মতবিনিময় সভায় জানালেন চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম

পণ্যবাহী গাড়ির ওজন নিয়ন্ত্রণ রমজানে শিথিল হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
Chamber_Ramadan-16-05-18

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের এক্সেলে ওজন নিয়ন্ত্রণ শিথিল রাখার জন্য সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং সচিবের সাথে যোগাযোগ করছে চিটাগং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি। ওজন নিয়ন্ত্রণযন্ত্রটি শিথিল হলে রমজানে ভোগ্যপণ্য পরিবহনে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে জানান চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম।
চিটাগং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির আয়োজনে রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের মূল্য, যানজট ও আইনশৃঙ্খলা পরিসি’তি স্বাভাবিক রাখতে গতকাল আগ্রাবাদস’ ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কক্ষে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় তিনি এসব কথা জানান।
তিনি বলেন, ‘এক্সেল শিথিল করলে ভোগ্যপণ্য পরিবহনের ব্যয় ও বন্দরের কন্টেইনার জট হ্রাস পাবে এবং রপ্তানিমুখী শিল্পের পণ্য পরিবহনে গতিশীলতা আসবে। আমি
মন্ত্রী ও সচিবের সাথে টেলিফোনে কথা বলেছি। উনারা আমাকে ওজন নিয়ন্ত্রণ শিথিল করার আশ্বাস দিয়েছেন। দুই-তিনদিনের মধ্যে এটি কার্যকর হবে বলে আশা করি। এটি হলে দেশের কোনো অঞ্চলে পণ্যের কৃত্রিম সংকট হবে না।
তিনি ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে বলেন, ‘রমজানে ভোগ্যপণ্যে যাতে কৃত্রিম সংকট না হয় সেদিকে ব্যবসায়ী নেতাদের নজর রাখতে হবে। এতে সরকার ও দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়। বিশ্বের সব দেশে উৎসবে ছাড় দেওয়া হয়। চেম্বার রমজানে ভর্তুকি মূল্যে চাল ও চিনি বিক্রি করবে। এতে নিম্নআয়ের মানুষ কিছুটা স্বস্তি পপবে। প্রতিটি করপোরেট হাউস এ ধরনের উদ্যোগ নেবে বলে আশা করি।’
তিনি আরো বলেন, ‘পচনশীল পণ্যের দাম কেন বাড়বে? প্রশাসন একা এটি পারবে না। ব্যবসায়ী নেতাদের সহযোগিতা করতে হবে। এছাড়া রমজানে পচা-বাসি কোনো খাবার যাতে বিক্রি না হয় সেদিকেও নজর রাখতে হবে।’
অনুষ্ঠানে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনার মাসুদ-উল-হাসান প্রধান অতিথি হিসেবে উপসি’ত ছিলেন। তার বক্তব্যে তিনি যানজট নিয়ন্ত্রণ ও নিরাপত্তা প্রসঙ্গে কথা বলেন।
তিনি বলেন, ‘দূরপাল্লার বাস সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত এবং পণ্যবাহী গাড়ি সকাল ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত নগরে চলাচল করতে পারবে না। ঈদের সময় মহাসড়কে পণ্যবাহী গাড়ি চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকবে। এ সময়টাতে বন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে বেসরকারি কনটেইনার ডিপোর গাড়ি যাতে বন্দরের অফডকে চলাচল করতে পারে সে উদ্যোগ নেয়া হবে।’
নগরীর ফুটপাতে ইফতার বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ফুটপাতে ইফতার বাজার বসানো যাবে না। তবে রাস্তার পাশে বড় কোনো খালি জায়গায় ইফতার বিক্রি করা যাবে। রমজানে যানজট নিরসনে নগরীর রাস্তায় কোনো হকার বসতে পারবে না। রাস্তায় গাড়ি পার্কিং করা যাবে না।’
ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘পণ্য কেনার পর কোনো সমস্যা হলে ক্রেতারা পণ্য ফেরত দিতে যান। ঈদ মৌসুমে শোরুম ও বিপণি কেন্দ্রগুলোকে গ্রাহকের প্রয়োজনে পণ্য ফেরত নিতে হবে। বড় বড় অনেক শোরুমে পণ্য ফেরত নেয়ার আলাদা কাউন্টার থাকে। সেখানেও যাতে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে।’
নারীদের নিরাপত্তাজনিত সমস্যা এড়াতে নারী সিকিউরিটি রাখার প্রস্তাব দিয়ে তিনি বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা উদ্যেগ নিয়ে নারী সিকিউরিটি রাখতে পারেন। বখাটেদের উৎপাত ঠেকাতে পুলিশ থাকবে। রমজানে মহিলারা মার্কেটে যান। তাই মার্কেটের কেনাকাটায় প্রয়োজন নারীবান্ধব পরিবেশ।’
মতবিনিময় সভায় চেম্বারের পরিচালকবৃন্দসহ নগরীর ব্যবসায়িক নেতারা উপসি’ত ছিলেন।