ভারতে আরও এক স্বঘোষিত ধর্মগুরুর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ

সুপ্রভাত বহির্বিশ্ব ডেস্ক
india

ভারতে আরও এক স্বঘোষিত ধর্মগুরুর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। গত রোববার দাতী মহারাজ নামের ওই ‘ধর্মগুরু’ ও তার দুই পুরুষ শিষ্যের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন তারই এক শিষ্যা। ২৫ বছর বয়সী ওই শিষ্যার অভিযোগ, প্রায় ২ বছর আগে মন্দিরের মধ্যে তাকে ধর্ষণ করেছিলেন দাতী মহারাজ। পুলিশকে উদ্ধৃত করে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, এ অভিযোগের ভিত্তিতে ওই ধর্মগুরুর বিরুদ্ধে আইপিসি ৩৫৪, ৩৭৬ এবং ৩৭৭ ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। একই অভিযোগে স্বঘোষিত ধর্মগুরু রাম রহিম ও আসারাম বাপু বর্তমানে কারাগারে আছে। খবর বাংলাট্রিবিউনের।
দিল্লি এবং সংলগ্ন অঞ্চলসহ প্রায় সারা উত্তর ভারতেই স্বঘোষিত ধর্মগুরু দাতী মহারাজের প্রচুর শিষ্য রয়েছেন। দিল্লির মেহরুলি অঞ্চলের ফতেহপুর বেরিতে শান্তিধাম আশ্রম ছাড়াও দক্ষিণ দিল্লিতে বিশাল খামারবাড়ি আছে দাতী মহারাজের। প্রতি বৃহস্পতি ও শনিবার তার আধ্যাত্মিক বক্তৃতা শুনতে কয়েক হাজার ভক্ত সমাগম হয় শান্তিধাম আশ্রমে। বিভিন্ন জাতীয় টিভি চ্যানেলে নিয়মিত ধর্মালোচনাভিত্তিক অনুষ্ঠান করেন তিনি। তার নিজস্ব ওয়েবসাইটও আছে।
৮ জুন দাতী মহারাজের এক শিষ্যা অভিযোগ করেন, নিজের প্রতিষ্ঠিত শান্তিধাম আশ্রমের মন্দিরের ভিতর দু’বছর আগে তাকে ধর্ষণ করেছিলেন দাতী মহারাজ। তারপর তাকে হুমকি দিয়েছিলেন সেকথা কাউকে না জানাতে। ওই ঘটনার পর আশ্রম থেকে পালিয়ে আসেন শিষ্যা। দীর্ঘদিন ধরে মানসিক যন্ত্রণায় ভুগছিলেন তিনি। ট্রমা কাটিয়ে সুস’ হওয়ার পর মা-বাবার কাছে সবকিছু খুলে বলেন। এরপর মামলা দায়ের করেন তারা।

ওই শিষ্যার অভিযোগ, আরও অনেক মেয়েই দাতী মহারাজের যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছেন। তার বাবার অভিযোগ, দু’বছর আগে মহারাজের দায়িত্বে মেয়েকে আশ্রমে রেখে বিশেষ কাজে অন্যত্র গিয়েছিলেন তিনি ও তার স্ত্রী। সে সময়ই ঘটে ওই ঘটনা।
পুলিশ জানিয়েছে, দাতী মহারাজ ছাড়াও আরও তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। দক্ষিণ দিল্লি পুলিশের ডিস্ট্রিক্ট ইনভেস্টিগেশন ইউনিট তদন্তে নেমেছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য অভিযুক্ত ওই মহারাজকে সমন পাঠানো হবে বলেও জানা গেছে।