কাগজ ও নদী : পরিবেশের অপরিমেয় ক্ষতি

মোহাম্মদ মুনীর চৌধুরী

নথির পাহাড় অফিসে অফিসে, নথি মানেই কাগজের স্তূপ। প্রযুক্তির উৎকর্ষেও কাগজের ব্যবহার সীমিত হচ্ছে না। নথি ব্যবস’াপনা অফিসের মেরুদণ্ড, কিন্ত রিমে রিমে কাগজ কিনে অফিস হয়ে যাচ্ছে কচুরি পানা ভর্তি দীঘির মত। সারি সারি কম্পিউটারের সমান্তরালে চলছে বস্তায় বস্তায় কাগজের ব্যবহার। নথিতে জমে থাকা অদৃশ্য শত্রু ডাস্ট, এতে সৃষ্টি হয় এ্যাজমা, ব্রংকাইটিসের মত মারাত্মক স্বাস’্যঝুঁকি, অন্যদিকে নথি চালাচালিতে সৃষ্টি হয় স্নায়বিক চাপ। নথি ঘিরে ঘটছে পোকামাকড়, ইঁদুর ও বিভিন্ন অণুজীবের বংশ বিস্তার। শুধুমাত্র নথিতে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট হারানোয় এক সরকারি দপ্তরের কাছে পাওনা অর্থ পেতে ৭ বছরে বিপুল শ্রম, অর্থ, সময় ও ঘাম ঝরিয়ে অন্তত ২০০ বার অফিসে ছুটেছেন সংশ্লিষ্টরা।
ই-মেইলে বার্তা বা মোবাইলে মেসেজ প্রেরণের পরও বাহক দিয়ে এক অফিস থেকে আরেক অফিসে পাঠাতে হয় চিঠি। ওয়েব সাইটে তথ্য প্রদানের পরও পৃথকভাবে সংবাদপত্রে ছাপাতে হয় বিপুল অর্থ ব্যয়ে বিজ্ঞপ্তি। বিদ্যুৎ সেক্টরে এক প্রতিষ্ঠানের ২ বছরে ৫০টি বোর্ড সভার কার্যবিবরণীর জন্য কাগজ লেগেছে সোয়া ২ লাখ পৃষ্ঠা (৪৫০ রীম), সভা শেষে ৯০% কাগজের গন্তব্য আস্তাকুঁড়ে। অপর এক সংস’ায় এক বছরে লেগেছে ৫৯৭ রিম কাগজ। রোবটিক যুগে অগ্রসরমান পৃথিবীকে আমরা ভরে দিচ্ছি কাগজে।
রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের সদর দপ্তরে ১৯০০ সাল হতে ভূ সম্পত্তি সংক্রান্ত নথি পড়ে আছে। হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের এক আঞ্চলিক অফিসে ৪০ বছরের বেশি পুরনো ভলিউম রক্ষিত, অথচ ডাটাবেজ নেই। এভাবে অগণিত নথি সৃষ্টি করছে সম্পদ ও সময় অপচয়ের সংস্কৃতি। গুরুত্বপূর্ণ রেকর্ড ডিজিটাল আর্কাইভভুক্ত করে অপ্রয়োজনীয় নথির পাহাড় আইনি প্রক্রিয়ায় ধ্বংস করে রিসাইক্লিং-এ পাঠানো না হলে কাগজে একদিন ভরে যাবে ১ লাখ ৪৭ হাজার ৫৭০ বর্গ কিলোমিটারের বাংলাদেশ।
তাই কাগজের ব্যবহার হ্রাস এবং কাগজ উৎপাদন রিসাইক্লিং এর আওতায় না আনলে প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষা করা যাবে না। কারণ কাগজ উৎপাদনে প্রয়োজন বিপুল পরিমাণ কাঁচামাল (পাল্প, বনজ বাঁশ, গাছ) এবং বিদ্যুৎ ও পানি। এতে অনিবার্যভাবে আক্রান্ত হচ্ছে হাইড্রোলজি, টপোগ্রাফি, মেটোরিওলজি এবং সর্বাংশে প্রকৃতি। যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় পাল্প ও কাগজ ৩য় বৃহত্তম শিল্প দূষণকারী, এতে প্রতি বছর ১০০ মিলিয়ন কেজি বিষাক্ত বর্জ্য তৈরি হয়। এছাড়া বিশ্বব্যাপী কাগজ ও পাল্প কারখানা ৫ম বৃহত্তম জ্বালানি সম্পদ ভোগকারী। কাগজ উৎপাদনে নির্গত হয় নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইড, সালফার ডাই অক্সাইড এবং কার্বন ডাই অক্সাইড, যা’ এসিড বৃষ্টি, বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি সৃষ্টি করছে।
সমীক্ষায় দেখা গেছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উইসকনসিনে কাগজ কারখানাগুলো কর্মসংস্থানে যত বিশাল ভূমিকা রেখেছে, তার বিপরীতে ঐ এলাকার নদীগুলো দূষিত বর্জ্যে বিষাক্ত হয়ে পড়েছে। একই ভাবে চীনের ইয়েলো নদীর অদূরে একটি হ্রদের পাড়ে দুই কাগজ কলের ভয়ানক দূষণে হ্রদটির পানি সয়াসসের রঙ ধারণ করে। এক সময় অতিবর্ষণে হ্রদটি ফুলেফেঁপে এক গ্রামের ৫৭ টি বাড়ি তলিয়ে যায়। এমন দুর্ঘটনার শংকা আমাদের দেশেও আছে। বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ বিধিমালা, ১৯৯৭’ অনুযায়ী কাগজ কারখানা র‌্যাংকিং-এ চরম সীমায় দূষণকারী (লাল শ্রেণি)। দূষণ বিরোধী অভিযানের অভিজ্ঞতায় দেখেছি, পরিবেশগত প্রভাব সমীক্ষা (ইআইএ) ছাড়া প্রচুর কারখানা গড়ে উঠেছে। কার্যকর বর্জ্য পরিশোধন যন্ত্রের অভাবে এসব কারখানার দূষিত বর্জ্যের চূড়ান্ত গন্তব্য কর্ণফুলি, মেঘনা ও শীতলক্ষ্যার উদরে। এছাড়া রাতের আঁধারে কত বর্জ্য ফেলা হয়, তা’ রাতের অভিযানে না নামলে কখনো জানতাম না।
নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে একসঙ্গে ৩ কারখানায় অভিযান চালিয়ে একটিতেও বর্জ্য শোধনাগারের চিহ্ন পাইনি। দূষণের মাত্রা এত তীব্র ছিল, যেন নদী ভর্তি রক্ত প্রবাহ, ঐ স্থানে দ্রবীভূত অক্সিজেন ছিল মাত্র ০.৭ মিলিগ্রাম/লিটার। এটি দূষণ প্রমাণের সর্বোৎকৃষ্ট ব্যারোমিটার। এ অবস্থায় নদীতে মাছ শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে না পেরে উপরে উঠে আসে বা তীরে চলে আসে। দৈনিক ১ টন কাগজ তৈরিতে পানির ব্যবহার ৮ হাজার ঘন মিটার। এভাবে কাগজ কারখানাগুলোর সৃষ্ট কোটি কোটি লিটার বর্জ্য দেশের ৭৫% পানির উৎস নদ-নদীকে ‘বিষাক্ত’ করছে। উন্নত মানের কাগজ তৈরিতে পেপার ফাইবার বেশি রিসাইক্যাল করা যায় না, ফলে তা’ স্লাজে পরিনত হয়ে পরিবেশের উপর বাড়তি চাপ সৃষ্টি করছে। শেষ পর্যন্ত ফুড চেইনের মাধ্যমে নদ-নদীর বিষাক্ত পানির ধ্বংসাত্মক প্রভাব পড়ছে আমাদের কিডনি, লিভার, পরিপাকতন্ত্রে। পরিবেশের উপর এ অত্যাচার সৃষ্টি করছে মরণব্যাধি ক্যানসার। দূষণের সব প্যারামিটার অতিক্রম করায় বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, বালু, শীতলক্ষ্যা নদী প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা। এই চার নদী দূষণের কারণে আজ ঢাকার ৩৩ কি. মি. দূরে পদ্মা নদী থেকে বিশাল অর্থ ব্যয়ে ওয়াসা’কে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের প্রজেক্ট নিতে হয়েছে।
দুরন্ত স্রোতের নদ-নদীগুলো আজ পঙ্কিল স্রোতে পরিণত। হারিয়ে গেছে দেশি প্রজাতির মাছ, গাঙচিল, সাদাবক ও বেলে হাস। পরিবেশগত ক্ষতি ব্যক্তির একার নয়। এ ক্ষতি সমগ্র জাতির, জীববৈচিত্র্যের এবং পুরো সভ্যতার। পৃথিবীর সব প্রাকৃতিক সম্পদের মধ্যে ভূতাত্ত্বিকভাবে নদী ও সমুদ্রই অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধশালী। বাংলাদেশে প্রবাহিত নদ-নদীগুলো বছরে গড়ে ১ হাজার ৩৫০ বিলিয়ন কিউবিক মিটার পানি সম্পদ বহন করে। উপগ্রহচিত্র বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে, নগরায়ণ ও শিল্পায়নের নামে নদীগুলোর এলাইনমেন্ট কীভাবে ভাঙছে। ফলে পূর্ণ গভীরতা, সৌন্দর্য ও লাবণ্যের নদী কোথাও আর নেই। আতংকজনক খবর হলো, টোকিও, লন্ডন, মিয়ামী, ইস্তাম্বুল, মেক্সিকো সিটি, মস্কো, জাকার্তা, কায়রো, বেইজিং এর মত বড় বড় শহরগুলো অচিরেই পানিশূন্যতার কবলে পড়ছে।
নদ-নদী ও জল সম্পদ শুধু মানুষের ভোগের জন্য নয়, এ সম্পদে সব সৃষ্টির অধিকার আছে। নতুন প্রজন্ম, উদ্যোক্তা এবং সচেতন নাগরিকদের বুঝতে হবে, কাগজের অতি ব্যবহারে প্রাকৃতিক সম্পদ হ্রাস, নদ-নদীর সর্বনাশ। কাগজের প্রাচুর্য সৃষ্টি করছে অমিতব্যয়িতা। শিল্প বিল্পবের ক্রম বিবর্তনের ধারাবাহিকতায় কর্পোরেট পুঁজিবাদ পরিবেশ ধ্বংসের উন্মাদনায় নেমেছে, যার শুধু লক্ষ্য ‘মুনাফা ও ভোগ’। ১৬০০ কিলোক্যালরির বেশি খাবার মানুষের প্রয়োজন নেই, অথচ অনৈতিক ভোগবাদিতায় অন্ধ কিছু মানুষ অক্টোপাসের মত সব গিলে খেতে চাচ্ছে। পুঁজিবাদ শাসিত ভোগবাদিতা মানুষের জীবনের সরলতাকে জটিলতায় রূপান্তর করছে। পরিবেশ ও অর্থনীতির অপরিমেয় ক্ষতি কমাতে কাগজের অপচয় ও দূষণ বন্ধ করতে হবে। যে শিল্পায়ন পরিবেশ-প্রকৃতি মানে না, তা’ অপরিপক্ব শিল্পায়ন। টেকসই উন্নয়নের ধারণায় আনতে হবে কাগজের সীমিত ব্যবহারের যৌক্তিকতা, নতুবা “পরিবেশ” পরাজিত হবে, বিজয়ী হবে “মুনাফা”। শিল্প বর্জ্যের ভারে যেদিন স্তব্ধ হবে নদ-নদীর উত্তাল ঢেউ, সেদিন স্তব্ধ হবে সভ্যতার স্পন্দন। মহাশক্তিমান স্রষ্টা আল্লাহ্‌ নদীতে উজাড় করে দিয়েছেন পলি মাখা উর্বর জমি, টনে টনে জলরাশি ও হাজারো প্রজাতির মৎস্য রাজি। নদী জীববৈচিত্রের আধার, সম্পদে ভরা প্রকৃতির অনন্য উপহার। মানুষের শৈশব, কৈশোর, যৌবন, প্রৌঢ়ত্ব, বার্ধক্য ও মৃত্যু আছে। কিন্তু নদী চির যৌবনা, চির গতিময়, চির সঞ্চারময়। অথচ নদীকে দখলে পদানত করে, দূষণে নিঃশেষ করে আমরা মুমূর্ষু অবস্থায় এনেছি। মানব ধমনীতে রক্ত প্রবাহ এবং অর্থনীতির ধমনীতে নদীর প্রবাহ একসূত্রে গাঁথা। নদী ও জীবন-জীবিকা, নদী ও সভ্যতা অবিচ্ছিন্ন তরঙ্গে বাঁধা। নদী রক্ষায় চাই কঠোর প্রতিজ্ঞা, সদিচ্ছা।

লেখক : মহাপরিচালক