কারা আসছেন নেতৃত্বে?

১৩ বছর পর নগর স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

দীর্ঘ ১৩ বছর পর চট্টগ্রাম নগর স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি গঠন হচ্ছে। সপ্তাহ খানেকের মধ্যে কেন্দ্র থেকে নতুন কমিটির ঘোষণা আসতে পারে। ইতোমধ্যে কেন্দ্র নতুন কমিটির নেতৃত্ব অনেকটা চূড়ান্ত করে ফেলেছেন বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।
২০০৫ সালের ৮ জুনে সম্মেলনের মাধ্যমে সৈয়দ আজম উদ্দিনকে সভাপতি ও এসকে খোদা তোতনকে সাধারণ সম্পাদক করে নগর স্বেচ্ছাসেবক দলের দুই সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছিল। অবশ্য এরআগে ১৯৯৫ সাল থেকে এই দুই নেতা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক কমিটির নেতৃত্বে ছিলেন। নতুন কমিটি ঁ ১১ পৃষ্ঠার ৩য় কলাম
গঠনের বিষয়ে এসকে খোদা তোতন গতকাল সুপ্রভাতকে বলেন, ‘নতুন আর পুরাতন মিলে কমিটি হলে ভালো হবে। শুধু নতুন মুখ দিয়ে কমিটি হলে তারা সংগঠনকে গোছাতে পারবে না। নেতৃত্বে পুরাতন কেউ আসলে অভিজ্ঞতার আলোকে সংগঠনকে গোছাতে পারবেন।’
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, নগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি পদ প্রত্যাশা করছেন দুই নেতা। এরা হলেন, আলকরণ ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক শওকত আজম খাজা ও সাবেক নগর ছাত্রদল নেতা তোফাজ্জল হোসেন।
সাধারণ সম্পাদক পদে প্রত্যাশী হলেন নগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলু ও সাংগঠনিক সম্পাদক এইচ এম রাশেদ।
শওকত আজম খাজা সুপ্রভাতকে বলেন, ‘সামনে দলের-আন্দোলন-সংগ্রামের কথা বিবেচনা করে নগর স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি অচিরেই গঠন হওয়া উচিত। কমিটি হলে আন্দোলন আরো চাঙ্গা হবে। ’
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘গত চার বছর ধরে স্বেচ্ছাসেবক দলের নানা কর্মকাণ্ডে সক্রিয় আছি। স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতৃত্বে আসলে নগরীতে জোরালো আন্দোলন-সংগ্রাম গড়ে তুলবো।’
বেলায়েত হোসেন বুলু বলেন, ‘নগরীতে স্বেচ্ছাসেবক দল আছে নামে। সংগঠনটির কোনো কার্যক্রম নেই। নতুন নেতৃত্ব আসলেই সংগঠনটি চাঙ্গা হবে।’
স্বেচ্ছাসেবক দলের নতুন নেতৃত্ব সামনে দলের আন্দোলন-সংগ্রামে সক্রিয় ভূমিকা রাখবে বলে জানান তিনি।