খাগড়াছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যানের ওপর দুর্বৃত্তদের হামলা

আটক ৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি

খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান চঞ্চুমনি চাকমা শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে জেলা শহরের প্রেস ক্লাবের সামনে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত হয়েছেন। পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ঘটনাস’লে অভিযান চালিয়ে চার যুবককে আটক করেছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উপজেলা চেয়ারম্যান চঞ্চুমনি সকালে উপজেলা পরিষদ থেকে চালকসহ একটি মোটরসাইকেলে চড়ে সরকারি দলের এক নেতার সাথে দেখা করতে আদালত সড়কের দিকে আসেন। ফেরার পথে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা তাঁকে প্রেস ক্লাবের সামনে থামিয়ে মাথায় ইট ও লোহার রড দিয়ে আঘাত করতে থাকেন। এসময় তাঁর চিৎকারে লোকজন এগিয়ে আসলে দুর্বৃত্তরা গা ঢাকা দেয়।
পরে পুলিশের সহায়তায় খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ সামশুল তাবরীজ আহতাবস’ায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে দেন। খাগড়াছড়িতে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বেলা দেড়টায় কড়া নিরাপত্তায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
চঞ্চুমনির স্বজনদের পক্ষ হতে এই ঘটনায় সংস্কারপনি’ জনসংহতি সমিতির শীর্ষনেতা পেলে বাবুকে দায়ী করা হয়েছে।
ইউপিডিএফ মুখপাত্র নিরন চাকমা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান চঞ্চুমনি চাকমার ওপর হামলার ঘটনায় নিন্দা ও দোষীদের শাস্তি দাবি করা হয়।
তবে জনসংহতি সমিতি’র পক্ষ থেকে এই অভিযোগ সত্য নয় বলে জানানো হয়েছে।
ঘটনার জন্য জনসংহতি সমিতি (এমএন লারমা) পক্ষকে দায়ী করেছে ইউপিডিএফ। অবশ্য জনসংহতি সমিতি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে দোষ চাপানো হয়েছে। এর সঙ্গে তাদের কোন সম্পৃক্ততা নেই।
খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) ডা. নয়নময় ত্রিপুরা জানান, চেয়ারম্যানের মাথায় আঘাত গুরুতর। তার বমি বমি ভাব ছিল। তাই উন্নত চিকিৎসার্থে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান চঞ্চুমনি চাকমার ওপর হামলার খবর পেয়ে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে ছুটে যান খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী।
খাগড়াছড়ি সদর থানার ওসি সাহাদাত হোসেন টিটো ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, কী কারণে বা কারা এই হামলায় জড়িত তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আটক চার যুবকের পরিচয় মিলেছে। তবে এখনো থানায় কোন এজাহার না হওয়ায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইউপিডিএফ প্রধান প্রসিত বিকাশ খীসার আপন মামাতো ভাই চঞ্চুমনি চাকমা জেলাশহরে সংগঠনটির অন্যতম পৃষ্ঠপোষক হিসেবে পরিচিত। তাঁর বিরুদ্ধে ২০১০ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় ইন্ধন যোগানো, বাবুছড়ায় বিজিবি ব্যাটালিয়ন স’াপনে বিরোধিতাসহ উপজেলা পরিষদের কার্যক্রমে সাম্প্রদায়িক স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ রয়েছে।