পান-মসলা কোম্পানির কাছে প্রতারিত ‘জেমস বন্ড’

বিনোদন প্রতিবেদক

অভিনেতা জানিয়েছেন ‘ক্ষতিকর’ পণ্যটি সম্পর্কে তাকে অন্ধকারে রেখে কোম্পানি তার সঙ্গে ‘প্রতারণা’ করেছে। জেমস বন্ড প্রতারিত! হলিউডের রূপালি পর্দায় অন্যদের বিপদ থেকে উদ্ধারকারী নিজেই পড়েছেন অন্ধকারে । সাবেক জেমস বন্ড তারকা পিয়ার্স ব্রসনান ভারতীয় তামাকজাত পণ্যের বিজ্ঞাপন করে বেশ বিতর্কে রয়েছেন । ভারতের আইনে তামাক ও তামাকজাত পণ্যের বিজ্ঞাপনে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সেই কারণে, গত ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি, হলিউড অভিনেতা পিয়ার্স ব্রসনানের কাছে তামাকজাত পণ্য পান বাহারের বিজ্ঞাপনে তার ছবি থাকার কারণে বিষয়টির ব্যাখ্যা চেয়েছিল দিল্লির স্বাস’্য বিভাগ । টাইমস অব ইন্ডিয়া সূত্রে জানা গেছে, পিটিআইকে উপস্বাস’্য অধিকর্তা এস. কে. অরোরা বলেছেন, “দিল্লি স্টেট টোবাকো কন্ট্রোল সেল-কে লিখিতভাবে অভিনেতা জানিয়েছেন, এই ‘বিপজ্জনক’ পণ্যটি সম্পর্কে তাকে বিশদে না জানিয়ে কোম্পানি তার সঙ্গে প্রতারণা করেছে।” “পিয়ার্স ব্রসনানকে পাঠানো আইনি নোটিশের উত্তরে অভিনেতা আরও লিখেছেন যে, তার সঙ্গে এই কোম্পানির চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। তিনি বরং এই ধরনের ক্ষতিকর পণ্যের বিরুদ্ধে প্রচারণার জন্য স্বাস’্য বিভাগকে সব ধরনের সাহায্য করতে প্রস্তুত।” অরোরা আরও বলেন, “লিখিতভাবেই ব্রসনান জানিয়েছেন ভবিষ্যতে এই ধরনের ক্ষতিকর কোনো পণ্যের প্রচারে তিনি যুক্ত থাকবেন না ।” “সেলিব্রেটিরা নিশ্চই বোঝেন সমাজের প্রতি তাদের দায় কতটা । বিশেষত তরুণরা তাদেরকে অন্ধের মতো অনুসরণ করে । ফলে এ ধরণের বিজ্ঞাপন তরুণদের মস্তিষ্কে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি করবে ।” এস কে অরোরা বলেন । ২০০৩ সাল থেকেই ভারতে সিগারেট বা তামাকজাত সবধরণের পণ্যের প্রচার নিষিদ্ধ । বিবিসি জানায়, পান মসলা ও গুটকার সঙ্গে ক্যান্সারের যোগ থাকায় ভারতের বহু অঙ্গরাজ্যেই এগুলোর বিক্রি বন্ধ। সাধারণ জনগণ যেন না কেনে সেজন্য পণ্যগুলোর ব্যবহার অনুৎসাহিত করে প্রচারও চালিয়ে আসছে সে দেশের সরকার।