পাষণ্ড স্বামীর কাণ্ড

নিজস্ব প্রতিনিধি, আনোয়ারা

আনোয়ারায় পাষণ্ড স্বামীর দেয়া আগুনে পুড়ে যাওয়া গৃহবধূ শাহিদা আকতার (২৬) চমেক হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। তার শরীরের ৬০ ভাগ পুড়ে গেছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। চমেক হাসপাতালের চিকিৎসকরা ইতিমধ্যে গৃহবধূর চিকিৎসায় অপারগতা প্রকাশ করে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করতে পরিবারের লোকজনতে পরামর্শ দিয়েছেন। কিন’ স্বামীর অনীহার কারণে তাকে ঢাকায় প্রেরণ করা সম্ভব হয়নি।
এ ঘটনায় গৃহবধূর মা সামশুন নাহার বাদি হয়ে গতকাল স্বামী মোহাম্মদ রাসেলসহ (২৮) চারজনকে আসামি করে আনোয়ারা থানায় মামলা দায়ের করেছেন। তবে পুলিশ এখনো কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।
জানা যায়, আট বছর আগে বারখাইন ইউনিয়নের সৈয়দ কুচাইয়া গ্রামের মোহাম্মদ রাসেলের সাথে একই এলাকার শাহিদা আকতারের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে স্বামী মোহাম্মদ রাসেলসহ পরিবারের লোকজন ঁ ১১ পৃষ্ঠার ১ম কলাম
শাহিদাকে যৌতুকসহ বিভিন্ন কারণে-অকারণে নির্যাতন চালিয়ে আসছিলেন। এসব ঘটনায় বেশ কয়েকবার স’ানীয় ইউনিয়ন পরিষদসহ আনোয়ারা থানায় একাধিক সালিশ-দরবার অনুষ্ঠিত হয়। গত ১৮ জুন রাত ৯টায় গৃহবধূ শাহিদা আকতারকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন মারধর শুরু করে। একপর্যায়ে গৃহবধূর স্বামী মোহাম্মদ রাসেল ঘরের দরজা বন্ধ করে শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে তার শরীরের বেশিরভাগ অংশ আগুনে ঝলসে যায়। পরে তার আর্তচিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে উদ্বার করে প্রথমে আনোয়ারা হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে তাকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেন। চমেক হাসপাতালে চিকিৎসকরাও তার চিকিৎসায় অপারগতা প্রকাশ করে দ্রুত ঢাকায় নিয়ে যেতে পরামর্শ দেন। তবে স্বামীর অনীহার কারণে তাকে এখনো উন্নত চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হয়নি।