এবার ইরানকে বাগে আনার আশা ট্রাম্পের

সুপ্রভাত বহির্বিশ্ব ডেস্ক

একের পর এক পরমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়ে কোরীয় উপদ্বীপে আতঙ্ক ছড়িয়ে যাওয়া কমিউনিস্ট শাসিত উত্তর কোরিয়াকে বাগে আনলেন মঙ্গলবার, ঐতিহাসিক নথি স্বাক্ষরের মাধ্যমে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এবারের আশা হচ্ছে ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানকে বাগে আনার। সিঙ্গাপুরে তার ম্যারাথন সংবাদ সম্মেলনের বক্তব্যেও দিয়েছেন সেই ইঙ্গিত। খবর অর্থসূচক।
উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে যৌথ নথিতে স্বাক্ষরের পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেছেন, তিনি এখন যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘদিনের শত্রু ইরানের সঙ্গে একটি বাস্তব চুক্তি চান। আর এই চুক্তিতে তিনি পৌঁছাতে চান শিগগিরই। বার্তাসংস’া রয়টার্স জানায়, ট্রাম্পের ওই ম্যারাথন সংবাদ সম্মেলন চলে প্রায় এক ঘণ্টা পাঁচ মিনিট। এ সময় এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে মার্কিন এই প্রেসিডেন্ট বলেন, যথাসময়ে ইরানের সঙ্গেও সম্পর্কের উন্নতি ঘটবে আমি বিশ্বাস করি। আমি আশা করছি, তারা ফিরে আসতে যাচ্ছে এবং একটি বাস্তব চুক্তির ব্যাপারে আলোচনায় বসবে। কারণ, আমরা এটা করতে সক্ষম হবো।
ইরানের সঙ্গে কখন চুক্তি হতে পারে, এমন প্রশ্নের জবাবে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, আমি আশা করছি, যথোপযুক্ত সময়ে, নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর কিন’ এই সময়ে এটা করা হলে তা খুব তাড়াতাড়ি হবে।
ট্রাম্প বলেন, আমি মনে করি এই দেশটি (ইরান) তিন চার মাস আগে যে রকমের ছিল, এখন তার চেয়ে ভিন্ন। ভূমধ্যসাগরে এবং সিরিয়ায় তারা আগে যে ধরনের আত্মবিশ্বিাসী ছিল; এখন সেটি খুব দৃঢ় দেখা যাচ্ছে না। এই মুহূর্তে তারা দুর্বল হয়ে পড়েছে।
চলতি বছরের মে মাসে পূর্বসূরী প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার আমলে স্বাক্ষরিত ছয় বিশ্বশক্তির চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করে নেয়ার ঘোষণা দেন ট্রাম্প। একই সঙ্গে ইরানের বিরুদ্ধে আরো নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

ট্রাম্প-কিমের যৌথ চুক্তির পর যুক্তরাষ্ট্রকে বিশ্বাস না করতে উত্তর কোরিয়াকে সতর্ক করে দিয়েছে ইরান। তেহরান বলছে, যেকোনও মুহূর্তে পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ চুক্তি বাতিল করতে পারে যুক্তরাষ্ট্র।