চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জে ইডিইউ শিক্ষার্থীরা

বিজ্ঞপ্তি

শেয়ার বাজার নিয়ে শিক্ষার্থীদের উৎসাহের কমতি নেই। পাঠ্যবইয়ের বাইরে বড় পরিসরে এতোদিন তাদের ভালো-মন্দ জানার সুযোগ ছিল ক্যান্টিনে কিংবা বন্ধুদের আড্ডায়। কিন’ পুঁজি বাজার নিয়ে বাস্তব ও ব্যবহারিক ধারণা পেয়ে নতুনভাবে যেন স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন ভবিষ্যৎ উদ্যোক্তারা।
সম্প্রতি ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির (ইডিইউর) স্কুল অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের ৭৬ জন শিক্ষার্থী প্রফেসর এ কাইয়ূম চৌধুরীর নেতৃত্বে স্টাডি ট্যুরে চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জ কার্যালয় ঘুরে এসেছেন।
তারা কথা বলেছেন প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তাদের সঙ্গে। জানতে চেয়েছেন নানা প্রশ্নের জবাব। পরে পুঁজি বাজারের পরিচিতি, লেনদেন প্রক্রিয়া, বিনিয়োগ সুবিধা, ঝুঁকিসহ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো তুলে ধরতে সেমিনারের আয়োজন করে স্টক একচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ।
অনুষ্ঠানে ইডিইউর শিক্ষক প্রফেসর এ কাইয়ূম চৌধুরী বলেন, শেয়ার মার্কেট বা পুঁজিবাজার নিয়ে ব্যবহারিক কোনো জ্ঞান না থাকায় এই সেক্টরে অনেক সম্ভাবনা থাকার পরও আমরা পিছিয়ে পড়ছি।
তিনি আরও বলেন, তরুণ বিনিয়োগকারীরা শেয়ার বাজারে তাদের মেধা, দক্ষতা ও গবেষণা দিয়ে নানামুখী চ্যালেঞ্জকে অতিক্রম করে নিজেদের সাফল্য তুলে ধরছেন। চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এম সাইফুর রহমান মজুমদার বলেন, যে কোনো ব্যবসায় পুঁজি ও ঝুঁকি দুটোই রয়েছে। শেয়ারে বাজারও এর ব্যতিক্রম নয়। দুটো বিষয়কেই তাই গুজবে কান না দিয়ে জয় করতে হবে।
প্রতিষ্ঠানটির ডিজিএম সোনিয়া হোসেন বলেন, শেয়ার বাজার নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় পড়-য়া শিক্ষার্থীদের তথ্যের গভীরে গিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার অনেক সুযোগ তৈরি হয়েছে। এই সেক্টরে তারা এগিয়ে এলে পুঁজি বাজারে বাংলাদেশের চেহারা বদলে যাবে।
অ্যাসিসটেন্ট জেনারেল ম্যানেজার অ্যান্ড হেড অব ট্রেনিং ডেভেলপমেন্ট আরিফ আহমেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য দেন ডিজিএম সোনিয়া হোসেন, ম্যানেজার মো. শহীদুল্লাহ, সিনিয়র অফিসার মাহফুজ মোরশেদ প্রমুখ।
সেমিনারে শেয়ার বাজারের নানাদিক তথ্যচিত্র আকারে তুলে ধরা হয়। যার ভিতর ছিল প্রাইমারি ও সেকেন্ডোরি শেয়ার, লভ্যাংশের হার, সংরক্ষিত আয়, অর্থনীতি, বাজার প্রত্যাশা, প্রচারণা, চাহিদা ও সরবরাহ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, শিল্পখাতের চিত্রসহ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো। সরজমিনে স্টক একচেঞ্জ কার্যালয় পরিদর্শন করে ভীষণ উচ্ছ্বসিত ইডিইউর স্কুল অব বিজনেসের শিক্ষার্থীরা। সামিহা ইকবাল নামের এক ছাত্রী বলেন, শেয়ার বাজারের বিষয়টি আমাদের সিলেবাসের সঙ্গে সম্পৃক্ত। এতোদিন এই নিয়ে অনেক জ্ঞান অর্জন করলেও বাস্তবে কীভাবে কাজ হয় তা দেখার সুযোগ হয়নি। এবার অনেক অভিজ্ঞতা হল।
রবিউল হাসান চৌধুরী নামের অপর এক ছাত্র বলেন, আমি মনে করি একটি ভালো কোম্পানিকে তুলে ধরতে হলে শেয়ারে বাজারে বিনিয়োগ করতে হবে। তবে এই সেক্টরে ভালো বিনিয়োগকারী হতে হলে গবেষণার কোনো বিকল্প নেই বলে জানান মেধাবী এই শিক্ষার্থী।