর বয়সী এক পুরুষ।
এদিকে আজ নতুন করে ৯৫ জন করোনায় শনাক্ত হওয়ায় মোট রোগীর সংখ্যা হলো ৫১৪ জন। এর আগে ১২ মে ৭৫ জন, ১১ মে ৬৫ জন, ১০ মে ৪৮ জন, ৯ মে শনিবার ১৩ জন, মে শুক্রবার ১১ জন, ৭ মে বৃহস্পতিবার ভেটেরিনারিতে ৩৮ জন ও বিআইটিডিতে ১৯ জন (কক্সবাজারে একজনসহ) করোনা শনাক্ত হওয়ায় একদিনে ৫৭ করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছিল চট্টগ্রামে। ৬ মে ১১ জন করোনা পজিটিভ হওয়ার আগে ৫ মে সোমবারের ভেটেরিনারি রিপোর্টের ১৩ জন, ৫ মে বিআইটিআইডি এর রিপোর্টে ৯ জন (ঢাকা, কুমিল্লা ও কক্সবাজার থেকে আসা তিনজন রোগী সহ), ৪মে ১৬ জন, ৩ মে ১৩ জন, ২ মে তিনজন, ১ মে তিনজন, ৩০ এপ্রিল একজন, ২৯ এপ্রিল ৪ জন, ২৮ এপ্রিল তিনজন, ২৭ এপ্রিল নয়জন, ২৬ এপ্রিল সাতজন ( রাজবাড়ী থেকে আসে একজন), ২৫ এপ্রিল দুই জন ( ঢাকা থেকে আসে একজন), ২৪ এপ্রিল একজন, ২২ এপ্রিল তিনজন, ২১ এপ্রিল একজন, ১৩ এপ্রিল চারজন, ১৮ এপ্রিল একজন, ১৭ এপ্রিল একজন, ১৬ এপ্রিল একজন, ১৫ এপ্রিল পাঁচজন, ১৪ এপ্রিল ১১ জন, ১৩ এপ্রিল দুইজন, ১২ এপ্রিল পাঁচজন, ১১ এপ্রিল দুইজন, ১০ এপ্রিল দুই জন, ৭ এপ্রিল তিনজন, ৫ এপ্রিল একজন ও ৩ এপ্রিল একজন আক্রান্ত হয়েছিল। এরমধ্যে সাতকানিয়ার এক বৃদ্ধ একজন মারা যাওয়ার পর করোনা শনাক্ত হয়েছেন, পটিয়ায় ৬ বছরের এক শিশু মারা গেছে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার দেড় ঘন্টার মধ্যে, সরাইপাড়া লোহারপুল এলাকার এক নারী মারা যাওয়ার পর করোনায় শনাক্ত হয়েছেন, নিমতলা এলাকার এক নারী মারা যাওয়ার পর করোনা শনাক্ত হয়েছেন, সরাইপাড়া লোহারপুল এলাকায় এক ব্যক্তি মারা যাওয়ার পর করোনা শনাক্ত হয়েছেন, সাগরিকার এক নাইটগার্ড মারা যাওয়ার পর করোনা শনাক্ত হয়েছেন, মোহরার এক নারী মারা যাওয়ার পর করোনা শনাক্ত হয়েছেন এবং সর্বশেষ এনায়েত বাজারের লোকটি মারা যাওয়ার পর করোনা শনাক্ত হলো। এছাড়া ৬ মে পাহাড়তলী লাকী হোটেল মোড় এলাকার বাসিন্দা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এছাড়া গত ৬ মে মারা যাওয়ার পর নমুনা রিপোর্টে করোনা শনাক্ত হয়েছেন তিনজন, ৭মে বৃহস্পতিবার সাগরিকা এলাকার এক ব্যক্তি মারা যাওয়ার পর করোনা শনাক্ত হয়েছেন। ৮মে রাতে বিআইটিআইডিতে আইসোলেসনে থাকা অবস্থায় মারা গেল ৫৫ বছর বয়সী এক পুরুষ। এছাড়া গত ১২ মে মঙ্গলবার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মারা গেল হাটহাজারির এক নারী। করোনা শনাক্ত নিয়ে ৩৭ নম্বর হালিশহর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর গতকাল ১৩ মে সকালে মারা যাওয়ার পর রিপোর্টে করোনা পজিটিভ এসেছে। এছাড়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে আরো একজন। এনিয়ে চট্টগ্রামে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২৬ জনে দাঁড়ালো। এছাড়া সুস্থ হয়ে বাড়ি গেছেন ৮৮ জন।