রমজান

আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশকে সহায়তার আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক

আসন্ন রমজান উপলক্ষে নগর পুলিশের সাথে সার্বিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণকল্পে চট্টগ্রামের চেম্বার, ব্যবসায়ী, আমদানিকারক, দোকান মালিক ও হকার্স সমিতি এবং পরিবহন মালিক-শ্রমিক নেতৃবৃন্দের সাথে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে নগরের দামপাড়া পুলিশ লাইনে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) মাসুদ উল হাসানের সভাপতিত্বে সভায় রমজান ও ঈদুল ফিতর সামনে রেখে খাদ্যদ্রব্যসহ ভোজ্যতেলের বাজার নিয়ন্ত্রণে জন্য করণীয়, মার্কেটে চুরি, ছিনতাই, চাঁদাবাজি, বখাটেপনা রোধ, বিভিন্ন মার্কেট ও শপিং মলে সিসিটিভির ব্যবস’া করা, অগ্নিনির্বাপক ব্যবস’াসহ মার্কেট ও বাণিজ্যিক এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস’া, কমিউনিটি পুলিশি ব্যবস’া, ক্রেতা সাধারণের নিরাপত্তা ব্যবস’া,
যানজট নিরসন সংক্রান্তে করণীয়, পার্কিং ব্যবস’াসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করা হয়।
সভায় নগরের বিভিন্ন ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ তাদের নিজ নিজ এলাকায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে পুলিশি সহায়তা কামনা করে বক্তব্য রাখেন। সভায় ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের সুপারিশ ও প্রস্তাবনা সব ধরনের পুলিশি সহায়তা প্রদান করা হবে বলে জানান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মাসুদ উল হাসান। এসময় তিনি বলেন, ‘রমজানে সবকটি বড় মার্কেটে পুলিশি প্রহরা থাকবে এবং ছিনতাইকারীর তৎপরতা প্রতিরোধে পুলিশ মোতায়েন থাকবে।’ এছাড়া সভায় আইনশৃঙ্খলা পরিসি’তি নিয়ন্ত্রণে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দকে প্রতিটি মার্কেটে সিসি টিভি ক্যামেরা স’াপন ও প্রতিটি মার্কেট কর্তৃপক্ষকে নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস’া জোরদার, যান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে রমজান মাসে বড় দোকানের সামনে ভাসমান দোকান না রাখার জন্য ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার। এছাড়া সভায় পণ্য মূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখা, প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য তালিকা দোকানে ঝুলিয়ে রাখা, রমজান মাসে হকাররা ফুটপাতের এক তৃতীয়াংশের বেশি জায়গা দখল না করা এবং যানজট নিরসনে প্রতিটি মার্কেটে আলাদা পার্কিং ব্যবস’া করার পাশাপাশি ট্রাফিক পুলিশকে সহায়তা করার জন্য ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের প্রতি সিএমপির এ শীর্ষ কর্মকর্তা।
সভায় অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) কুসুম দেওয়ান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অপারেশন) আমেনা বেগম, উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) শ্যামল কুমার নাথ, উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তর) হারুন-উর-রশিদ হাযারী, উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-বন্দর) ফাতিহা ইয়াছমিন, উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মো. আব্দুল ওয়ারীশ, উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) এস.এম. মোস্তাইন হোসেন, উপ-পুলিশ কমিশনার (পশ্চিম) মো. ফারুক উল হক, উপ-পুলিশ কমিশনার (বন্দর) সৈয়দ আবু সায়েম, উপ-পুলিশ কমিশনার (সিএসবি) মো. মোখলেছুর রহমান, উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি-উত্তর) হাসান মো. শওকত আলী, সংশ্লিষ্ট জোনের সকল অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার, সকল সহকারী পুলিশ কমিশনার, র্যাব, সিআইডি, হাইওয়ে পুলিশ, এপিবিএন, পিবিআই, বিভিন্ন থানার ওসি, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন, ওয়াসা, চট্টগ্রাম চেম্বার, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, পরিবহন মালিক-শ্রমিক এবং দোকান মালিক সমিতি ও হকার্স সমিতির নেতৃবৃন্দ উপসি’ত ছিলেন।