টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব

ফাইনালে আয়ারল্যান্ডের প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক

ফেভারিট হিসেবে টুর্নামেন্ট শুরু করেছিল বাংলাদেশ। ফেভারিটের মতোই উঠল ফাইনালে। সেমিফাইনালে স্কটল্যান্ডকে হারিয়ে আবারো মেয়েদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে জায়গা করে নিল বাংলাদেশ। এই নিয়ে টানা তিনবার বাংলাদেশের মেয়েরা খেলবে টি-টোয়েন্টির বিশ্ব আসরে। প্রথম সেমিফাইনালে জিতে এদিন আগেই বিশ্বকাপে খেলা নিশ্চিত করেছে আয়ারল্যান্ড। আজ উট্রেক্টে ফাইনালে আইরিশদের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশের মেয়েরা। খবর বিডিনিউজ’র।মেয়েদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের সেমিফাইনালে স্কটল্যান্ডকে ৪৯ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। নেদারল্যান্ডসের আমস্টেলভিনে গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশের ১২৫ রান তাড়ায় স্কটিশরা করতে পারে ৭৬ রান।
টুর্নামেন্টে প্রথমবার এ দিন আগে ব্যাটিং পেয়েছিল বাংলাদেশ। তবে খুব একটা জ্বলে উঠতে পারেননি ব্যাটাররা। তার পরও জিততে খুব বেগ পেতে হয়নি। দলের মূল শক্তি বোলিং। বোলাররাই আরও একবার দলকে নিয়ে গেছে জয়ের পথে।
দেশের মাটিতে ২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ খেলেছিল স্বাগতিক হিসেবে। ২০১৬ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের টিকিট মিলেছিল বাছাইপর্ব উতরে। সেই ধারাবাহিকতা মেয়েরা ধরে রাখল আবারও।
টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশের শুরুটা ছিল দারুণ। পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে রান আসে ৪৬। শামিমা সুলতানা ও আয়েশা রহমানের উদ্বোধনী জুটিতেই দল পেরিয়ে যায় পঞ্চাশ।
ছন্দপতনের শুরু এরপরই। ১৬ বলে ২২ রান করা শামিমার রান আউটে ভাঙে ৫১ রানের জুটি। পরের ওভারে বিদায় নেন আয়েশাও। অভিজ্ঞ ব্যাটার আবারও ব্যর্থ থিতু হয়েও ইনিংস বড় করতে। ফিরেছেন ২০ রানে।
ব্যাটিংয়ের বড় দুই ভরসা ফারজানা হক ও রুমানা আহমেদ ফেরেন অল্পতেই। বিনা উইকেটে ৫১ থেকে বাংলাদেশের রান হয়ে যায় ৪ উইকেটে ৬২।
গতি হারানো ইনিংসটাকে সেখান থেকে টেনে নিয়েছেন নিগার সুলতানা। ফাহিমা খাতুন ও সানজিদা ইসলাম সঙ্গ দিয়েছেন কিছুক্ষণ। নিগার টিকে ছিলেন শেষ পর্যন্ত। তার অপরাজিত ৩১ রানের ইনিংসেই বাংলাদেশ পার হতে পারে ১২০।
বাংলাদেশের বোলিং আর স্কটিশদের ব্যাটিং শক্তি বিচেনায় এই লক্ষ্যটাও ছিল কঠিন। স্কটিশদের শুরুটা ছিল সাবধানী। রান তাড়ার প্রথম ভাগে উইকেট ধরে রেখেছে তারা, ১০ ওভারে রান ছিল ১ উইকেটে ৪০।
দ্বিতীয় উইকেটে ৪৩ রানের জুটি গড়েন দুই বোন সারা ও ক্যাথরিন ব্রাইস। দ্রুত রান তোলার তাড়ায় এরপর উইকেট পড়েছে নিয়মিত বিরতিতে। দু অঙ্ক ছুঁতে পারেনি আর কেউ। ১৪ রানের মধ্যে ৬ উইকেট হারিয়ে লড়াই থেকে ছিটকে পড়ে স্কটিশরা।
লেগ স্পিনার রুমানা আহমেদ আবারও বল হাতে ছিলেন উজ্জ্বল। ১০ রানে নিয়েছেন ২ উইকেট। বাঁহাতি স্পিনে ১৬ রানে দুটি নাহিদা আক্তার।
আগেরবার বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ফাইনালে আইরিশদের কাছেই হেরেছিল বাংলাদেশ। এবার সুযোগ নিজেদের নতুন উচ্চতায় নেওয়ার।