জমিয়তুল ফালাহ মসজিদ

রোববার থেকে শুরু হচ্ছে হজ প্রশিক্ষণ

অংশগ্রহণকারী ৮৮১৯ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক

চলতি বছরে হজ গমণেচ্ছুকদের জন্য আগামী রোববার থেকে নগরীতে শুরু হচ্ছে ১১ দিনব্যাপী হজ সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ। দামপাড়াস’ জমিয়তুল ফালাহ মসজিদ ও কমপ্লেক্স মিলনায়তনে (নিচতলা) এ প্রশিক্ষণ ২৪ জুন থেকে ৪ জুলাই পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিদিন সকাল ও দুপুরে দুটি প্রশিক্ষণ টিমের মাধ্যমে ১৮টি ব্যাচে ১১ দিনে হাজি ও গাইডসহ মোট ৮ হাজার ৮১৯ জনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। প্রতিদিন সকাল ৯টা ও দুপুর দুইটা থেকে প্রশিক্ষণ সেশন শুরু হবে। ইসলামিক ফাউন্ডেশন-চট্টগ্রাম কার্যালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
প্রাপ্ত তথ্যমতে, ২৪ জুন সকালের সেশনে
৫৯১ জন ও দুপুরের সেশনে ৪৫০ জন, ২৫ জুন সকালে ৫০০ জন ও দুপুরে ৫১৪ জন, ২৬ জুন সকালে ৪৫০ জন ও দুপুরে ৫২৪ জন, ২৭ জুন সকালে ৫০০ জন ও দুপুরে ৫০০ জন, ২৮ জুন সকালে ৫৬৫ জন ও দুপুরে ৪২৬ জন, ১ জুলাই সকালে ৫০০ জন ও দুপুরে ৫৫২ জন, ২ জুলাই সকালে ৪৪১ জন ও দুপুরে ৪৯৫ জন, ৩ জুলাই সকালে ৪৪৭ জন ও দুপুরে ৪৭৬ জন, ৪ জুলাই সকালের সেশনে ৫৫১ জন ও দুপুরের সেশনে ৩৩৭ জনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।
প্রশিক্ষণ সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য জানার জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশন-চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক মুহাম্মদ মুনিরুজ্জামান, সহকারী পরিচালক মীর মুহাম্মদ নেয়ামত উল্লাহ এবং চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার আবদুস সামাদ সিকদারের সাথে যোগাযোগ করা যাবে। এছাড়াও যেকোনো প্রয়োজনে হজ বিষয়ক কল সেন্টারে ০৯৬০২৬৬৬৭০৭ নাম্বারে যোগাযোগ করা যাবে।
প্রশিক্ষণ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার আবদুস সামাদ সিকদার সুপ্রভাত বাংলাদেশকে বলেন, ‘পুরুষ ও মহিলাদের আলাদা প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। বিভিন্ন হজ এজেন্সির মাধ্যমে যারা নিবন্ধিত হয়েছেন, তারাই প্রশিক্ষণ পাবেন। হজ এজেন্সিগুলোকে আমরা বলে দিয়েছি, তাদের নিবন্ধিত হাজিদেরকে বিষয়টি জানিয়ে দেওয়ার জন্য।’
কি বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘হজে যাওয়ার জন্য পাসপোর্ট, ভিসা, ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়া, প্রশাসনিক নিয়ম-কানুন, কতটুকু মালামাল তারা বহন করতে পারবেন, স্বাস’্যগত দিক, হাজিরা কোনো ধরনের সমস্যায় পড়তে পারেন, কোথায় স্বাস’্যসেবা পাওয়া যাবে, হজের ধর্মীয় নিয়ম-কানুন সম্পর্কে প্রশিক্ষণে আলোচনা করা হবে। ঢাকা থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত আলেম-ওলামাগণ, ডাক্তার ও প্রশাসনিক ব্যক্তিগণ প্রশিক্ষণ দেবেন। প্রশিক্ষণার্থীদের কোনো ধরনের ফি পরিশোধ করতে হবে না।’