আনোয়ারায় স্বামীর বর্বরতা

চিকিৎসাধীন গৃহবধূর মৃত্যু

সংবাদদাতা, আনোয়ারা

দীর্ঘ পাঁচদিন দগ্ধ শরীর নিয়ে মৃত্যুর সাথে লড়াই করে হার মেনেছে গৃহবধূ শাহিদা আক্তার (২৭)। গতকাল শনিবার দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস’ায় মৃত্যুবরণ করেন। শাহিদা আক্তার আনোয়ারা উপজেলার বারখাইন ইউনিয়নের মৃত নুরুজ্জামানের কন্যা।
গত ১৮ জুন শ্বশুরবাড়িতে যৌতুকের টাকার জন্য স্বামী রাসেলের দেওয়া কেরোসিনের আগুনে অগ্নিদগ্ধ হয়ে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন শাহিদা। এদিকে শাহিদার পরিবার রাসেল ও তার পিতা ঁ
শরীফসহ কয়েকজনকে আসামি করে আনোয়ারা থানায় মামলা দায়ের করেছে।
নিহত শাহিদার চাচাতো ভাই এমদাদ হোসেন বলেন, ২০১০ সালে পারিবারিকভাবে একই এলাকার মো. শরীফের পুত্র কাঠমিস্ত্রি মো. রাসেলের সাথে বিয়ে হয় শাহিদা আক্তারের। বিয়ের তিন বছর পর রাহাত নামে এক পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। এরপর থেকে বিভিন্ন সময় শাহিদা আক্তারকে বাবার বাড়ি থেকে টাকার জন্য মারধর করত। কয়েকবার বাবার বাড়িতেও চলে গিয়েছিল মারধরে আহত হয়ে। পরবর্তী স’ানীয়ভাবে সালিশি বৈঠকের মাধ্যমে শ্বশুরবাড়িতে পাঠানো হয় শাহিদাকে। এরপর কয়েকদিন ভালোভাবে থাকলেও আবারো বাবার বাড়ি থেকে এক লক্ষ টাকা আনার জন্য শ্বশুরবাড়ির লোকজন চাপ দেয়, টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে ১৮ জুন স্বামী রাসেল কেরোসিন দিয়ে শাহিদার শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে শাহিদা মারাত্মকভাবে দগ্ধ হলে পরিবারের লোকজন খবর পেয়ে তাকে আনোয়ারা উপজেলা স্বাস’্য কমপ্লেক্স পরে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ভর্তি করান। চিকিৎসাধীন অবস’ায় গতকাল শাহিদা মারা যান। আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ বলেন, আসামিকে ধরার চেষ্টা চলছে।