লন্ডনে বিমানের কার্গো পরিবহন শুরু আজ

সুপ্রভাত ডেস্ক

দুই বছর পর যুক্তরাজ্যে কার্গো পরিবহন শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ বিমান। কার্গো পরিবহন শুরুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের জনসংযোগ শাখার জিএম শাকিল মেরাজ বলেন, ‘দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর বুধবার ঢাকা থেকে লন্ডনে সরাসরি কার্গো পরিবহন শুরু হবে। ‘সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে বিমানের বিজি-০০১ কার্গো ফ্লাইটটি লন্ডনের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়ে যাবে।’
যুক্তরাজ্যের কার্গো নিরাপত্তামান বিষয়ক এসিসি৩ অডিট সনদ অর্জন করায় কার্গো পরিবহনের পথ খুলেছে।
নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে ২০১৬ সালের ৮ মার্চ ঢাকা থেকে সরাসরি কার্গো ফ্লাইটের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় যুক্তরাজ্য। এ কারণে যুক্তরাজ্যে যাওয়ার আগে তৃতীয় কোনো একটি বিমানবন্দরে বাংলাদেশের কার্গো পরীক্ষা করে নেওয়া হয়। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের কথা জানান ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের হাই কমিশনার অ্যালিসন ব্লেইক। নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কার্গো আমদানি-রপ্তানি শাখার নিরাপত্তা ব্যবস’া ইউরোপিয় ইউনিয়নের মানে নিতে উদ্যোগ নেওয়া হয়।
যার আওতায় ইউরোপগামী কার্গো পণ্যের সেকেন্ডারি স্ক্রিনিংয়ের জন্য এক্সপ্লোসিভ ডিটেক্টর সিস্টেম (ইডিএস), এক্সপ্লোসিভ ডিটেকশন ডগ (ইডিডি), এক্সপ্লোসিভ ট্রেস ডিটেক্টর (ইডিটি) মেশিন স’াপন করা হয়। ইউরোপগামী সব কার্গো পণ্যের জন্য বিশেষভাবে সুরক্ষিত ওয়্যারহাউজ নির্মাণ করা হয় এবং ওয়্যারহাউজে বিমানকর্মী ছাড়া বহিরাগতদের প্রবেশ বন্ধ করা হয়। এছাড়া বিমানের কার্গো হ্যান্ডেলিংয়ে নিয়োজিত কর্মীদের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স, ব্যাকগ্রাউন্ড চেক, ট্রেনিং রেকর্ড, বৈধ পাস, নিয়োগ সংক্রান্ত সকল তথ্য নিয়ে ডেটাবেজ তৈরি করা হয়। কার্গো এলাকার সব প্রবেশপথে একসেস কন্ট্রোল সিস্টেম চালু করা হয়। বিমানবন্দরের অ্যাপ্রোন এলাকায় ওয়ারহাউজ থেকে এয়ারক্রাফট কার্গো পরিবহন পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টা সার্বক্ষণিক পাহারার জন্য পাঁচটি গাড়ি নিয়োজিত করা হয়েছে। এই নিষেধাজ্ঞা থেকে বেরিয়ে আসতে ঢাকা বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস’ার উন্নয়নে ব্রিটিশ কোম্পানি রেডলাইনকে নিয়োগ দিয়েছিল সরকার।