বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনকালে মার্ক গ্রীন

বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে হবে

নিজস্ব প্রতিনিধি, উখিয়া

যুক্তরাষ্ট্র উন্নয়ন সংস’া ইউএসআইডি এর প্রশাসক মার্ক গ্রীন বলেছেন, বাস’চ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী এখন বিশ্বের সবচেয়ে বড় মানবিক সংকট। এ সংকট থেকে উত্তোরণের জন্য দ্রুত সময়ের মধ্যে রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য কাজ শুরু করতে হবে। পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের রাখাইনে স্বাভাবিক জীবনযাপনের নিশ্চয়তা দিতে হবে মিয়ানমারকে। মঙ্গলবার বিকেল ৪টার দিকে উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন, রোহিঙ্গাদের সাথে খোলামেলা আলোচনাসহ রোহিঙ্গাদের সার্বিক পরিসি’তি পর্যাবেক্ষণ শেষে সাংবাদিকদের প্রেস ব্রিফিংকালে তিনি এসব কথা বলেন। মার্ক গ্রীন আরো বলেন, বাস’চ্যুত রোহিঙ্গাদের বসতভিটায় ফিরিয়ে নিতে হবে। তাদের অধিকার দিয়ে স্বাভাবিক বসবাসের সুযোগ সৃষ্টিসহ তাদের ব্যাপারে মিয়ানমারকে নিশ্চয়তা দিতে হবে। তাহলে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের বিষয়টি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র কাজ করবে।
প্রেস ব্রিফিংয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের জনসংখ্যা অভিবাসন বিষয়ক উপ-সহকারী মন্ত্রী মার্ক ষ্টোরেলা বলেন, বিশ্বের সর্ববৃহৎ মানবিক দাতা হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের দু’পাশে জরুরি প্রয়োজন মেটাতে সক্রিয়ভাবে সাড়া দিচ্ছে। গত বছরের আগস্ট থেকে এ পর্যন্ত রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে ইউএসআইডি প্রায় ১০০ মিলিয়ন ডলার সহায়তা প্রদান করেছে। তিনি বলেন, কক্সবাজার ও পাশ্ববর্তী অঞ্চলে শরণার্থীদের জন্য জরুরি খাদ্য সহায়তা প্রদানের জন্য অতিরিক্ত ৪৪ মিলিয়ন ডলার মানবিক সহায়তা প্রদান করেছে। এই তহবিলের মাধ্যমে মিয়ানমারের রাখাইন, শান ও কাচিন রাজ্যের চলমান সংঘাতের কারণে ক্ষতিগ্রস’ লক্ষাধিক মানুষের জন্য খাদ্য, পুষ্টি সহায়তা, আশ্রয়, স্বাস’্যসেবা ও অন্যান্য অত্যাবশ্যকীয় সাহায্য প্রদান করা হবে।
প্রেস ব্রিফিংয়ে বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শাল বার্নিকাট বলেন, মিয়ানমার সামরিক জান্তার পৈশাচিক নির্যাতনের শিকার হয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় ও মানবিক সেবা দিয়ে বাংলাদেশ সরকার বিশ্বে বিরল দৃষ্টান্ত স’াপন করেছে। এ জন্য তিনি যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস’া (ইউএসআইডি) এদেশে রোহিঙ্গা আগমনের শুরু থেকে সার্বিকভাবে মানবিক সাহায্য সহযোগিতা প্রদান করে আসছে। তিনি বলেন, যতদিন রোহিঙ্গারা স্বদেশে ফিরে যেতে না পারে ততদিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের পাশে থেকে রোহিঙ্গাদের সহায়তা প্রদান করে যাবে।
বেলা ১২টার দিকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদল বালুখালী টিভি টাউওয়ার সংলগ্ন রোহিঙ্গা ট্রানজিট ক্যাম্প পরিদর্শন করেন। সেখানে বেশ কিছুক্ষণ কর্মরত কর্মকর্তাদের সাথে রোহিঙ্গা পরিসি’তি নিয়ে বিভিন্ন দিক নির্দেশনামূলক আলোচনা করেন। সেখান থেকে প্রতিনিধিদল দুপুর ১টায় নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তের ঘুমধুম কোনারপাড়া শূন্যরেখায় আশ্রিত রোহিঙ্গাদের পরিসি’তি ঘুরে দেখেন। এসময় ৩৪ বিজিবি’র অধিনায়ক লে. কর্নেল মনজুরুল হাসান খান যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসা প্রতিনিধিদলকে রোহিঙ্গাদের সার্বিক পরিসি’তি সম্পর্কে অবহিত করেন। সেখানে বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গা নেতার সাথে প্রতিনিধিদল কথা বলেন। প্রতিনিধিদলের সাথে কি কথা হয়েছে জানতে চাইলে রোহিঙ্গা নেতা দিল মোহাম্মদ জানান, বর্ষার সময় এসব রোহিঙ্গারা যেন নিরাপদে থাকতে পারে সে ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের উন্নয়ন সংস’া ইউএসআইডি’র সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। এছাড়াও রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত নিতে হলে তাদের পূর্ণ নাগরিকত্বসহ যাবতীয় সুযোগ সুবিধা প্রদানের নিশ্চয়তা মিয়ানমারকে দিতে হবে বলে প্রতিনিধিলের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।